Breaking News

সমস্ত এশিয়া কাপ 2022 টিমের SWOT বিশ্লেষণ ভারত থেকে শ্রীলঙ্কা বাংলাদেশকে হিন্দি এশিয়া কাপে বিস্তারিত চেক করে

এশিয়া কাপ 2022 শুরু হচ্ছে 27 আগস্ট থেকে। প্রথম ম্যাচটি শ্রীলঙ্কা এবং আফগানিস্তানের মধ্যে, তবে দ্বিতীয় ম্যাচটি এই টুর্নামেন্টে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে, যেখানে ভারত পাকিস্তানের মুখোমুখি হবে। এই দুই দলকে শিরোপা জয়ের সবচেয়ে শক্তিশালী প্রতিযোগী হিসেবে বিবেচনা করা হয় এবং এই ম্যাচে জয়ী দল ট্রফি জয়ের দিকে গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ নেবে। তবে শ্রীলঙ্কা ও আফগানিস্তানের দলেও পার্থক্য গড়ে তোলার সম্ভাবনা রয়েছে। হংকংয়ের সাম্প্রতিক ফর্মও চমৎকার।

এখানে আমরা বলছি একটি দলের শক্তি ও দুর্বলতাগুলো কী কী। কোন বিষয়গুলো পরাজয়ের কারণ হতে পারে এবং কোন শক্তিশালী দিকগুলো ম্যাচ জেতাতে সাহায্য করতে পারে।

ভারত

ভারতীয় দলের সবচেয়ে শক্তিশালী দিক ব্যাটিং। এই দলের বোলিং ও ফিল্ডিংও চমৎকার। এ কারণে ভারতকে শিরোপা জয়ের সবচেয়ে শক্তিশালী দাবিদার হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে। ভারতীয় দলে, অধিনায়ক রোহিত শর্মা দ্রুত শুরু করেন এবং সূর্যকুমার যাদব এবং হার্দিক পান্ড্য মিডল অর্ডারে বিস্ময়কর কাজ করে। দীনেশ কার্তিকও ঠিকই ম্যাচ শেষ করছেন। দলের স্পিন বোলাররাও আশ্চর্যজনক এবং দুবাইয়ের ধীরগতির পিচের সুবিধা নিতে পারে।

জাসপ্রিত বুমরাহ ও হর্ষাল প্যাটেলের বিদায়ের পর ভারতের ফাস্ট বোলিং দুর্বল দিক হয়ে দাঁড়িয়েছে। ভুবনেশ্বর কুমার একমাত্র অভিজ্ঞ ফাস্ট বোলার। আরশদীপ এবং আভেশ খানের পারফরম্যান্সও দুর্দান্ত, তবে উভয়েরই অভিজ্ঞতার অভাব রয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে বড় ম্যাচে চাপে পড়তে পারেন এই বোলাররা। ভারতের লক্ষ্য রক্ষা করতে সমস্যা হতে পারে।

ভারতীয় দল

রোহিত শর্মা (অধিনায়ক), কেএল রাহুল, বিরাট কোহলি, সূর্যকুমার যাদব, ঋষভ পান্ত, দীপক হুডা, দিনেশ কার্তিক, হার্দিক পান্ড্য, রবীন্দ্র জাদেজা, আর অশ্বিন, যুজবেন্দ্র চাহাল, রবি বিষ্ণোই, ভুবনেশ্বর কুমার, আরশদীপ সিং, আভেশ খান।

রিজার্ভ খেলোয়াড়: শ্রেয়াস আইয়ার, অক্ষর প্যাটেল, দীপক চাহার।

তারকা প্লেয়ার

ভারতীয় দল তারকা খেলোয়াড়ে ভরপুর, তবে বর্তমানে সূর্যকুমার যাদব এবং হার্দিক পান্ড্য দুর্দান্ত ফর্মে রয়েছেন। সবার নজর থাকবে এই দুই খেলোয়াড়ের দিকে। এ ছাড়া যুজবেন্দ্র চাহাল এবং আরশদীপ সিংও বিস্ময়কর কাজ করতে পারেন।

পাকিস্তান

ব্যাটিংও পাকিস্তানের সবচেয়ে শক্তিশালী দিক। দলের অধিনায়ক বাবর আজম ও মোহাম্মদ রিজওয়ান ইনিংস ওপেন করেন এবং এই দুজন দলের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ব্যাটসম্যান। হায়দার আলি এবং আসিফ আলি লোয়ার অর্ডারে বড় ছক্কা মারাতেও পারদর্শী এবং প্রায়শই শেষ ওভারে, দুজনেই দ্রুত রান তোলেন যাতে পাকিস্তানকে বড় স্কোরে নিয়ে যায়।

পাকিস্তানের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বোলার শাহীন আফ্রিদির ইনজুরির পর পাকিস্তানের ফাস্ট বোলিংও দুর্বল হয়ে পড়েছে। স্পিনেও শাদাব খান ছাড়া বড় কোনো নাম নেই। এমন পরিস্থিতিতে লক্ষ্য রক্ষায় চাপে পড়তে পারে পাকিস্তান দলও। উদ্বোধনী ওভারে একজন উইকেটও নেই পাকিস্তানের।

পাকিস্তানি দল

বাবর আজম (অধিনায়ক), শাদাব খান, আসিফ আলী, ফখর জামান, হায়দার আলী, হারিস রউফ, ইফতিখার আহমেদ, খুশদিল শাহ, মোহাম্মদ নওয়াজ, মোহাম্মদ রিজওয়ান, মোহাম্মদ ওয়াসিম জুনিয়র, নাসিম শাহ, শাহনওয়াজ দাহানি, উসমান কাদির, মোহাম্মদ হুসেন।

তারকা প্লেয়ার

পাকিস্তানের ব্যাটিংয়ের মেরুদণ্ড বাবর আজম। তারা ছাড়াও আসিফ আলী ও মোহাম্মদ রিজওয়ানও চমক দেখাতে পারেন। শাদাব খান ও নাসিম শাহও বোলিংয়ে ভালো করতে পারেন।

হংকং

শিরোপা জয়ের দাবিদার নয় হংকংয়ের দল। মূল রাউন্ডে জায়গা করা এই দলের জন্য একটি বড় অর্জন, তবে এই দলটি উল্টে যে কোনও দলের কাজ নষ্ট করতে পারে। হংকংয়ের সাম্প্রতিক ফর্ম দুর্দান্ত এবং টানা তিনটি ম্যাচ জিতে এই দলটি ভারত বা পাকিস্তানের বিরুদ্ধে জয় নিবন্ধন করে ইতিহাস তৈরি করতে চায়। আফগানিস্তানের ব্যাটিং ও বোলিং দুটোই চমৎকার, কিন্তু অভিজ্ঞতার অভাব এই দলের সবচেয়ে বড় দুর্বলতা। দুর্বল দলের বিপক্ষে বেশির ভাগ ম্যাচই খেলেছে হংকং। এমতাবস্থায় বড় দলের বিপক্ষে এই দলটির ওপর অনেক চাপ থাকবে।

হংকং দল

নিজাকত খান (অধিনায়ক), কিঞ্চিত শাহ, জিশান আলী, হারুন আরশাদ, বাবর হায়াত, আফতাব হোসেন, আতিক ইকবাল, এজাজ খান, এহসান খান, স্কট ম্যাকেনি (উইকেটরক্ষক), গজানফর মোহাম্মদ, ইয়াসিম মুর্তজা, ধনঞ্জয় রাও, ওয়াজিদ শাহ, আয়ুষ শুক্লা , অহন ত্রিবেদী, মোহাম্মদ ওয়াহিদ।

তারকা প্লেয়ার

ইয়াসিম মুর্তজা কোয়ালিফায়ার রাউন্ডে দলের হয়ে সবচেয়ে বেশি রান করেছেন এবং বড় দলগুলোর বিপক্ষেও ভালো স্কোর করবে বলে আশা করা হচ্ছে। তিনি ছাড়াও বাবর হায়াতও বিস্ময়কর কাজ করতে পারেন। বোলিংয়ে দলের প্রধান খেলোয়াড় এহসান খান ও আয়ুশ শুক্লা। অধিনায়ক নিজাকত খানও লম্বা ইনিংস খেলায় পারদর্শী।

আফগানিস্তান

আফগানিস্তানের দল কয়েক বছর ধরে অনেক উন্নতি করেছে এবং এখন ভারত-পাকিস্তানের পর টুর্নামেন্টের তৃতীয় শক্তিশালী দল হিসেবে বিবেচিত হয়। স্পিন বোলিং এই দলের সবচেয়ে শক্তিশালী দিক। দলের অধিনায়ক মোহাম্মদ নবী, রশিদ খান ও মুজিব উর রহমান যে কোনো ব্যাটিং অর্ডার ধ্বংস করতে পারেন। ব্যাটিংয়েও হজরতুল্লাহ জাজাই ও রহমানুল্লাহ গুরবাজ দলের শক্তি।

আফগানিস্তানের দুর্বলতা তাদের ফাস্ট বোলিং। দলে অনেক ফাস্ট বোলার আছে যাদের পেস আছে, কিন্তু তাদের এখনও অনেক কিছু শেখার আছে। ব্যাটিংয়ে অভিজ্ঞতার অভাবও রয়েছে এবং এই দলটি লক্ষ্য তাড়া করতে ব্যর্থ হয়।

আফগানিস্তান দল

মোহাম্মদ নবী (অধিনায়ক), নাজিবুল্লাহ জাদরান, আফসার জাজাই, আজমতুল্লাহ ওমরজাই, ফরিদ আহমেদ মালিক, ফজলহক ফারুকী, হাশমাতুল্লাহ শাহিদি, হজরতুল্লাহ জাজাই, ইব্রাহিম জাদরান, করিম জানাত, মুজিব উর রহমান, নজিবুল্লাহ জাদরান, নূরুল্লাহ খান আহমেদ, নুরুল্লাহ খান আহমেদ, উল্যাহ খান। জাজাই, সামিউল্লাহ শিনওয়ারি।

রিজার্ভ খেলোয়াড়: নিজাত মাসুদ, কায়েস আহমেদ, শরফুদ্দিন আশরাফ।

তারকা প্লেয়ার

আফগানিস্তানের জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড় রশিদ খান ও মোহাম্মদ নবী। বল ও ব্যাট দুই হাতেই তিনি বিস্ময়কর কাজ করতে পারেন। স্পিন বোলার মুজিব উর রহমানও বল হাতে ম্যাচ জিততে পারেন। ফাস্ট বোলার ফজলহক ফারুকি এবং শেষ ওভারে নাজিবুল্লাহ জাদরানও ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দিতে পারদর্শী।


Source link

About sarabangla

Check Also

গুজরাট নির্বাচন 2022 এর প্রথম ধাপে শীর্ষ দশটি ধনী প্রার্থী

গুজরাটের তিন ধনী প্রার্থী – ছবি: আমার উজালা খবর শুনুন খবর শুনুন গুজরাটে, 89টি বিধানসভা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *