লকডাউনে যা করতে পারেন

 
প্রকাশিত: 07/13/2021 at 12:24 pm

জীবিকার চেয়ে জীবন অনেক গুরুত্বপূর্ণ। তাই দ্রুত বেড়ে চলা করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে সরকার সোমবার থেকে কঠোর লকডাউনের ঘোষণা দিয়েছে। আপনার, আমার সবার উচিত সঠিক স্বাস্থ্যবিধি মেনে নিজে নিরাপদ থাকা ও অন্যদের নিরাপদে রাখা। আর যেহেতু লকডাউনে বাসা থেকে বের হওয়া উচিত না, তাই কীভাবে কাটাবেন অলস সময়, তার একটা পরিকল্পনা করে ফেলা উচিত। আপনাকে সহায়তা করতে পারে নিচের কিছু টিপস।

লকডাউন চলাকালে সৃজনশীলতা যেন থেমে না যায়, বরং নতুন কিছু করার ও গড়ে তোলার প্রয়াস যেন থাকে আপনার সেই চেষ্টাই করতে হবে। এক্ষেত্রে অনলাইনেও সার্চ করে দেখতে পারেন আপনি কী কী করতে পারেন এই সময়ে।

* লকডাউনে নতুন একটা ভাষা শিখে ফেলার চেষ্টা করুন। হতে পারে তা ইতালিয়ান, স্প্যানিশ বা ফ্রেঞ্চ। আর নিজেকে আরো স্মার্ট হিসেবে গড়ে তুলতে ইংরেজিটাতেও আরো জোর দিতে পারেন।

* ক্যারিয়ারভিত্তিক অনলাইন কোর্সের সন্ধান পেলে করে নিন তা। ভবিষ্যতে আপনার কাজে আসবে।

* একঘেঁয়ে সময় থেকে পরিত্রাণ পেতে বিভিন্ন পোডকাস্ট শুনতে পারেন।

* আপনি কি কোনো ইনস্ট্রুমেন্ট বাজাতে চান? তাহলে লকডাউনের সময়ে পিয়ানো, বাঁশি, তবলা বা এ জাতীয় কোনো ইনস্ট্রুমেন্ট বাজানো শিখুন।

* বই পড়ার আনন্দ কোনো দিনও কমবে না। লকডাউনের সময়ে নিজেকে আরো সমৃদ্ধ করে তুলতে নতুন বেস্টসেলার বই ও পুরোনো ক্লাসিক কিছু বই পড়তে পারেন।

* যেহেতু বাসায় আছেন তাই সময় নিয়ে পুরো বাসার সব জায়গা ভালো করে পরিষ্কার করে ফেলতে পারেন। প্রচলিত কথা আছে- রান্না ঘর গোছানো থাকা মানে মনটাও গোছানো। তাই রান্না ঘর পরিপাটি করে ফেলুন এই লকডাউন সময়ে।

* পরিবারের সদস্যদের, আপনার বাগানের, পরিবেশের সুন্দর কিছু ছবি তুলে রাখতে পারেন আপনার প্রিয় ক্যামেরায়। এটা এক সময় দারুণ স্মৃতি হয়ে থাকবে।

* রান্না করতে শিখুন। লকডাউনে যেহেতু অনেক সময় হাতে পাবেন, তাই নির্দিষ্ট সময়ে কয়েক ধরনের ডিশ রান্না করা শিখে ফেলুন। এটা আপনার জন্য ও পরিবারের জন্য উপকারী হবে।

* আপনার ওয়ারড্রোবটা গুছিয়ে ফেলুন সময় নিয়ে।

* বিভিন্ন ফুল কীভাবে একসঙ্গে করে ব্যুকে তৈরি করা যায়, তা শিখুন। পরে জন্মদিন বা বিশেষ দিনে প্রিয়জনদের উপহার দিতে পারবেন।

* বাগানের কাজ করুন। বাসার পাশে খালি জায়গা থাকলে ফুল বাগান করার পাশাপাশি ভেষজ গাছ লাগানোর দিকে মনোযোগ দিন। টবেও ফুলগাছ লাগাতে পারেন।

* আপনার ক্যারিয়ারের কথা ভেবে লকডাউনের সময়টায় নিজের সিভি আপডেট করতে পারেন।

* লেখালেখি করার আগ্রহ থাকলে লকডাউনের সময়টা আপনার জন্য খুব উপযোগী হবে। কবিতা, গল্প, উপন্যাস যেকোনো কিছু লেখার অভ্যাস করুন।

* ব্যায়াম করুন নির্দিষ্ট সময়ে। মেডিটেশনও করতে পারেন। এতে করে করোনা থেকে যেমন নিরাপদে থাকতে পারবেন, তেমনি অন্য সব রোগ বালাইও দূর হবে।

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন । আজই পাঠিয়ে দিন - write@sarabangla.in