Breaking News

গলদা চর্মরোগে আক্রান্ত গরুকে এই দেশীয় চিকিৎসা দিন, আরাম পাবেন, পরামর্শ পশু বিশেষজ্ঞদের

নতুন দিল্লি. দেশের বিভিন্ন রাজ্যে গরু ও মহিষে লাম্পি চর্মরোগ ভাইরাসের সংক্রমণ বাড়ছে। যার জেরে গুজরাট, রাজস্থান সহ বহু রাজ্যে হাজার হাজার গবাদি পশু মারা গেছে। সবচেয়ে বেশি সংখ্যক প্রাণী মারা গেছে গরু। লম্পি চর্মরোগ হল একটি ভাইরাস দ্বারা সৃষ্ট একটি সংক্রামক রোগ যা দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে এবং বিশেষ করে দুর্বল রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা সম্পন্ন গরুকে প্রভাবিত করে। এই রোগের কোন সুনির্দিষ্ট চিকিৎসা না থাকায় শুধুমাত্র ভ্যাকসিনই এই রোগকে নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ করতে পারে। তবে পশু বিশেষজ্ঞদের মতে, লুম্পি রোগে আক্রান্ত গরু ও মহিষকেও কিছু দেশীয় ও আয়ুর্বেদিক প্রতিকারের মাধ্যমে নিরাময় করা যায়।

ভেটেরিনারি এবং পশুপালন সম্প্রসারণ শিক্ষা বিভাগ, কলেজ অফ ভেটেরিনারি অ্যান্ড অ্যানিমেল সায়েন্স, হিমাচল প্রদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় পালমপুর গলদা চর্মরোগ সংক্রান্ত ঠাকুর ঠাকুরের পশু চিকিৎসা বিশেষজ্ঞ ডা বলা হয়, গরু-মহিষে চলমান এই নোডুলার চর্মরোগ খুব দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে। এখন পর্যন্ত দেশের প্রায় ১৭টি রাজ্যে ছড়িয়ে পড়া এই রোগ মহামারী আকার ধারণ করেছে। তাই শুধু সরকারই নয়, পশুপালকদেরও এ বিষয়ে সচেতন হওয়া প্রয়োজন। এটি একটি সংক্রামক রোগ, এর কোনো প্রতিষেধক নেই, তবে যদি একটি গরু এটিতে আক্রান্ত হয় তবে কিছু ঐতিহ্যগত প্রতিকারও করা যেতে পারে যা খুবই উপকারী।

ডাঃ দেবেশ বলেছেন যে দেশের জাতীয় দুগ্ধ উন্নয়ন বোর্ড গলদা চর্মরোগের জন্য ঐতিহ্যগত চিকিত্সার পদ্ধতি নির্ধারণ করেছে। গরু আক্রান্ত হলে এসব সনাতন ব্যবস্থাও গ্রহণ করলে অনেকটাই উপশম পাওয়া যায়। তবে এ সময় খেয়াল রাখবেন রোগাক্রান্ত পশুকে সুস্থ পশু থেকে সম্পূর্ণ দূরে রাখুন। অসুস্থ পশুর কাছে অন্য প্রাণীকে যেতে দেবেন না বা অন্য প্রাণীকে তার অবশিষ্ট পানি বা পশু খেতে দেবেন না।

এটি ঐতিহ্যগত চিকিত্সার পদ্ধতি
প্রথম পদ্ধতি

উপকরণ – 10টি পান পাতা, 10 গ্রাম কালো গোলমরিচ, 10 গ্রাম লবণ এবং প্রয়োজন মতো গুড়
, সব উপকরণ পিষে একটি পেস্ট তৈরি করুন এবং প্রয়োজন মতো গুড় যোগ করুন।
, এই মিশ্রণটি পশুকে অল্প পরিমাণে খাওয়ান।
, প্রথম দিন, প্রতি তিন ঘন্টায় পশুকে একটি ডোজ দিন।
, দ্বিতীয় দিন থেকে দ্বিতীয় সপ্তাহ পর্যন্ত দিনে মাত্র 3 ডোজ খাওয়ান।
, প্রতিটি ডোজ তাজা প্রস্তুত করুন।

দ্বিতীয় পদ্ধতি
ক্ষতস্থানে লাগানোর জন্য মিশ্রণটি প্রস্তুত করুন।
উপাদান- 1 মুঠো মেথি পাতা, 10 লবঙ্গ রসুন, 1 মুঠো নিম পাতা, 1 মুঠো মেহেদি পাতা, 500 মিলি নারকেল বা তিল, 20 গ্রাম হলুদের গুঁড়া, 1 মুঠো তুলসী পাতা

রেসিপি-সব উপকরণ পিষে পেস্ট তৈরি করুন। এরপর নারকেল বা তিলের তেল দিয়ে সিদ্ধ করে ঠান্ডা হতে দিন।
এভাবে ব্যবহার করুন- এবার গরুর ক্ষত ভালো করে পরিষ্কার করার পর এই ঠান্ডা মিশ্রণটি সরাসরি ক্ষতস্থানে লাগান। অন্যদিকে ক্ষতস্থানে পোকামাকড় দেখা গেলে প্রথমে নারকেল তেলের সঙ্গে কর্পূর মিশিয়ে লাগান। অথবা ধনেপাতা পাতা পিষে পেস্ট তৈরি করে ক্ষতস্থানে লাগান।

ট্যাগ: প্রাণী, গাভী


Source link

About sarabangla

Check Also

28 দিন পর কেন চোখের ড্রপ বিপজ্জনক হয়ে যায়, পুরো ঘটনা জেনে নিন ডাক্তারের কাছ থেকে, পরে ব্যবহারে সমস্যা হতে পারে

হাইলাইট ডাঃ রিচা পেয়ারে জানান, চোখের ড্রপে প্রিজারভেটিভ ব্যবহার করা হয়। তারিখের পরেও যদি চোখের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *