Breaking News

কোলেস্টেরল বৃদ্ধির রোগও জন্মগত হতে পারে, এই লক্ষণগুলি দিয়ে চিহ্নিত করুন

হাইলাইট

পারিবারিক হাইপারকোলেস্টেরোলেমিয়ার লক্ষণগুলি 20 বছর বয়সের আগে দেখা দিতে শুরু করে
চোখের পুতুলের চারপাশে একটি সাদা বা বাদামী বলয় তৈরি হয়

কোলেস্টেরলের মাত্রা: শরীরে কোলেস্টেরল থাকা খুবই জরুরি। কোলেস্টেরল কোষ গঠন সহ শরীরের অনেক প্রক্রিয়ায় অংশগ্রহণ করে। কোলেস্টেরলের কারণে শরীরে হরমোন তৈরি হয়। কিন্তু এর অতিরিক্ত পরিমাণ শরীরের জন্য খুবই ক্ষতিকর। আসলে কোলেস্টেরল আঠালো পদার্থের আকারে রক্তনালীতে জমতে শুরু করে, যা হার্টের উপর চাপ বাড়ায় এবং এর ফলে হার্ট সংক্রান্ত অনেক রোগ দেখা দেয়। খাবার সাধারণত কোলেস্টেরল বৃদ্ধির জন্য দায়ী বলে মনে করা হয়, তবে কখনও কখনও এটি জন্মগতও হতে পারে। যদি এটি বাবা-মায়ের জিন থেকে শিশুদের মধ্যে প্রেরণ করা হয়, তাহলে প্রথম থেকেই শিশুদের মধ্যে কোলেস্টেরল বাড়তে শুরু করে। এই রোগটিকে ফ্যামিলিয়াল হাইপারকোলেস্টেরোলেমিয়া বলা হয়। হাইপারকোলেস্টেরলেমিয়ায় আক্রান্ত ব্যক্তির হার্ট অ্যাটাকের প্রাথমিক ঝুঁকি থাকে।

আরও পড়ুন – আপনার সন্তানের কি গণিতে সমস্যা আছে? ডিসক্যালকুলিয়া আছে কি না, জেনে নিন লক্ষণ ও চিকিৎসা

হাইপারকোলেস্টেরোলেমিয়ার কারণে
মায়ো ক্লিনিক সমীক্ষা অনুসারে, পারিবারিক হাইপারকোলেস্টেরোলেমিয়া জিনের মিউটেশনের কারণে ঘটে যা মা বা বাবা বা বাবা-মা উভয়ের জিন থেকে সন্তানের কাছে চলে যায়। এই অবস্থায়, রোগটি জন্মের সময় ঘটে। এর ফলে ধমনীতে কোলেস্টেরল জমতে পারে এবং হৃদরোগের কারণ হতে পারে।

হাইপারকোলেস্টেরোলেমিয়ার লক্ষণ
হাইপারকোলেস্টেরলেমিয়া কম বয়সে রক্তে কোলেস্টেরলের পরিমাণ বৃদ্ধি করে। এর কারণে ধমনী পাতলা ও শক্ত হয়ে যায়। অতিরিক্ত কোলেস্টেরল জমার কারণে অনেক সময় ত্বকে ও চোখের নিচে জমা হতে থাকে। এ ছাড়া হাত ও পায়ের শিরা মোটা ও শক্ত হতে শুরু করে। সেখানে কোলেস্টেরল জমতে শুরু করে। যখন কোলেস্টেরলের পরিমাণ খুব বেশি বেড়ে যায়, তখন চোখের পুতুলের চারপাশে একটি সাদা বা বাদামী বলয় তৈরি হয়, যা সাধারণত বয়স্ক ব্যক্তিদের মধ্যে দেখা যায়। এর ফলে গুরুতর কর্নিয়ার রোগ হতে পারে।

চিকিৎসা কি
পারিবারিক হাইপারকোলেস্টেরোলেমিয়ার লক্ষণগুলি 20 বছর বয়সের আগে প্রদর্শিত হতে থাকে। যদি বাবা-মায়ের এই রোগ থাকে তবে 10-12 বছর বয়স থেকে বাচ্চাদের ডাক্তার দেখানো উচিত। ডাক্তাররা স্ট্যাটিন, ইজেটিমিবের মতো ওষুধ দিয়ে এর চিকিৎসা করেন। এ ছাড়া এই রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিকে ওজন নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। উদ্ভিদভিত্তিক খাদ্য, ফলমূল ও সবুজ শাক-সবজি এ রোগের জন্য উপকারী। স্যাচুরেটেড এবং ট্রান্স ফ্যাট থেকে দূরত্ব এই রোগের তীব্রতা থেকে বাঁচাতে পারে।

ট্যাগ: স্বাস্থ্য, স্বাস্থ্য পরামর্শ, জীবনধারা


Source link

About sarabangla

Check Also

খুব বেশি গুড় খাওয়া আপনার স্বাস্থ্যের ক্ষতি করতে পারে, শীতকালে এটি সাবধানে খান, জেনে নিন এর ক্ষতিকর দিকগুলো

গুড়ের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া: মানুষ গ্রীষ্মের চেয়ে শীতকাল বেশি পছন্দ করলেও শীত এলেই নানা ধরনের রোগও দ্রুত …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *