Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: June 15, 2020 4:35 pm|    Updated: June 15, 2020 4:35 pm
রূপায়ণ গঙ্গোপাধ্যায়: লকডাউন পর্বে রাস্তায় নেমে প্রায় কোনও কর্মসূচিই করা যায়নি। আনলক ওয়ান শুরু হতেই আর সময় নষ্ট করেনি কোনও রাজনৈতিক দল। পিছিয়ে নেই বঙ্গ বিজেপিও। দলীয় কর্মীদের মিথ্যে মামলায় ফাঁসানো-সহ রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ তুলে আজ এন্টালিতে বিক্ষোভ কর্মসূচিতে নামে যুব মোর্চা। ডিসি অফিস ঘেরাও করতে গিয়ে পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হলেন যুব মোর্চার রাজ্য সভাপতি সৌমিত্র খাঁ। কর্মসূচিতে যোগ দিতে গিয়ে একই পরিস্থিতির মধ্যে পড়লেন রাজ্য বিজেপির সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসুও। এ নিয়ে তুমুল উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে ফুলবাগান চত্বরে।রাজ্যে বিজেপি কর্মীদের উপর হামলা চলছে, মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো হচ্ছে তাঁদের – এই ধরনের একাধিক অভিযোগ তুলে আজ এন্টালিতে কর্মসূচিতে নেমেছিল বিজেপি যুব মোর্চা। দুপুরে সংগঠনের রাজ্য সভাপতি সৌমিত্র খাঁ’র নেতৃত্বে ফুলবাগান থেকে মিছিল করে এন্টালিতে ডিসি অফিস ঘেরাওয়ের পরিকল্পনা ছিল তাঁদের। কিন্তু ফুলবাগান মোড়েই যুব মোর্চার সদস্যদের আটকে দেয় পুলিশ। পালটা প্রতিরোধ করেন মোর্চা সদস্যরা। তুমুল বিশৃঙ্খল পরিবেশ তৈরি হয় সেখানে। ফুলবাগান থেকে বিষ্ণুপুরের বিজেপি সাংসদ তথা যুব মোর্চার রাজ্য সভাপতি সৌমিত্র খাঁ’কে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।[আরও পড়ুন: শিশু খুনের কয়েক বছর আগে স্ত্রীকে হত্যা? বড়বাজার কাণ্ডে ধৃতের প্রতিবেশীদের বয়ানে রহস্য]এর প্রতিবাদে ফুলবাগান মোড়েই অবস্থান বিক্ষোভে বসেন যুব মোর্চার কর্মী, সদস্যরা। কিন্তু পুলিশ তাঁদের সেখান থেকেও উঠিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করে বলে অভিযোগ। দু পক্ষের মধ্যে কার্যত হাতাহাতি শুরু হয়। বিক্ষোভ অবস্থানে যোগ দিতে যান রাজ্য বিজেপির সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসু। অভিযোগ, তাঁকেও সেখান থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। সায়ন্তন বসু বলেন, ”চূড়ান্ত অগণতান্ত্রিক সরকার চলছে রাজ্যে। এসব মেনে নেওয়া যায় না। আমি বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে ফুলবাগান মোড়ে দেখা করতে গিয়েছিলাম। গাড়ি থেকে নামার পরই আমাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আর সৌমিত্র খাঁ’কে পুলিশ আগেই গ্রেপ্তার করেছে।” রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের একাংশের মতে, এভাবেই একুশের আগে নিজেদের রাজনৈতিক লড়াইয়ের জমি শক্ত করতে চাইছে বঙ্গ বিজেপি।

Source link

Comments

comments