All posts by Sara Bangla

কার্তিক আরিয়ান কোভিড -১৯ টি ভ্যাকসিন শট পেয়েছেন; 'এখন অ্যান্টিবডি লোড হচ্ছে' | হিন্দি মুভি সংবাদ

কার্তিক আরিয়ান তার কোভিড -১৯ টি ভ্যাকসিন শট দেওয়ার জন্য হাসপাতালে লাইন দেওয়ার সর্বশেষতম বলিউড তারকা হয়ে ওঠেন। আমাদের ক্যামেরাগুলি অভিনেতাকে শহরের একটি হাসপাতালে পৌঁছেছিল, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় তার ভ্যাকসিনের ডোজ নিতে।

অভিনেতা তার অদম্য নতুন গাড়ীতে আসার সাথে সাথে বেশ উন্মত্ততা তৈরি করেছিলেন। অভিনেতা আনন্দের সাথে ফটোগুলি সহ পাপারাজ্জিদের বাধ্য করেছিলেন এবং এমনকি ক্যামেরাম্যানদের অনুরোধে তার মুখোশটি খুলে ফেলেন। নিজেকে এবং তার চারপাশের লোকদের সুরক্ষিত রাখার বিষয়টি নিশ্চিত করে এই অভিনেতাকে হাসপাতালের চত্বরে যাওয়ার আগে তার মুখোশটি পিছনে রাখতে দেখা গেছে।

তার শট পাওয়ার পরে, তারকা তার টুইটার হ্যান্ডেলটিতে বললেন, "এখন লোড হচ্ছে: অ্যান্টিবডি …"

ছবি: হিমাংশু শিন্ডে

ছবি: হিমাংশু শিন্ডে

ছবি: হিমাংশু শিন্ডে

এই বছরের গোড়ার দিকে কোভিড -১৯ চুক্তি করেছিলেন এমন অনেক সেলিব্রিটির মধ্যে কার্তিক অন্যতম। পরিচালক আনিস বাজমির কমিক থ্রিলার 'ভুল ভুলাইয়া 2' ছবির শুটিং চলাকালীন অভিনেতা তার ইতিবাচক পরীক্ষার ফলাফল ঘোষণা করেছিলেন।

যদিও তিনি সহ-অভিনেতা কিয়ারা আদভানি এবং তাবুর সাথে চিত্রায়ন করছিলেন, পরে জানা গেছে যে কেবল ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছিলেন তিনি। ফিল্মিংয়ের কাজটি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল।

প্রকল্পে অনেক বিলম্বের সাথে, কোভিড-প্ররোচিত লকডাউনের কারণে, এটি দেখতে পাওয়া যায় যে 'ভুল ভুলাইয়া 2' তার 19 ই নভেম্বর মুক্তি পাবে কিনা।

Ration card: রেশন-আধার লিঙ্ক নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা তৃণমূল সরকারের – e pos is mandatory in duare ration scheme, here is the full process how to collect ration

এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক : ভোটের আগেই তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজ্যের মানুষকে জানিয়েছিলেন, ক্ষমতায় ফিরলে তিনি দুয়ারে রেশন চালু করবেন। সেই মতো ক্ষমতায় এসেই এবার ওই প্রকল্প রূপায়ণের প্রস্তুতি পুরোদমে শুরু করল রাজ্যের খাদ্য দফতর। তবে দু য়ারে রেশন প্রকল্পে রেশন সংগ্রহ করার ক্ষেত্রে খাদ্য দফতর একটি নির্দেশিকা জারি করেছে । সেই নির্দেশিকা অনুযায়ী রেশন কার্ডের সঙ্গে আধার কার্ড লিঙ্ক অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তবে আধার লিঙ্ক না করা থাকলেও রেশন তোলা যাবে কীভাবে তাও জানানো হয়েছে ওই নির্দেশিকায়। একইসঙ্গে এখনও রেশন কার্ডের সঙ্গে আধার কীভাবে লিঙ্ক করা যাবে তাও জানিয়েছেন খাদ্যমন্ত্রী রথীন ঘোষ।রেশন ব্যবস্থায় স্বচ্ছতা বজায় রাখতে দুয়ারে রেশনের ক্ষেত্রেও e-POS অর্থাৎ ‘পস’ মেশিনের ব্যবহার বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। রেশন কার্ডের সঙ্গে আধার কার্ড লিঙ্ক করা থাকলে খাদ্যসাথী উপভোক্তা পরিবারের যেকোনও সদস্য আধার নম্বর অথবা রেশন কার্ডের নম্বর উল্লেখ করে রেশন নিতে পারবেন। রেশন নেওয়ার সময় e-POS অর্থাৎ ‘পস’ মেশিনে বায়োমেট্রিক প্রমাণ দেওয়া বাধ্যতামূলক। পরিবারের অন্তত একজন ব্যক্তির রেশনের সঙ্গে আধার কার্ড লিঙ্ক থাকলেই তিনি পুরো পরিবারের রেশন সংগ্রহ করতে পারবেন বলে নিশ্চিত করেছে খাদ্য দফতর। যেসব রাজ্যবাসীর এখনও রেশনের সঙ্গে আধার লিঙ্কের প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়নি, তাদের ক্ষেত্রেও পরিচয় যাচাই করেই রেশন দেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছে খাদ্য দফতরের তরফে। সেক্ষেত্রে রেশন কার্ডের সঙ্গে যে মোবাইল নম্বর নথিভুক্ত তাতে পাঠানো OTP উল্লেখ করে রেশন তুলতে পারবেন গ্রাহকেরা। যদিও এইভাবে রেশন সংগ্রহের সুযোগ রয়েছে অগাস্ট ২০২১ পর্যন্তই। যেসব খাদ্যসাথী উপভোক্তার রেশন কার্ডের সঙ্গে আধার বা মোবাইল নম্বর কোনটাই লিঙ্ক করা নেই, তাদের অগাস্টের মধ্যে এই কাজ সম্পন্ন করার অনুরোধ করেছেন খাদ্যমন্ত্রী রথীন ঘোষ।আধারকিভাবে রেশন কার্ডের সঙ্গে আধার লিঙ্ক করবেন তা জানিয়েছেন খাদ্যমন্ত্রী১) রেশন দোকানে সরাসরি গিয়ে।২) ১১ ফর্ম নম্বর ফিলাপ করে এরিয়া ইন্সপেক্টর এর কাছে জমা দিয়ে।৩) food.wb.gov.in এই পোর্টালে গিয়ে (অনলাইন/অফলাইন) পোর্টালে নিজেই করা যাবে।৪) বাংলা সহায়তা কেন্দ্রে (৩৫০০ টি রয়েছে রাজ্যে) আধার কার্ড নিয়ে গেলে লিংক করা যাবে।৫) হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাট বুট এও আধার লিংক করা যাবে ৯৯০৩০৫৫৫০৫ এই নম্বরে।৬) এছাড়াও নতুন মোবাইল অ্যাপ তৈরি করা হচ্ছে।৭) জুন মাসের শেষের দিকে বাড়ি বাড়ি গিয়েও লিংক এর কাজ করা হবে ।মোবাইল অ্যাপ-এর মাধ্যমে যে সুযোগ পাওয়া যাবে-১) ই-রেশন কার্ড হবে। আধার ও মোবাইল লিংক করে করাতে হবে।২) কার্ড যে কোনও জেলার হোক না কেন, কিন্তু অন্য যে কোনও জেলা থেকেই রেশন তুলতে পারবেন উপভোক্তা ।৩) নিজের রেশন নিজেই তুলতে পারবেন। অন্য কেউ তুলে নেওয়ার ভয় নেই। ৪) ই-বিল এর সুবিধা হবে। মোবাইলেই সমস্ত বিল পাওয়া যাবে।৫) অনলাইন পরিবারের সবার নাম অ্যাড করা যাবে।৬) এমনকি ঠিকানা পরিবর্তনের বিষয়টিও করা যাবে মোবাইলের মাধ্যমে।নির্বাচনের আগে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ঘোষণা করেছিলেন, তৃণমূল ফের ক্ষমতায় এলে এ বার দুয়ারে রেশন চালু করা হবে। মানুষকে আর কষ্ট করে রেশন দোকানে যেতে হবে না। বাড়িতে বসেই তাঁরা রেশন পেয়ে যাবেন। ইস্তাহারেও সে কথা জানিয়েছিল তৃণমূল। তাই, দুয়ারে রেশন প্রকল্পই এখন পাখির চোখ খাদ্য দফতরের।

Source link

অক্ষয় কুমার সেপ্টেম্বরে ‘রাম সেতু’ ছবির শুটিং শুরু করবেন | হিন্দি মুভি সংবাদ

অক্ষয় কুমার যখন চলচ্চিত্রের পুনরায় শুরু করার কথা আসে তখন সামনে থেকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন। এই মুহুর্তে তিনি আনন্দ এল রাইয়ের ‘রক্ষাবন্ধন’ নিয়ে ব্যস্ত রয়েছেন এবং কার্ডগুলিতে রয়েছে ‘রাম সেতু’ ছবির শুটিংয়ের শিডিউল। শ্যুটিংটি সেপ্টেম্বরে শুরু হবে এবং নতুন শিডিউলগুলি শুভ স্থানে শুটিং করার কথা রয়েছে, তাই চলচ্চিত্রটির নির্মাতারা বর্ষা পরবর্তী পোস্ট শুরু করতে চান।

ছবিটির নির্মাতারা যে কোনও একটি সময়সূচির জন্য শ্রীলঙ্কা যাচ্ছেন বলে খবর ছিল। তবে শ্রীলঙ্কার 15 দিনের বাধ্যতামূলক পৃথক পৃথক প্রক্রিয়া তাদের এই দ্বীপের দেশের পক্ষে বাছাই করতে বাধা দিতে পারে। একটি সূত্র বলেছিল, “কোনও অভিনেতার পক্ষে বিচ্ছিন্নভাবে কাজ না করে অবরুদ্ধ থাকার বিষয়টি অবশ্যই একটি চ্যালেঞ্জ। অক্ষয় যাবার জন্য দৌড়ঝাঁপ করছেন, তাই খুব শীঘ্রই শ্যুটিং হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে এবং কোয়ারান্টাইন সম্পর্কিত বিলম্ব এড়ানোর জন্য, শ্রীলঙ্কার হয়ে উঠতে পারে এমন প্রতারণার জায়গায় ছবিটির শুটিং করা হতে পারে। "

অক্ষয় কুমার কোভিড -১৯ এর জন্য ইতিবাচক পরীক্ষা করার পরে মুম্বইয়ে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া চলচ্চিত্রটির শেষ সময়সূচি বাতিল করতে হয়েছিল। এপ্রিলে দ্বিতীয় লকডাউন ঘোষণার পরে সেটটি ভেঙে ফেলতে হয়েছিল। ফিল্মের মুহুর্তটি অযোধ্যাতে হয়েছিল এবং দুই শীর্ষস্থানীয় মহিলা জ্যাকলিন ফার্নান্দেজ এবং নুশ্রত ভরতুচাকে সেটে উপস্থিত করেছিলেন।

অক্ষয় কুমার গত বছর দিওয়ালি উপলক্ষে ‘রাম সেতু’ ঘোষণা করেছিলেন, টুইটারে প্রথম পোস্টার প্রকাশ হয়েছিল। তিনি এই চিত্রটির শিরোনাম করেছিলেন, “এই দীপাবলি, আসুন আমরা সমস্ত ভারতীয়দের চেতনায় রাম আদর্শকে জীবিত রাখার চেষ্টা করি একটি সেতু (সেতু) তৈরি করে যা আগত প্রজন্মকে সংযুক্ত করবে। এই বিশাল কাজটি এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য, এখানে আমাদের বিনীত প্রচেষ্টা – # রামসেতু আপনাকে এবং আপনার জন্য একটি শুভ দীপাবলিকে শুভেচ্ছা জানাচ্ছে! "। ছবিটি পরিচালনা করছেন অভিষেক শর্মা যিনি এর আগে ‘দ জোয়া ফ্যাক্টর’ ও ‘পরমানু’ করেছেন।

WB State Budget will be presented on 7 July । Sangbad Pratidin

Published by: Paramita Paul |    Posted: June 22, 2021 8:15 pm|    Updated: June 22, 2021 8:15 pm
বুদ্ধদেব সেনগুপ্ত: সাত জুলাই রাজ্য বাজেট (State Budget)। পরিষদীয় মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় বাজেট পেশ করবেন বলে বিধানসভা সূত্রে খবর। অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র অসুস্থ থাকার কারণে সরকারের এই সিদ্ধান্ত বলে জানা গিয়েছে। তবে রাজ্যপালের ভাষণ দিয়ে বাজেট অধিবেশন শুরু হবে কিনা তা নিয়ে বিতর্ক অব্যাহত।নির্বাচনের আগে ভোট অন অ্যাকাউন্ট পেশ করেন অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র। এবার পেশ করা হবে পূর্ণাঙ্গ বাজেট। অসুস্থ রাজ্যের অর্থমন্ত্রী। দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে বাজেট বক্তৃতা করা তাঁর পক্ষে সম্ভব নয়। তাই এবার বাজেট বক্তৃতা করবেন পরিষদীয় মন্ত্রী। বিধানসভা সূত্রে এমনটাই খবর মিলেছে। কিন্তু বিতর্ক দানা বেঁধেছে অন্য জায়গায়।[আরও পড়ুন: ‘পশ্চিমবঙ্গ ভাগ হবে না’, বিজেপির পার্টিলাইন স্পষ্ট করে দিলেন দিলীপ ঘোষ]নতুন সরকার গঠন হওয়ার পর রাজ্যপালের ভাষণ দিয়ে অধিবেশন শুরু হওয়াটাই রীতি। কিন্তু রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়ের সঙ্গে রাজ্য সরকার ও শাসকদলের সম্পর্ক তলানিতে ঠেকেছে। ‌ রাজ্যপাল বিধানসভায় এসে বক্তৃতা করুন চাইছে না শাসকদলের অধিকাংশ সদস্য। ভোটের ফল বেরোনোর পর একদিনের জন্য অধিবেশন হয়। সেখানে অধিবেশন সমাপ্তি ঘোষণা করেননি অধ্যক্ষ বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়। তাই রাজ্যপালের ভাষণ ছাড়াই বাজেট অধিবেশন হতে পারে বলে যুক্তি শাসক পক্ষের।তবে বিষয়টিকে ভালোভাবে নিচ্ছে না গেরুয়া শিবির। রাজ্যপালের বক্তৃতার উপর যে বিতর্ক হয় সেখানে বিরোধীরাও বক্তব্য রাখার সুযোগ পান। এক্ষেত্রে রাজ্যপালের ভাষণ না হলে বিরোধীরা সেই অধিকার থেকে বঞ্চিত হবে। বিষয়টি নিয়ে অধিবেশনে সরব হবে গেরুয়া শিবির।[আরও পড়ুন: কলকাতা মেট্রোয় চাকরির নামে প্রতারণার অভিযোগ, গ্রেপ্তার ৪ যুবক] Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপনিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে Follow।সব খবরের আপডেট পান সংবাদ প্রতিদিন-এLikeDownload

Source link

TMC files FIR against BJP’s Soumitra khan at Alipurduar PS

রাজকুমার, আলিপুরদুয়ার: উত্তরবঙ্গকে পৃথক রাজ্য করা হোক। এমন দাবি ওঠার পর জঙ্গলমহলেও একই দাবি উঠতে পারে। কারণ, উন্নয়ন থেকে বঞ্চিত রাঢ়বঙ্গও। সোমবার এহেন মন্তব্য করে নতুন করে বিতর্ক উসকে দিয়েছিলেন বিষ্ণুপুরের বিজেপি সাংসদ সৌমিত্র খাঁ (Soumitra Khan)। এই মন্তব্য আইনশৃঙ্খলার অবনতির পক্ষে যথেষ্ট উসকানিমূলক, এই অভিযোগ তুলে তাঁর বিরুদ্ধে এবার আলিপুরদুয়ার (Alipurduar) থানায় দায়ের হল অভিযোগ। মঙ্গলবার বেলার দিকে এফআইআর (FIR) দায়ের করেছেন আলিপুরদুয়ারের জেলা যুব তৃণমূল সভাপতি বাবলু কর। পাশাপাশি, উত্তরবঙ্গ’ভঙ্গে’র দাবি তোলা স্থানীয় সাংসদ জন বার্লার বিরুদ্ধেও তিনি এফআইআর করেছেন। এ নিয়ে রাজ্যের বিভিন্ন থানায় জন বার্লার বিরুদ্ধে মোট ৭টি অভিযোগ দায়ের হল।আলিপুরদুয়ারের যুব তৃণমূল (TMC) সভাপতি বাবুল করের বক্তব্য, ”আলিপুরদুয়ারের সাংসদ জন বার্লা (John Barla) এবং বিষ্ণুপুরের সাংসদ সৌমিত্র খাঁ নিজেরাই ক্রিমিনাল। এদের অবিলম্বে গ্রেপ্তার করা হোক। এমনকী যারা বাংলা ভাগকে সমর্থন জানাচ্ছেন বা ভাগ চেয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় নানা পোস্ট দিচ্ছেন, তারাও সমানভাবে আইনশৃঙ্খলা ভঙ্গ করছেন, সকলকে গ্রেপ্তার করতে হবে।” আলিপুরদুয়ার থানার আইসি এস প্রধান জানান, অভিযোগ গৃহীত হয়েছে। তদন্ত শুরু হবে এবং সেইমতো ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এদিন থানায় অভিযোগ দায়েরের পর উত্তরবঙ্গ ভাগের বিরোধিতা জানিয়ে যুব তৃণমূলের সদস্যরা থানার বাইরে বিক্ষোভও দেখান।[আরও পড়ুন: উত্তরবঙ্গে বইছে ‘ভাঙনে’র হাওয়া! বার্লার দাবির সমর্থনে সুর চড়ালেন ২ বিজেপি বিধায়ক]সোমবারই  উত্তরবঙ্গ নিয়ে জন বার্লার বঞ্চনার দাবিকে সমর্থন জানিয়ে সৌমিত্র খাঁ বলেছিলেন, ”রাঢ়বঙ্গও উন্নয়ন থেকে বঞ্চিত। এখানকার কোনও যুবকের চাকরি হয় না। এখানকার সম্পদ নিয়ে যাওয়া হয় অন্যত্র। কিন্তু উন্নয়নের লেশমাত্র নেই। এখন পুরুলিয়া, বাঁকুড়া, ঝাড়গ্রাম নিয়ে পৃথক রাজ্যের দাবি উঠতেই পারে।” তার পরিপ্রেক্ষিতেই এই অভিযোগ দায়ের হল তাঁর বিরুদ্ধে। পাশাপাশি, জন বার্লা এবং এই দাবির সপক্ষে সরব হওয়া সকলের বিরুদ্ধেই অভিযোগ জানিয়েছেন তৃণমূলের যুব সভাপতি বাবলু কর।[আরও পড়ুন: বন্যায় জল থইথই, শৌচকর্মের জায়গা নিয়ে চিন্তিত সুন্দরবনের বাসিন্দারা]অন্যদিকে, জন বার্লার বিরুদ্ধে ইতিমধ্যে দিনহাটা, আলিপুরদুয়ার, কোতোয়ালি থানা-সহ মোট ৭টি থানায় অভিযোগ দায়ের হয়েছে। বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ তাঁদের এই বক্তব্যের বিরোধিতা করলেও বিতর্ক এড়াতে তাঁর সাফাই, বঞ্চনা হয়েছে, তাই তার কথা বলছেন সকলে। একে ‘বঙ্গভঙ্গে’র দাবি  হিসেবে দেখা অনুচিত। Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপনিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে Follow।সব খবরের আপডেট পান সংবাদ প্রতিদিন-এLikeDownload

Source link

Bengali Novel by Amar Mitra deals with old people residing in a complex

না। আমি আর এগোই না। থাক এখানে, থাক। এরপর মাধব যদি আমাকে জিজ্ঞেস করে শান্তিনিকেতনে আমার কলিগের বাড়ি কোন পল্লিতে, বলতে পারব না। মাধব, নীলমাধব পাল খুব গোঁয়ার। মানে তার কথাই ধ্রুব সত্য, আর কারও কথা নয়। মানবেই না সে।  একদিন সুমিতাভ বলতে গিয়েছিলেন, তাজমহল, লাল কেল্লা, কুতুব মিনার, চারমিনার, গোলকোন্ডা ফোর্ট সব মুসলমানদের তৈরি, আর অজন্তা, ইলোরা, সাঁচী স্তুপ, নালন্দা, তক্ষশীলা সব বৌদ্ধদের তৈরি…। তাদেরও দান আছে এই ভারতে। নীলমাধব মানবে না। সে বলে, বৌদ্ধ ধর্ম আর হিন্দু ধর্ম এক। বৌদ্ধ ধর্ম হিন্দু ধর্মের এক শাখা। ওসব গুহা স্তূপ সব হিন্দু সংস্কৃতি। সুমিতাভ যদি বোঝাতে চান, হিন্দু একটি সংস্কৃতি যদি হয়, তবে ঠিক আছে। মাধব মাথা নাড়ে। অত কথার দরকার কী? ধর্ম,ধর্মই, সংস্কৃতি আবার কী?       আরও পড়ুন: সেবন্তী ঘোষের উপন্যাস: ছাড় বেদয়া পত্র: শেষ পর্ব সুমিতাভ কথা বাড়ান না। মাধবের সঙ্গে তর্ক করে লাভ কী? মাধব একদিন বলল: – মাসে মাসে ভাল একটি টাকা এক অনাথ আশ্রমে দান করি আমি। শুনে গুণেন সরকার হেসেছিল। – কোন অনাথ আশ্রম বলুক। মিথ্যে কথা। জুড়ান শুনলে হাসবে। নীলমাধব এমনি অনেক কথা বলে, যার কোনও বাস্তবতা নেইই মনে হয়। সে নাকি একটি ইস্কুলের মিড-ডে মিলের সব খরচ দেয়। সে নাকি প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে এক লক্ষ টাকা দিয়েছে। কিন্তু তার প্রমাণ চাইবে কে? কী দরকার যেচে ঝামেলা বয়ে নিয়ে আসা? বলেইছি তো নীলমাধব ঘুরে এসেছে, ব্যাঙ্কক-পাটায়া সমুদ্র সৈকতে, গোয়ার বালুকাবেলায়। সে ব্যাঙ্কক গিয়েছিল তার কর্পোরেশনের  সহকর্মীদের সঙ্গে। সেখানে কী দেখেছে, কী করেছে তার বিবরণ দিয়েছিল একদিন। সঞ্জয়বাবু জিজ্ঞেস করেছিলেন:   – কত খরচ হল?– লাখ দেড়েক।

Source link

Student who are not satisfied with assesment, when will be Madhyanik and H.S for them?

Published by: Tiyasha Sarkar |    Posted: June 22, 2021 8:26 pm|    Updated: June 22, 2021 8:26 pm

ছবি: প্রতীকী দীপঙ্কর মণ্ডল: মাধ্যমিক (Madhyamik Exam 2021) ও উচ্চ মাধ্যমিকের (Higher Secondary Exam 2021) মূল্যায়নে অসন্তুষ্ট ছাত্র-ছাত্রীদের পরীক্ষার দিন ঘোষণার দাবি উঠল। সিবিএসই (CBSE) ইতিমধ্যে জানিয়ে দিয়েছে ৩১ জুলাইয়ের মধ্যে তাঁরা ফল প্রকাশ করবে। কোনও পড়ুয়া সেই ফলে অসন্তুষ্ট হলে ১৫ আগস্ট থেকে ১৫ সেপ্টেম্বরের মধ্যে পরীক্ষায় বসতে পারবে। মঙ্গলবার প্রধান শিক্ষকদের একটি সংগঠন দাবি করেছে, সিবিএসই-র ধাঁচে মধ্যশিক্ষা পর্ষদ ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদ অসন্তুষ্ট পড়ুয়াদের জন্য পরীক্ষার দিন ঘোষণা করুক।মঙ্গলবার ‘অ্যাডভান্সড সোসাইটি ফর হেডমাস্টার্স অ্যান্ড হেডমিস্ট্রেস’-এর সাধারণ সম্পাদক চন্দন মাইতি বলেন, “সিবিএসই আগ্রহী ছাত্র-ছাত্রীদের পরীক্ষা সূচি ঘোষণা করতে চলেছে। আমাদের রাজ্যের আগ্রহী পরীক্ষার্থীরা দুশ্চিন্তা ও হতাশায় ভুগছে। কোভিড পরিস্থিতি স্বাভাবিক হচ্ছে। এমতাবস্থায় মধ্যশিক্ষা পর্ষদ এবং উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদকে অবিলম্বে পরীক্ষার সূচি ঘোষণা করতে হবে।” এ প্রসঙ্গে পর্ষদ এবং সংসদ কোনও মন্তব্য করতে রাজি হয়নি। মাধ্যমিকের মূল্যায়নে নবম শ্রেণির বার্ষিক পরীক্ষার নম্বর পাঠানো চলছে। তবে কীভাবে পাঠানো হবে, তা নিয়ে স্কুলগুলির মধ্যে এখনও সংশয় আছে। এর কারণ, এবার যাদের মাধ্যমিকে বসার কথা তাদের নবম শ্রেণির বার্ষিক পরীক্ষা হয়নি। তিনটি সামেটিভ পরীক্ষা হয়েছিল মোট ২০০ নম্বরের। তিনটে পরীক্ষার নম্বর যোগ করে ২ দিয়ে ভাগ করে গড় নম্বর পাঠানো চলছে। নবম শ্রেণীর এই গড় নম্বর অবিকৃত অবস্থায় পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছে পর্ষদ। নম্বরে কোনরকম পরিবর্তন করা যাবে না। অনেকে তিনটি, চারটি বা তার বেশি বিষয়ে ‘ডি’ পেয়ে দশম শ্রেণিতে উত্তীর্ণ হয়েছিল। পর্ষদের নির্দেশ, সেই অবস্থাতেই পাঠাতে হবে নম্বর।[আরও পড়ুন: ‘প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশেই সব হচ্ছে’, আলাপন ইস্যুতে কেন্দ্রকে তোপ তৃণমূলের]প্রধানশিক্ষকরা জানিয়েছেন, নবমে কেউ ফেল করলেও সমস্যা নেই। বিদ্যালয়ের অভ্যন্তরীণ মূল্যায়নের ১০ নম্বরের মধ্যে কেউ যদি ৫ পায়, তাহলেও সে মাধ্যমিকের মূল্যায়নে পাশ করবে। সিসি ও কম্পার্টমেন্টালদের ক্ষেত্রে নবম শ্রেণির ২০১৯  সালের ফল পাওয়া যাবে না। নির্দিষ্ট পড়ুয়া যে বছর নবম শ্রেণীর পরীক্ষায় পাস করেছিল সেই রেজাল্ট দিতে হবে। উল্লেখ্য, পর্ষদের পোর্টাল মাঝেমধ্যে কাজ করছে না। দ্রুত পোর্টাল ঠিক করে মার্কস আপলোডিং-এর সময়সীমা ৩০ সে জুন পর্যন্ত বাড়ানোর দাবি করেছে স্কুলগুলি। [আরও পড়ুন: IB অফিসার সেজে অপহরণ, ছক ফাঁস কয়েকদিনেই, উদ্ধার নদিয়ার অপহৃত ব্যবসায়ী] Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপনিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে Follow।সব খবরের আপডেট পান সংবাদ প্রতিদিন-এLikeDownload

Source link

50% cost of the bone-marrow transplant will be given through the Swasthyasathi card in Hooghly । Sangbad Pratidin

Published by: Paramita Paul |    Posted: June 22, 2021 5:13 pm|    Updated: June 22, 2021 5:59 pm
সারাবাংলা ডেস্ক: বাংলার মানুষের চিকিৎসার কথা মাথায় রেখে স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্প (Swasthya Sathi) এনেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এই প্রকল্পে রাজ্যের হাজার-হাজার মানুষের সুচিকিৎসার বন্দোবস্ত হয়েছে। এখন প্রায় বিনা খরচে কঠিন রোগের চিকিৎসা হচ্ছে রাজ্যবাসীর। এবার এক অনন্য নজির গড়তে চলেছে এই প্রকল্প। এক ক্যানসার রোগীর বোন ম্যারো (Bone-Marrow) প্রতিস্থাপনের অর্ধেক খরচ বহন করবে ‘স্বাস্থ্যসাথী’ প্রকল্প। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অধীনে থাকা রাজ্য স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ দপ্তরের তরফে টুইট করে এমনই জানানো হয়েছে। এমন উদ্যোগ রাজ্যে এই প্রথম। দপ্তর সূত্রে খবর, হুগলির উত্তরপাড়ার এক বাসিন্দা ব্লাড ক্যানসারে আক্রান্ত। চিকিৎসার স্বার্থে তাঁর বোন ম্যারো ট্রান্সপ্ল্যান্ট করা প্রয়োজন। যার জন্য খরচ হবে প্রায় ১০ লক্ষ টাকা। মধ্যবিত্ত পরিবারের পক্ষে এতগুলো টাকা জোগাড় করা বেশ কঠিন। এমন কঠিন পরিস্থিতিতে সেই পরিবারের পাশে দাঁড়াল রাজ্য সরকার।[আরও পড়ুন: বিজেপিতে যোগদানের প্রায়শ্চিত্ত! নেড়া হয়ে তৃণমূলে ফিরলেন আরামবাগের ৫০০ কর্মী]স্বাস্থ্যদপ্তর জানিয়েছে, বোন ম্যারো ট্রান্সফারের জন্য ৫ লক্ষ টাকা খরচ বহন করবে রাজ্য সরকারের স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্প। যা মোট খরচের ৫০ শতাংশ। যা এ রাজ্যে নজিরবিহীন। রাজ্য সরকার তথা মুখ্যমন্ত্রীর এই পদক্ষেপের প্রশংসা করছে আমজনতা।মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রীর অনুপ্রেরণায় ‘ স্বাস্থ্যসাথী ’ প্রকল্পের মাধ্যমে, রাজ্যের হুগলি জেলার উত্তরপাড়ায় ক্যান্সারে আক্রান্ত বাসিন্দার এই প্রথমবার বোন ম্যারো প্রতিস্থাপিত হতে চলেছে। মোট খরচের ৫০% ব্যায়ভার বহন করা হবে এই প্রকল্পের মাধ্যমে। pic.twitter.com/V27oN5Ds2c— Department of Health & Family Welfare, West Bengal (@wbdhfw) June 22, 2021মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের জনদরদী প্রকল্পের সুবিধা পেয়েছে এ রাজ্যের বাসিন্দারা। কখনও অভুক্তের বাড়িতে পৌঁছে গিয়েছে রেশন। আবার কখনও গরিব মানুষের চিকিৎসার ব্যবস্থা করেছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার। এবার এক ক্যানসার রোগীর বোন ম্যারো প্রতিস্থাপনের অর্ধেক খরচ বহনের ব্যবস্থা করে অনন্য নজির গড়ল রাজ্য সরকার।  [আরও পড়ুন: বকেয়া ফি, পড়ুয়াদের অনলাইন পরীক্ষায় বসতে দিল না স্কুল! ব্যাপক উত্তেজনা দুর্গাপুরে] Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপনিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে Follow।সব খবরের আপডেট পান সংবাদ প্রতিদিন-এLikeDownload

Source link

মহেশখালীতে খাবারের অপেক্ষায় থাকা শিশুটির নিথর দেহ মিলল পুকুরে

শাহীন মাহমুদ রাসেল, কক্সবাজার প্রতিনিধি: কক্সবাজারের মহেশখালীতে পুকুরে ডুবে মোহাম্মদ শাকিল (৬) নামের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার (২১ জুন) রাত সাড়ে ১০টার দিকে ধলঘাটা ..