হাইলাইটসকলকাতা হাইকোর্টের সেই নির্দেশ যে একেবারেই প্রাসঙ্গিক, তা আবারও বোঝা গেল এদিনের বাংলার করোনা রিপোর্টেও।বাংলায় করোনা আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা বর্তমানে যে হারে বাড়ছে, তাতে এখন থেকেই মারাত্মক বিপদের আশঙ্কা করছেন চিকিৎসকরা।মঙ্গলবারের (২০ অক্টোবর) বুলেটিন অনুযায়ী, নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৪০২৯ জন মানুষ। গতকালের চেয়েও যা বেশি এবং অতি অবশ্যই নতুন রেকর্ড।এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: করোনাকালে যাতে পুজোর চার দিনে ভিড় উপচে না-পড়ে, সেজন্য তৃতীয়ার দিন থেকে ভাগে ভাগে প্রতিমা দর্শনের পরামর্শ দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু তা একপ্রকার অসম্ভব বলে মনে হয়েছে কলকাতা হাইকোর্টের। আর সেই সূত্রেই সোমবার রায় দিয়ে, বাংলার দুর্গাপুজোর সব মণ্ডপকে কনটেইনমেন্ট জোন বলে চিহ্নিত করার নির্দেশ দিয়েছে কলকাতা হাইকোর্ট। অর্থাৎ এবারের বাঙালির সাধের দুর্গাপুজো হবে দর্শকহীন। কলকাতা হাইকোর্টের সেই নির্দেশ যে একেবারেই প্রাসঙ্গিক, তা আবারও বোঝা গেল এদিনের বাংলার করোনা রিপোর্টেও। আসলে পুজো যত এগিয়ে আসছে, ততই যেন বাংলায় থাবা চওড়া হচ্ছে করোনার। সম্প্রতি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও বলে দিয়েছেন, করোনার সংক্রমণ বাড়ছে। গোষ্ঠী সংক্রমণও হচ্ছে বিভিন্ন জায়গায়। বাংলায় করোনা আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা বর্তমানে যে হারে বাড়ছে, তাতে এখন থেকেই মারাত্মক বিপদের আশঙ্কা করছেন চিকিৎসকরা।এমনকী আদালতের নির্দেশ উপেক্ষা করেই পুজোর প্যান্ডেলে এখনও যথেষ্ট ভিড়ের দেখা মিলছে। আর এই সিদ্ধান্ত যে কতটা ‘আত্মঘাতী’ হওয়ার মতো, রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের শিহরণ জাগানো করোনা রিপোর্টই তার প্রমাণ দিচ্ছে। মঙ্গলবারের (২০ অক্টোবর) বুলেটিন অনুযায়ী, নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৪০২৯ জন মানুষ। গতকালের চেয়েও যা বেশি এবং অতি অবশ্যই নতুন রেকর্ড। এই প্রথম রাজ্যে একদিনে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা পেরোল ৪ হাজার। সেইসঙ্গে মৃত্যু হয়েছে নতুন করে আরও ৬১ জনের। তবে আশার আলো বলতে, রাজ্যে এখনও সুস্থতার হার ৮৭.৪৩ শতাংশ। কিন্তু সেই সুস্থতার হারও ধীরেধীরে কমছে। তবে, রাজ্যের সুস্থতার হার জাতীয় গড়ের তুলনায় এখনও পর্যন্ত বেশ কিছুটা বেশি। বাংলায় সুস্থতার হার নিয়ে গত সেপ্টেম্বর মাসেই সন্তোষ প্রকাশ করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। যদিও বাংলায় মৃত্যুর পরিসংখ্যান এখনও বিশেষজ্ঞদের মাথাব্যথার কারণ। এই মৃত্যু মিছিল রোধে প্রয়োজনীয় সমস্ত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য কেন্দ্রের তরফেও রাজ্যকে নির্দেশও দেওয়া হয়েছে।রাজ্যের স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ দফতরের সর্বশেষ রিপোর্ট অনুযায়ী, মঙ্গলবার পর্যন্ত বাংলায় অ্যাক্টিভ বা বর্তমান আক্রান্তের সংখ্যা মাত্র ৩৫ হাজার ১৭০ জন। এখনও পর্যন্ত গোটা রাজ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ২ লক্ষ ৮৭ হাজার ৭০৭ জন। এর মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা-মুক্ত হয়েছেন ৩ হাজার ৩৮২ জন। সুস্থতার হার বর্তমানে ৮৭.৪৩ শতাংশ।মারণ ভাইরাসের কামড়ে রাজ্যে এ পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ৬ হাজার ১৮০ জনের। এর মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গিয়েছেন ৬১ জন। শুধু কলকাতা এবং উত্তর ২৪ পরগনায় এই সংখ্যাটা ১৭ ও ১৩ জন করে। এছাড়া হাওড়া, হুগলি, দক্ষিণ ২৪ পরগনা, পশ্চিম মেদিনীপুর, বাঁকুড়া, বীরভূম, নদীয়া, মুর্শিদাবাদ, মালদা, উত্তর ও দক্ষিণ দিনাজপুর, জলপাইগুড়ি, দার্জিলিং ও কোচবিহার জেলা থেকে নতুন করে করোনা আক্রান্তদের মৃত্যুর খবর পাওয় গিয়েছে।আরও পড়ুন: তিন মাসের মধ্যে রেকর্ড সর্বনিম্ন নয়া সংক্রমণ! ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত মাত্র ৪৫,০০০অপরদিকে, সোমবারই ভারতে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৭৫ লক্ষের গণ্ডি ছাড়িয়ে গিয়েছে। কেন্দ্রের রিপোর্ট অনুযায়ী দেশে করোনায় আক্রান্ত ৭৫,৫০,২৭৩। এর মধ্যে অ্যাক্টিভ আক্রান্ত ৭,৭২,০৫৫। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৬৬,৬৩,৬০৮ জন। করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১,১৪,৬১০। এর মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত ৫৭৯ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে নতুন করে করোনা আক্রান্ত ৪৫ হাজার। বিগত ৯০ দিনের মধ্যে ভারতে এটাই সর্বনিম্ন কোভিড সংক্রমণ।এই সময় ডিজিটাল এখন টেলিগ্রামেও। সাবস্ক্রাইব করুন, থাকুন সবসময় আপডেটেড। জাস্ট এখানে ক্লিক করুন।

Source link

Comments

comments