বুদ্ধদেব সেনগুপ্ত: জঙ্গলমহলের সন্ত্রাসের নায়ক এখন শাসকদলের রাজ্যনেতা। সেই ছত্রধর মাহাতকে (Chhatradhar Mahato) এনআইএ’র হাত থেকে বাঁচাতে ভুয়ো করোনা রিপোর্ট তৈরি করে দিয়েছে স্বাস্থ্যদপ্তর। এমনই বিস্ফোরক অভিযোগ তুললেন রাজ্যের বিরোধী দলনেতা আবদুল মান্নান (Abdul Mannan)। তাঁর অভিযোগ, ভুয়ো করোনা রিপোর্ট দেখিয়ে ছত্রধর মাহাতো এনআইএ (NIA) আদালতে হাজিরা এড়িয়েছেন। সেই রিপোর্ট যিনি তৈরি করেছেন, ঝাড়গ্রামের সিএমওএইচ প্রকাশ মিদ্দার বিরুদ্ধেও অভিযোগ তুলেছেন মান্নান। তাঁর এই অভিযোগ ছত্রধর মাহাতো মামলায় নয়া মোড় বলে মনে করছেন অনেকে।শনিবার রাজ্যের বিরোধী দলেনতা আবদুল মান্নান অভিযোগ তোলেন, আজকের শাসকদলের সঙ্গে জোট বেঁধে অনেক সন্ত্রাস করেছেন ছত্রধর। তিনি সম্প্রতি জামিন পেয়েছেন। কিন্তু যখন এনআইএ তাঁকে আদালতে হাজিরার জন্য ডেকে পাঠায়, তখন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন বলে জেরা এড়িয়ে যান তিনি। জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক এই ভুয়ো করোনা রিপোর্ট তৈরিতে সাহায্য করেছিলেন। এরপর মান্নানের আরও দাবি, এনআইএ ভুয়ো করোনা রিপোর্টের কথা বুঝতে পেরে সেই স্বাস্থ্য আধিকারিককেও তলব করেছে। এদিন তিনি আরও অভিযোগ করেন যে ক্ষমতায় আসার পর থেকেই তৃণমূল দলের নেতাদের অপরাধ ধামাচাপা দিতে নানা বেআইনি কার্যকলাপ করেছে। এখন জঙ্গলমহলের একদা মাওবাদী মনোভাবাপন্ন নেতাকে সংগঠনের অন্যতম শীর্ষ পদে বসিয়ে তাঁকেও বাঁচানোর চেষ্টা করছে শাসকদল। এ নিয়ে ছত্রধর মাহাতোর সংক্ষিপ্ত প্রতিক্রিয়া, করোনা রিপোর্ট ভুয়ো না আসল, তা তো চিকিৎসকই বলতে পারবেন।[আরও পড়ুন: চাকরির টোপ দিয়ে টাকা আদায়ের পর অপহরণের ছক, পুলিশের জালে মূল চক্রী দম্পতি]বছর দশেক আগে জঙ্গলমহলে সিপিএম নেতা প্রবীর মাহাতো খুন ও জ্ঞানেশ্বরী এক্সপ্রেসে নাশকতার ঘটনায় অন্যতম মূল অভিযুক্ত তৎকালীন জনসাধারণ কমিটির নেতা ছত্রধর মাহাতো। এনআইএ ঘটনার তদন্তভার পাওয়ার পর সম্প্রতি তা নিয়ে অতি সক্রিয় হয়েছে। ইতিমধ্যে বেশ কয়েকবার ছত্রধরকে ডেকে জেরা করেছেন এনআইএ আধিকারিকরা। ২৮ সেপ্টেম্বর কলকাতায় এনআইএ’র বিশেষ আদালতে তাঁকে হাজিরা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়। কিন্তু ছত্রধর মাহাতো কোভিডজ পজিটিভ বলে হাজিরা এড়ান। এরপর গত সপ্তাহে তিনি কোভিড নেগেটিভ হওয়া সত্ত্বেও ঝাড়গ্রাম থেকে কলকাতায় পরিবহণের সমস্যার কারণ দেখিয়ে হাজিরা দিতে আসেননি। তাতে তাঁকে ঘিরে জল্পনা আরও বাড়ে।[আরও পড়ুন: পুজো দেখতে বেরবেন? সাবধান! করোনা সংক্রমণে আজ রাজ্যে রেকর্ড]সম্প্রতি জঙ্গলমহলের এই জনপ্রিয় নেতাকে মূলস্রোতের রাজনীতিতে ফিরিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁকে তৃণমূলের রাজ্য কমিটির সম্পাদক পদে বসানো হয়েছে। ঘটনাচক্রে তারপর থেকেই তাঁকে নিয়ে এনআইএ’র তৎপরতা বেড়েছে বলে অভিযোগ ছত্রধর মাহাতোর। তার উপর বিরোধী দলনেতার এমন বিস্ফোরক অভিযোগ মামলার ভিন্ন দিকে তদন্তকারীদের নজর ঘোরাল বলে ধারণা ওয়াকিবহাল মহলের।

Source link

Comments

comments