Breaking News

চিনি এবং ওজন বৃদ্ধির সমস্যায় ভুগছেন বাজরা একটি ‘নিরাময়’, এই শস্যের উপকারিতা জানলে অবাক হবেন

হাইলাইট

বাজরে প্রচুর পরিমাণে ডায়েটারি ফাইবার থাকে।
উচ্চ কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণেও বাজরা সহায়ক।

বাজরা স্বাস্থ্য উপকারিতা: ভারতীয় খাবার বৈচিত্র্যে ভরপুর। আমাদের খাবারে অনেক ধরনের শস্যদানাও রয়েছে, যেগুলো শুধু খাবারের স্বাদই বাড়ায় না স্বাস্থ্যের জন্যও অনেক উপকারী। বাজরাও তার মধ্যে একটি। বাজারে উপস্থিত পুষ্টি উপাদান এই শস্যটিকে বিশেষ করে তোলে। ঠাণ্ডা মৌসুমে বাজরা প্রচুর ব্যবহার করা হয়। বাজরার খিচড়িও খুব পছন্দের। বাজরাতে উপস্থিত বৈশিষ্ট্যগুলির কারণে, সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিও এসসিও শীর্ষ সম্মেলনে মিলেটস ফুডস ফেস্টিভ্যাল করার প্রস্তাব করেছেন। পিএম মোদি বাজরা চাষ এবং ব্যবহার প্রচারের কথাও বলেছেন।
বাজরা পুষ্টিগুণে ভরপুর। এ কারণেই অনেক রোগে এটি খুবই উপকারী। ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রণ করা থেকে শুরু করে ওজন কমানো পর্যন্ত অনেক ক্ষেত্রেই বাজরা ‘প্যানাসিয়া’ হিসেবে কাজ করে।

বাজরা থেকে স্বাস্থ্যের জন্য এসব উপকার পাওয়া যায়

রক্তের গ্লুকোজ স্তর গম এবং ভুট্টার তুলনায় বাজারে বেশি পুষ্টি পাওয়া যায় এবং এটি গ্লুটেন মুক্ত। myupchar.com এই অনুসারে, এর গ্লাইসেমিক সূচক 54-68। এটি ডায়েটারি ফাইবার এবং প্রোটিন সমৃদ্ধ। এ ছাড়া অ্যামিনো অ্যাসিড, ভিটামিন এবং মিনারেল রক্তে শর্করার মাত্রা ভারসাম্য রাখতে সাহায্য করে।

আরও পড়ুন: পুদিনা অনেক অলৌকিক গুণে ভরপুর, জানেন কি এর ৭টি বড় উপকারিতা?

ওজন – বাজরা ওজন কমাতেও সহায়ক। এর নিয়মিত সেবনে দ্রুত ওজন কমতে পারে। নিয়মিত বাজার আটার রুটি খেলে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখা যায়। ভাতের পরিবর্তে বাজরা খাওয়া স্থূলতায় ভোগা মানুষের জন্য উপকারী। বাজরা খাওয়া অন্ত্রের স্বাস্থ্যের উন্নতিতে সাহায্য করে।

ত্বকের স্বাস্থ্য- নিয়মিত বাজরা খেলে ত্বকের সমস্যাও অনেক ভালো হয়। প্রোটিন ছাড়াও, বাজরে উপস্থিত মাইক্রোনিউট্রিয়েন্ট ত্বকের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে সহায়ক। এতে উপস্থিত আয়রন, জিঙ্ক, ভিটামিন বি৩ ত্বকের জন্য উপকারী।

পেশী ভর – বাজরাতে উচ্চ মানের উদ্ভিদ প্রোটিন রয়েছে যা পেশীগুলির ঘনত্ব বাড়াতেও সাহায্য করে। আপনি যদি একজন বডি বিল্ডার বা স্পোর্টস পারসন হন তাহলে অবশ্যই বাজরা খান।

হার্টের জন্য উপকারী যে কোনো রূপে বাজরা সেবন হার্টের স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত উপকারী। এতে উপস্থিত অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যেমন বিটা-গ্লুটেন, ফ্ল্যাভোনয়েড ইত্যাদি খারাপ কোলেস্টেরল কমাতে সাহায্য করে। রক্তের ধমনী সুস্থ রাখার পাশাপাশি বাজরা জমাট বাঁধা দূর করতেও সাহায্য করে। এটি হৃদরোগ এবং স্ট্রোকের ঝুঁকি উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস করে।

ক্যান্সার কোষ- গবেষণায় এটি প্রমাণিত হয়েছে যে বাজরা ক্যান্সার কোষের সাথে লড়াই করতেও সহায়ক। বাজরে উপস্থিত উপাদানগুলি স্তন, কোলন, লিভারে উপস্থিত ক্যান্সার কোষের সাথে লড়াই করে স্বাভাবিক কোষের ক্ষতি না করে।

আরও পড়ুন: কিডনিতে পাথরের সমস্যা থাকলে তুলসীর রস খান, খুব শীঘ্রই প্রস্রাবের মাধ্যমে পাথর বেরিয়ে যাবে।

হজম- বাজরে প্রচুর পরিমাণে ডায়েটারি ফাইবার থাকে। যা আমাদের পরিপাকতন্ত্রের উন্নতিতে সাহায্য করে। বাজরা নিয়মিত সেবনে কোষ্ঠকাঠিন্য, পেটে জ্বালাপোড়া, খিঁচুনি সহ পেট সংক্রান্ত অনেক সমস্যা দূর হতে থাকে। এছাড়াও বাজরা লিভার, কিডনি এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার উন্নতি ঘটায়।

ট্যাগ: স্বাস্থ্য, স্বাস্থ্যকর খাবার, জীবনধারা


Source link

About sarabangla

Check Also

উচ্চ রক্তচাপ ভারতে হৃদরোগ এবং মৃত্যুর প্রধান কারণ, 75% রোগীর মধ্যে অনিয়ন্ত্রিত: ল্যানসেট রিপোর্ট

হাইলাইট দেশে উচ্চ রক্তচাপ আছে এমন রোগীদের ৭৫%-এরও বেশি ক্ষেত্রে এটি নিয়ন্ত্রণে নেই। এ কারণে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *