Breaking News

দাঁতের ক্ষয়: এই ভিটামিনের অভাবে দাঁত খারাপ হয়, জেনে নিন কারণ ও শক্তিশালী করার উপায়

হাইলাইট

ভিটামিন K2 খাদ্য থেকে ক্যালসিয়াম শোষণ করে এবং এই ক্যালসিয়ামের সাহায্যে হাড়ে পৌঁছায়।
ভিটামিন এ-এর অভাবে দাঁতের এপিথেলিয়াল কোষের মৃত্যু ঘটে

ভিটামিনের অভাব এবং দাঁতের ক্ষয়: প্রায়শই আমরা মনে করি যে দাঁতের ক্ষয়ের জন্য ফাঙ্গাস বা ব্যাকটেরিয়া দায়ী। কিন্তু এটা যে মত না. ছত্রাক বা ব্যাকটেরিয়ার আক্রমণ তখনই ঘটে যখন আমাদের শরীরে কিছু প্রয়োজনীয় ভিটামিনের ঘাটতি থাকে। অর্থাৎ ভিটামিনের ঘাটতির কারণে দাঁতের ক্ষয়, ব্যথা, ফোলাভাব, হলুদ হয়ে যাওয়ার মতো গুরুতর সমস্যা দেখা দেয়। অনেক গবেষণায় বলা হয়েছে, আমাদের দুর্বল খাদ্যাভ্যাস এবং ভিটামিনের অভাব দাঁতের রোগের জন্য দায়ী। দাঁতের রোগ দাঁতের ক্ষয় বা ক্যাভিটি দিয়ে শুরু হয়। একে দাঁতের ক্ষয় বলা হয়। এতে দাঁতের উপরের স্তর এনামেল থেকে খনিজ পদার্থ হারিয়ে যেতে থাকে। আসুন জেনে নিই দাঁতের এই সমস্যার জন্য দায়ী কি কি।

আরও পড়ুন- ক্যান্সারের নতুন চিকিৎসা: ক্যান্সারের নিরাময় এসেছে! নিরাপদ এবং ব্যথাহীন রেডিওথেরাপির মানুষের পরীক্ষা শুরু হয়

এই ভিটামিনের অভাবে দাঁতের রোগ হয়

ভিটামিন এ,এসজিডিসি ওয়েবসাইটের মতে, ভিটামিন এ-এর অভাবে দাঁতের এপিথেলিয়াল কোষগুলো মারা যেতে শুরু করে। এপিথেলিয়াল কোষগুলি দাঁত থেকে ক্যালসিয়াম, ফসফেট, ম্যাগনেসিয়াম এবং কার্বনেটকে এনামেলের মধ্য দিয়ে যেতে দেয় না। এটি সুস্থ দাঁতের জন্য অপরিহার্য। তাই ভিটামিন এ-এর অভাব হলে এনামেল ক্ষয় হতে শুরু করে।

ভিটামিন ডিভিটামিন ডি শরীরে ক্যালসিয়াম এবং ফসফেট বজায় রাখার জন্য প্রয়োজনীয়। ক্যালসিয়াম এবং ফসফেট শুধুমাত্র ভিটামিন ডি এর উপস্থিতিতে তাদের কাজ সঠিকভাবে করতে সক্ষম। তাই ভিটামিন ডি-এর অভাব হলেই দাঁতের ক্ষতি হতে থাকে।

ভিটামিন কেভিটামিন কে চর্বি দ্রবণীয় যা মানব স্বাস্থ্যের জন্য অপরিহার্য। ভিটামিন কে এর দুটি রূপ রয়েছে। K-1 এবং K-2। ভিটামিন K2 খাদ্য থেকে ক্যালসিয়াম শোষণ করে এবং এই ক্যালসিয়ামের সাহায্যে হাড়ে পৌঁছায়। তাই ভিটামিন কে-এর অভাবও দাঁতের রোগের জন্য দায়ী।

ভিটামিন সি-গবেষণায় দেখা গেছে যে ভিটামিন সি অর্থাৎ অ্যাসকরবিক অ্যাসিডের অভাবের কারণে দাঁতের ক্ষতি হওয়ার ঝুঁকি বেশি। এর কারণ হ’ল দাঁত তৈরির অনেক কোষই কেবল অ্যাসকরবিক অ্যাসিডের সাহায্যে তা করতে সক্ষম হয়।

ম্যাগনেসিয়াম এবং জিঙ্কক্যালসিয়ামকে প্রায়ই দাঁতের মজবুতির জন্য গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করা হয়, তবে ম্যাগনেসিয়াম, সেলেনিয়াম এবং জিঙ্কও এক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এই খনিজগুলিতে অ্যান্টি-ভাইরাল বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যার কারণে দাঁত সুরক্ষিত থাকে।

কিভাবে দাঁত মজবুত করা যায়

শরীরে যে ভিটামিনের কথা বলা হয়েছে তার ঘাটতি যেন না হয়। দাঁতের মজবুতির জন্য খাদ্যতালিকায় সবুজ শাকসবজি, ফলমূল ও ভালো মানের প্রোটিন খান। ভিটামিন এ এর ​​জন্য গাজর, মিষ্টি আলু, পালং শাক, ফুলকপি, রান্না করা মাখন খান। ভিটামিন সি এর জন্য কমলা, স্ট্রবেরি, কিউই, ক্যাপসিকাম, স্প্রাউট ইত্যাদি খান। সেই সঙ্গে তৈলাক্ত মাছ, ভিটামিন ডি এর জন্য সূর্যের আলো প্রয়োজন। ভিটামিন কে এর জন্য উদ্ভিদ-ভিত্তিক খাদ্য খান।

ট্যাগ: ডায়াবেটিস, স্বাস্থ্য, স্বাস্থ্য পরামর্শ, জীবনধারা, ট্রেন্ডিং খবর


Source link

About sarabangla

Check Also

প্রতিদিন সকাল ও সন্ধ্যায় 15 মিনিট রোদে বসে থাকা ব্যথা এবং প্রদাহ থেকে মুক্তি পাওয়ার সেরা উপায়।

হাইলাইট এটি ব্যথা এবং ফোলা অপসারণের সবচেয়ে কার্যকর এবং সহজ উপায়। সূর্যের রশ্মিতে উপস্থিত ইনফ্রারেড …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *