হাইলাইটস ফলে, অ্যাক্টিভ আক্রান্ত কমলেও তা আশানুরূপ হারে কমছে না।আশার আলো এটাই যে, সংক্রমিতের থেকে দৈনিক সুস্থতার হার খানিকটা বেড়েছে শনিবার। এ নিয়ে রাজ্যে করোনার বলির সংখ্যা হল ৮ হাজার ৩২২ জন। এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: এখনও করোনাভাইরাসের ভয়াবহ রূপ থেকে বাঁচতে পারেনি বাংলা। নিয়মিত ভাবেই উদ্বেগ বাড়াচ্ছে করোনাভাইরাস। প্রতিদিনই প্রায় সাড়ে তিন হাজার করে মানুষ করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন। শুক্রবারই মৃতের সংখ্যা ৫০-এর নীচে নামলেও, শনিবার ফের করোনার গ্রাসে প্রাণ গিয়েছে ৫২ জনের। উদ্বেগের জায়গা হল, দৈনিক আক্রান্ত ও দৈনিক সুস্থতার মধ্যে ব্যবধান কমে আসছে। ফলে, অ্যাক্টিভ আক্রান্ত কমলেও তা আশানুরূপ হারে কমছে না।রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের শনিবারের প্রকাশিত বুলেটিন অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৩ হাজার ৪৫৯ জন। এ নিয়ে রাজ্যে মোট করোনা রোগীর সংখ্যা দাঁড়ল ৪ লক্ষ ৭৭ হাজার ৪৪৬ জনে। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা জয় করে বাড়ি ফিরে গিয়েছেন ৩ হাজার ৪৮৭ জন। আশার আলো এটাই যে, সংক্রমিতের থেকে দৈনিক সুস্থতার হার খানিকটা বেড়েছে শনিবার। রাজ্যে সুস্থতার হার বেড়ে হয়েছে ৯৩.১২ শতাংশ। তবে চিন্তায় রাখছে রাজ্যে করোনায় মৃতের সংখ্যা। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় মৃত্যু হয়েছে আরও ৫২ জনের। এ নিয়ে রাজ্যে করোনার বলির সংখ্যা হল ৮ হাজার ৩২২ জন। ২৮ নভেম্বর, ২০২০-তে রাজ্যে মোট ৪৫ হাজার ১৮৩ জনের করোনার নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এই মুহূর্তে রাজ্যে হোম কোয়ারানটিনে রয়েছেন ১০ লক্ষ ৪২ হাজার ৭৩৬ জন। সেফ হোমে রাখা হয়েছে ২০০ জনকে। গত ২৪ ঘণ্টায় মৃতদের মধ্যে কলকাতায় মারা গিয়েছেন সবচেয়ে বেশি ১৪ জন। এর পরেই উত্তর ২৪ পরগনায় মৃত্যু হয়েছে ৯ জনের। দক্ষিণ ২৪ পরগনায় মৃত্যু হয়েছে ৭ জনের। হুগলিতে মৃত্যু হয়েছে ৫ জনের। এছাড়াও জলপাইগুড়ি, আলিপুরদুয়ার, কোচবিহার, দার্জিলিং, উত্তর দিনাজপুর, বীরভূম, দুই মেদিনীপুর, বাঁকুড়াতেও মৃত্যু হয়েছে করোনা রোগীর।দৈনিক সংক্রমণের শীর্ষেও রয়েছে কলকাতা। গত ২৪ ঘণ্টায় কলকাতায় নতুন করে করোনা রোগী সংক্রমিত হয়েছেন ৮৯০ জন। এর পরেই রয়েছে উত্তর ২৪ পরগনা, যেখানে ৮৬৩ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছে। আরও পড়ুন: দৈনিক সংক্রমণের সঙ্গেই রাজ্যে কমল অ্যাক্টিভ আক্রান্তএই সময় ডিজিটাল এখন টেলিগ্রামেও। সাবস্ক্রাইব করুন, থাকুন সবসময় আপডেটেড। জাস্ট এখানে ক্লিক করুন।

Source link

Comments

comments