মন্দিরের পরিত্যক্ত ঘর থেকে উদ্ধার নিখোঁজ BJP নেতার ঝুলন্ত দেহ, তুঙ্গে শাসক-বিরোধী তরজা

 
প্রকাশিত: 08/03/2021 at 12:24 pm

মন্দিরের পরিত্যক্ত ঘর থেকে উদ্ধার নিখোঁজ বিজেপি (BJP) বুথ সভাপতির ঝুলন্ত দেহ। মঙ্গলবার সকালে বীরভূমের খয়রাশোলের হজরতপুর গ্রামের বিশ্বরূপ মন্দির চত্বরের পরিত্যক্ত ঘরে ঝুলন্ত অবস্থায় তাঁকে দেখতে পাওয়া যায়। অভিযোগ, তৃণমূল কর্মী-সমর্থকরাই তাঁকে খুন করে দেহ ঝুলিয়ে দিয়েছে। যদিও সেই অভিযোগ খারিজ করেছে শাসকদল তৃণমূল।

ইন্দ্রজিৎ সূত্রধর নামে বছর পঁয়ত্রিশের ওই যুবক ৩৩ নম্বর বুথের বিজেপি সভাপতি ছিলেন। পরিবারের দাবি, গত শনিবার দাদার বাড়ি যাবেন বলে বেরোন তিনি। তবে পরে জানা যায় দাদার বাড়ি যাননি তিনি। শুরু হয় খোঁজখবর। তবে দু’দিন কেটে গেলে তাঁর সন্ধান পাওয়া যায়নি। মঙ্গলবার সকালে স্থানীয়রাই খয়রাশোলের হজরতপুর গ্রামের বিশ্বরূপ মন্দির চত্বরের পরিত্যক্ত ঘরে ইন্দ্রজিতের ঝুলন্ত দেহ দেখতে পান। দেহ উদ্ধারের সময় তাঁর মুখে রুমাল বাঁধা ছিল। হাত-পা ছিল দড়ি দিয়ে বাঁধা। খবর দেওয়া হয় পুলিশে। দেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠায়।

দেহ উদ্ধারের পর থেকে শুরু বিজেপি-তৃণমূল (TMC) তরজা। এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে বিজেপি মণ্ডল সহ সভাপতি ভজহরি বাগের অভিযোগ, ইন্দ্রজিৎকে খুন করা হয়েছে। তৃণমূলই এই ঘটনায় দায়ী বলেও দাবি তাঁর। বিজেপি বিধায়ক অনুপ সাহার গলাতেও একই অভিযোগের সুর। তিনি বলেন, “এই এলাকায় বিজেপির উপর সন্ত্রাস চলছে, এটাই তাঁর উদাহরণ। আমাদের কর্মীকে মেরে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে।” যদিও এই অভিযোগ মানতে নারাজ শাসকদল তৃণমূল। জেলা তৃণমূল সহ সভাপতি মলয় মুখোপাধ্যায় খুনের অভিযোগ পুরোপুরি নস্যাৎ করেছে। তিনি বলেন, “পুলিশ (Police) ঘটনার তদন্ত করে প্রকৃত দোষীদের গ্রেপ্তার করুক।” উল্লেখ্য, এর আগেও পুরুলিয়া, বীরভূম-সহ রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে বিজেপি কর্মীদের খুন করে দেহ ঝুলিয়ে দেওয়ার অভিযোগ ওঠে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। যদিও বারবারই ঘটনার অভিযোগ নস্যাৎ করেছে ঘাসফুল শিবির। রাজনৈতিকভাবে কালিমালিপ্ত করার জন্য গেরুয়া শিবির এমন অভিযোগ করে বলেই দাবি তৃণমূলের।

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন । আজই পাঠিয়ে দিন - write@sarabangla.in