গুণে গুণে ঠিক পাঁচ দিনই বাকি। কীসের আবার! সেই বহু প্রতীক্ষিত দিনের। জীবনের এই বিশেষ দিনের প্রস্তুতি শুরু হয়ে যায় সেই কবে থেকেই। বিয়ে বলে কথা। ঝক্কি কী আর কম। প্ল্যানিং, শপিং, অতিথি তালিকা, নিজেদের কাজ সব মিলিয়ে মাথা খারাপ হওয়ার জোগাড়। এছাড়াও বিয়ে মানেই জীবনের একটা বড় পরিবর্তন। নতুন পরিবার, সবার সঙ্গে মানিয়ে নিয়ে চলা, অচেনা পরিবেশ এই সব কিছু নিয়ে একটা টেনশন হতেই থাকে। সেই সঙ্গে থাকে আইবুড়োভাতের নেমতন্ন। বিয়ের আগে সবাই ডেকে ডেকে খাওয়াতে চান। আবার এদিকে মেয়ে পরের বাড়ি চলে যাবে বলে মাও দিন দুবেলা ভালোমন্দ রেঁধে খাওয়াচ্ছেন। এই দুয়ের মধ্যে পড়ে ওজন গিয়েছে বেড়ে। আপনি কিছুতেই তাঁদের বোঝাতে পারছেন না যে রোগা আর ফিট না দেখালে ছবি মোটেই ভালো আসবে না। এছাড়াও এত খরচা করে শাড়ি, ফটোগ্রাফি, সাজগোজ সব তো সুন্দর দেখানোর জন্য। নিজের দুগাল ফোলা দেখে কষ্ট হচ্ছে? তাহলে মেনে চলুন এই ডায়েট। ফল পাবেনই। শরীরচর্চা করতে ভুলবেন নাআইবুড়োভাত হোক কিংবা মেহেন্দি শরীরচর্চায় যেন ছেদ না পড়ে। প্রতিদিন সকালে উঠে এক ঘন্টা রাখুন নিজের জন্য। কিছুক্ষণ হাঁটুন, জগিং করুন। শরীর আপনেই ভালো থাকবে। সেই সঙ্গে অলেপ বিস্তর প্রাণায়মও করতে পারেন। যাঁরা নিয়মিত সাইকেল বা সাঁতার চালান, তাঁরাও কিন্তু অভ্যেস ছাড়বেন না। ডিটক্সিফিকেশনশরীরচর্চার শুরুতেই একগ্লাস গরম জলে আদা, গোলমরিচ, লবঙ্গ, দারচিনি, তেজপাতা আর তুলসিপাতা দিয়ে ভালো করে ফুটিয়ে নিন। এবার তার মধ্যে একটা গোটা পাতিলেবুর রস আর মধু মিশিয়ে খান। এরপর হাঁটতে যান। এতেও খুব ভালো কাজ হয়। হজমের সমস্যা হয় না। ভালো ব্রেকফাস্ট খানওজন কমাতে চাইলে ব্রেকফাস্ট কখনই বাদ দেবেন না। যেভাবে ব্রেকফাস্টে অভ্যস্ত তাই খান। শুকনো মুড়ির সঙ্গে আদা কুচি আর ছোলা ভেজানো যেমন খেতে পারেন তেমনই ওটস, কর্নফ্লেক্স, দই চিঁড়ে, চিঁড়ের পোলাও, উপমা খেতে পারেন। সেই সঙ্গে একটা ডিম সেদ্ধ আর ফল খান। ব্রেকফাস্টের পর চিনি, মধু ছাড়া এককাপ গ্রিন টি। এছাড়াও চলতে পারে ফ্রুট জুস। কতটা ক্যালোরি বার্ন হল দেখে নিনদ্রুত ওজন কমাতে চাইলে তাড়াতাড়ি ক্যালোরি বার্ন করতে হবে। প্রতিদিন যদি ৩৫০০ ক্যালোরির খাবার খান, তাহলে ৭০০ ক্যালোরি মত ঝরাতেই হবে। যদি প্রতিদিন ৭০০ ক্যালোরি ঝরাতে পারেন তাহলেই প্রতিদিন হাফ কিলো করে ওজন কমবে।জল ও ফল বেশি করে খানপ্রতিদিন অন্তত ৫ লিটার করে জল খেতে হবে। এর মধ্য দুগ্লাস ইষদুষ্ণ গরম জল খান। আর কার্বোহাইড্রেট কম খাওয়ার চেষ্টা করুন। সেই জায়গা পূরণ করুক ফল। যে কোন মিলের আগেই এক টুকরো ফল খান। এতে খিদে কম পাবে আর শরীরে পর্যাপ্ত পুষ্টিও পৌঁছবে।

Source link

Comments

comments