হাইলাইটসবুধবারের (২৮ অক্টোবর) বুলেটিন অনুযায়ী, নতুন করে বাংলায় করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৩৯২৪ জন মানুষ। বুধবার পর্যন্ত বাংলায় অ্যাক্টিভ বা বর্তমান আক্রান্তের সংখ্যা মাত্র ৩৭ হাজার ১১১ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা-মুক্ত হয়েছেন ৩ হাজার ৯২৫ জন। সুস্থতার হার বর্তমানে ৮৭.৯০ শতাংশ।এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: যতটা আশঙ্কা করা হয়েছিল, এখনও পর্যন্ত ততটা নয়। বলা হচ্ছে রাজ্যের করোনা সংক্রমণ নিয়ে। অনেক বিশেষজ্ঞই ভেবেছিলেন, পুজো মিটতেই ব্যাপক হারে সংক্রমণ বৃদ্ধি পাবে গোটা বাংলাজুড়ে। অনেকেই তুলে এনেছিলেন কেরালার ওনাম-পরবর্তী ফলাফলের কথা। দুর্গাপুজো নিয়ে মামলা দায়ের হয়েছিল কলকাতা হাইকোর্টেও। আর সেই সূত্রেই বাংলার দুর্গাপুজোর সব মণ্ডপকে কনটেইনমেন্ট জোন বলে চিহ্নিত করার নির্দেশ দিয়েছিল কলকাতা হাইকোর্ট। অর্থাৎ এবারের বাঙালির সাধের দুর্গাপুজো হল সে অর্থে দর্শকহীন মণ্ডপে। হাইকোর্টের সেই নির্দেশ দেওয়া আর নির্দেশ মানা যে কতটা প্রাসঙ্গিক ছিল, বোঝা যাচ্ছে পুজোর পরই। পুজোর আগে থেকেই বাংলায় থাবা চওড়া হচ্ছিল করোনার। কিছুদিন আগেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও বলে দিয়েছিলেন, করোনার সংক্রমণ বাড়ছে। গোষ্ঠী সংক্রমণও হচ্ছে বিভিন্ন জায়গায়। এরপরই পুজোর দিন কয়েক আগে থেকেই বাংলায় দৈনিক করোনা সংক্রমণ ছাড়িয়ে যাচ্ছিল চার হাজার। মৃত্যুর সংখ্যাও বাড়ছিল। কিন্তু পুজোতে বাঙালি কিছুটা সাবধানী হয়ে চলায় পরপর দুদিন কমল দৈনিক সংক্রমণ ও মৃত্যু। যা অত্যন্ত ইতিবাচক বলেই মানছেন বিশেষজ্ঞরা।যদিও আদালতের নির্দেশ উপেক্ষা করেই বিভিন্ন পুজো প্যান্ডেলে যথেষ্ট ভিড়ের দেখা মিলছিল পুজোর শুরুর দিকে। যদিও অন্যান্য বারের তুলনায় সেই ভিড় ছিল অনেকটাই কম। পথে নেমে এবারও প্যান্ডেল হপিংয়ের সিদ্ধান্ত যে কতটা ‘আত্মঘাতী’ হত, রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের শিহরণ জাগানো প্রতিদিনের করোনা রিপোর্টই তার প্রমাণ দিচ্ছিল। অবশেষে সাবধানী ভূমিকায় অবতীর্ণ হওয়ায় প্রায় সপ্তাহখানেক পরপর দুদিন চার হাজারের নীচে নামল বাংলার দৈনিক সংক্রমণ। বুধবারের (২৮ অক্টোবর) বুলেটিন অনুযায়ী, নতুন করে বাংলায় করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৩৯২৪ জন মানুষ। গতকালের চেয়ে যা কিছুটা হলেও কম। সেইসঙ্গে তুলনামূলকভাবে কমছে মৃত্যুর সংখ্যাও। নতুন করে বাংলায় করোনায় মৃত্যু হয়েছে আরও ৬০ জনের। তবে আশার আলো বলতে, রাজ্যে এখনও সুস্থতার হার ৮৭.৯০ শতাংশ। এই সুস্থতার হারও ধীরেধীরে কমছিল, আবার তা বাড়তে শুরু করল বাংলায়। যদিও বাংলায় সংক্রমণ ও মৃত্যুর পরিসংখ্যান এখনও বিশেষজ্ঞদের মাথাব্যথার কারণ। কেন্দ্রীয় সরকারও এ কথা স্পষ্ট করে দিয়েছে। এ রাজ্যের জন্যে নতুন গাইডলাইন্সও প্রকাশ করা হতে পারে বলে মনে করছেন অনেকেই। এই মৃত্যু মিছিল রোধে প্রয়োজনীয় সমস্ত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য কেন্দ্রের তরফেও রাজ্যকে নির্দেশও দেওয়া হয়েছে।আরও পড়ুন: স্কুল খোলার ভাবনার মাঝেই ICMR-এর ভয়ংকর দাবি, শিশুরাই করোনার সুপার স্প্রেডার!রাজ্যের স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ দফতরের সর্বশেষ রিপোর্ট অনুযায়ী, বুধবার পর্যন্ত বাংলায় অ্যাক্টিভ বা বর্তমান আক্রান্তের সংখ্যা মাত্র ৩৭ হাজার ১১১ জন। এখনও পর্যন্ত গোটা রাজ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৩ লক্ষ ১৭ হাজার ৯২৮ জন। এর মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা-মুক্ত হয়েছেন ৩ হাজার ৯২৫ জন। সুস্থতার হার বর্তমানে ৮৭.৯০ শতাংশ।মারণ ভাইরাসের কামড়ে রাজ্যে এ পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ৬ হাজার ৬৬৪ জনের। এর মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গিয়েছেন ৬০ জন। শুধু কলকাতা এবং উত্তর ২৪ পরগনায় এই সংখ্যাটা ১৮ ও ১৯ জন করে। এছাড়া হাওড়া, হুগলি, দক্ষিণ ২৪ পরগনা, পূর্ব ও পশ্চিম মেদিনীপুর, পশ্চিম বর্ধমান, বাঁকুড়া, বীরভূম, নদীয়া, মুর্শিদাবাদ, মালদা, দক্ষিণ দিনাজপুর ও দার্জিলিং জেলা থেকে নতুন করে করোনা আক্রান্তদের মৃত্যুর খবর পাওয় গিয়েছে।এই সময় ডিজিটাল এখন টেলিগ্রামেও। সাবস্ক্রাইব করুন, থাকুন সবসময় আপডেটেড। জাস্ট এখানে ক্লিক করুন।

Source link

Comments

comments