হাইলাইটসযাবতীয় নিয়ম তুড়ি মেরে উড়িয়ে দিয়েই লোকজন ভিড় জমাচ্ছেন শপিংয়ে। নিয়ম বিধির কোনও তোয়াক্কাই নেই। আর যার ফলে সিঁদুরে মেঘ দেখছেন বিশেষজ্ঞরা। কারণ পরিস্থিতি যেভাবে এগোচ্ছে এতে এরপর আর সামাল দেওয়া সম্ভব নয়এই সময় জীবনযাপন ডেস্ক: পুজো নিয়ে প্রত্যেকের মনেই অন্যরকম আবেগ রয়েছে। যদিও এখন পরিস্থিতি অন্যরকম। লাফিয়ে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। কিন্তু কেনাকাটায় কোনওরকম কোনও খামতি নেই। যাবতীয় নিয়ম তুড়ি মেরে উড়িয়ে দিয়েই লোকজন ভিড় জমাচ্ছেন শপিংয়ে। নিয়ম বিধির কোনও তোয়াক্কাই নেই। আর যার ফলে সিঁদুরে মেঘ দেখছেন বিশেষজ্ঞরা। কারণ পরিস্থিতি যেভাবে এগোচ্ছে এতে এরপর আর সামাল দেওয়া সম্ভব নয়। আর তাই বাড়ির বাইরে বেরোলে মেনে চলুন কিছু নিয়ম। বেরোতে না পারলে সবচেয়ে ভালো। একবছর শপিং কিংবা ঠাকুর দেখা না হলে কোনও অসুবিধেই হবে না। একটা বছর প্যান্ডেল হপিং কিংবা অঞ্জলি না দিলে বরং সুস্থ থাকলে পরের বছর পুজোয় আনন্দ করতে পারবেন। পুজোর আগে শেষ রবিবার। কিছু একটা কিনতে হবে বলেই অনেকেই ভিড় জমিয়েছেন নিউমার্কেট থেকে গড়িয়াহাট। তবে বাড়ি থেকে বেরনোর আগে মাথায় রাখুন সব নিয়ম মেনে না চললে যে কোনও মুহূর্তে সংক্রমিত হতে পারেন। তাই নিজেও সাবধানে থাকুন, বাড়ির বাকি সদস্যদেরও নিরাপদে রাখার চেষ্টা করুন। দেখে নিন বাড়ি থেকে বেরোতে হলে যা যা মাথায় রাখবেনমাস্ক এবং স্যানিটাইজার অবশ্যই সঙ্গে রাখুন। সবসময় মুখে মাস্ক রাখবেন। খুলবেন না। এছাড়াও দোকান থেকে কিছু কিনে বেরিয়ে সঙ্গে সঙ্গে হাতে স্যানিটাইজার দিন। ব্যাগে স্যানিটাইজার স্প্রে করুন। ব্যাগে সবসময় একটা অতিরিক্ত মাস্ক রাখুন। স্যানিটাইজার দিয়ে একবার হাত ধুয়ে আবার তা পকেটে রেখে অন্য কোনও খাবার খেতে শুরু করলেন, এমনটা করবেন না। এতে হিতে বিপরীত হবে। হাত ভালো করে ধয়ে নিয়ে তবেই মখে হাত দেবেন। নইলে স্যানিটাইজার লাগালেও বিশেষ কোনও লাভ হবে না। ব্যাগে অবশ্যই রাখুন স্যানিটাইজার রাস্তায় বেরোলে ফেস শিল্ড, মাস্ক অবশ্যই ব্যবহার করুন। আর রাস্তার কোনও খাবার একদমই না। সম্ভব হলে প্যাকেট ফুড খান। এছাড়াও একে অপরের সঙ্গে খাবার শেয়ার করে খাবেন না। অনেকক্ষণ মুখে মাস্ক পরে হাঁটা যায় না। এতে শ্বাসযন্ত্রের সমস্যা হতে পারে। চাপ পড়ে ফুসফুসে। সেখান থেকে মাথা ঘোরা কিংনা অন্যরকম অসুবিধে হতে পারে। তাই মাস্ক পরেও ঠাকুর দেখতে যাওয়ার কথা মাথাতেও আনবেন না। মুখে থাকুক মাস্ক রাস্তায় থুতু ফেলবেন না। আপনার অজ্ঞতা যেন অন্য কারোর বিপদ ডেকে না আনে সেদিকে অবশ্যই খেয়াল রাখুন। আর মাস্ক পরলে ঘাম হয়। তাছাড়া এখন যে গরম চলছে তাতে ঘাম বেশি হচ্ছে। একটুতেই শরীর দুর্বল লাগা স্বাভাবিক। তাই ব্যাগে জল, নুন- চিনির জল অবশ্যই সঙ্গে রাখুন। রিকশাতে বা টোটোতে চাপলেও হাতে স্যানিটাইজার স্প্রে করে নিন। পারলে বসার আগেও স্প্রে করে নিন। আরও পড়ুনসিজন চেঞ্জে গলাব্যথা? সমাধান এই ঘরোয়া টোটকায়পুজো মানেই জমিয়ে আড্ডা আর খাওয়াদাওয়া। এবারে আড্ডা না হয় বাড়িতেই হোক। সেই ভাবেই প্ল্যান করে নিন। সবাই মাস্ক পুরন। সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলুন। পুজোতে অবশ্যই খাবেন। কিন্তু এড়িয়ে চলুন ভোগ। আর বাড়িতে ডিসপোজেবল প্লেট, চামচ, বাটি ব্যবহার করুন। খাওয়ার আগে ও পরে ভালো করে স্যানিটাইজ করুন। এছাড়াও বাইরের খাবার আসলে তা ভালো করে স্যানিটাইজ করে তবেই খান। পারলে আরও একবার গরম করে নিন। প্লাস্টিকের বদলে শালপাতা ব্যবহার করুন। পরিবেশ বান্ধব এবং ব্যাবহার করাও সহজ। আর প্লাস্টিকের উপর ভাইরাস অনেকক্ষণ পর্যন্ত বেঁচে থাকতে পারে। বাড়ির বাইরে টয়লেট ব্যবহার করতে হলে সতর্ক থাকুন। স্প্রে করে তবেই ব্যবহার করুন। টয়লেট স্প্রেও সঙ্গে রাখুন। বাইরে থেকে বাড়ি ফিরলে আগে ভালো করে পোষাক কাচুন। বাইরে থেকে এসে সোজা বাথরুমে যান। এরপর কাচা পোশাক পরুন। হাঁচি, কাশি এসব থাকলে একদম বাড়ির বাইরে বেরোবেন না। মাস্ক সব সময় সঠিক ভাবে ডিসপোজ করুন। গ্লাভস ব্যবহার করলে তার সঠিক ব্যবহার করুন। নিজে সুস্থ থাকুন। অপরকেও সুস্থ রাখুন। এটা কিন্তু আপনার সামাজিক কর্তব্য। এই সময় ডিজিটালের লাইফস্টাইল সংক্রান্ত সব আপডেট এখন টেলিগ্রামে। সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন এখানে।

Source link

Comments

comments