covid-19: ভালো ঘুম হলেই এড়ানো যাবে করোনা সংক্রমণ? জানুন কী বলছেন বিশেষজ্ঞরা – can good sleep help save you from coronavirus, what doctors have to say

হাইলাইটসবিশেষজ্ঞরা সবসময় বলেন নিয়মিত ৭ থেকে ৮ ঘন্টা ঘুম খুবই জরুরি। কারণ এই ঘুম ভালো হলে তবেই শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি হয়। কারণ ঘুমের সঙ্গে নিবিড় যোগ রয়েছে শরীর সুস্থ থাকার এই সময় জীবনযাপন ডেস্ক: শরীর সুস্থ রাখতে পর্যাপ্ত ঘুম খুবই জরুরি। কারণ ঘুম ভালো না হলে মস্তিষ্ক ঠিকভাবে কাজ করতে পারে না। ফলে তখন অন্যান্য কাজও ঠিকঠাক ভাবে হয় না। বিশেষজ্ঞরা সবসময় বলেন নিয়মিত ৭ থেকে ৮ ঘন্টা ঘুম খুবই জরুরি। কারণ এই ঘুম ভালো হলে তবেই শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি হয়। কারণ ঘুমের সঙ্গে নিবিড় যোগ রয়েছে এই রোগ-প্রতিরোধ ক্ষমতার। তবে চিকিৎসকরা বলছেন যদি ঘুম পর্যাপ্ত হয় সেক্ষেত্রে করোনার সম্ভাবনা অনেককআনি কমে যায়। কারণ ভাইরাসের সংক্রমণে প্রধান হল রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা। শরীরে এই রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা যত ভালো হবে তত বেশি লড়াই করা যাবে রোগের সঙ্গে। ঘুম ও ইমিউনিটির সঙ্গে যোগ কোথায়? তীর্থঙ্কর মহাবীর মেডিক্যাল কলেজের চিকিৎসক হারিয়া ও ডা. গুপ্তের কথায়, ঘুম মানেই বিলাসিতা নয়, ঘুম দেহের সর্বোচ্চ দৈহিক চাহিদা মেটায়। ঘুমের মধ্য়ে সাইোটক্সিক নির্গত হয়। যা শরীরে সংক্রমণ প্রতিরোধে সাহায্য করে। আর এর ফলেই আমাদের দেহে সাইটোকাইন উৎপন্ন হয়, যা আমাদের উদ্বেগ নিয়ন্ত্রণ করে। যার ফলে ঘুম ভালো হয়। আর তাই চিকিৎসক নায়ার বলেছেন, ঘুমের সঙ্গে কখনও আপোষ করবেন না। প্রতিদিন টানা ৭ থেকে ৮ ঘন্টা ঘুমোন। এর ফলে দেহে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি হবে। আর মস্তিষ্কের কার্যকলাপও ঠিক থাকে। এছাড়াও ঘুমের মধ্যো সাইটোকাইন তৈরি হয়। যা আমাদের স্ট্রেস, অ্যাংজাইটি এসব কম রাখে। তবে চিকিৎসকরা এটাও বলছেন অতিরিক্ত মানসিক চাপ, ঘুম না হওয়া, এগুলো কিন্তু করোনার লক্ষণ। আপনি কোনও কিছু নিয়ে উত্তেজিত থাকলে, ঘুম না হলে তার ফলে ইমিউনিটি ক্ষমতা কমে যায়। যার ফলে করোনার সংক্রমণ হতে পারে। ঘুমোলে আমাদের শরীর থেকে যে টক্সিন নির্গত হয়, যার ফলে শীর ও মন অনেক রিল্যাক্স থাকে। যাঁরা দিনে ৫ ঘন্টার কম ঘুমোন তাঁদের কি করোনা হওয়ার সম্ভাবনা বেশি? চিকিৎসকদের মতে ঘুমোলে আমাদের দেহে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে। ফলে সংক্রমণ খুব তাড়াতাড়ি হয় না। কিন্তু ঘুমের সমস্যা হলেই অন্যান্য নানা রোগ এসে জুটে যায়। কিন্তু সংক্রমণ যে কোনও ভাবেই আসতে পারে। বিশেষত যাঁদের অন্যরকম সমস্যা রয়েছে সুগার, প্রেসার, হাইপার টেনশন ইত্যাদি আছে তাঁরা খুব সহজেই সংক্রমিত হতে পারেন। এছাড়াও যাঁরা প্রতিদিন বাইরে বেরোচ্ছেন অথচ কোনও নিয়ম মানছেন না, তাঁদের ক্ষেত্রেও হতে পারে। কোনও ভাবে আপনি যদি সংক্রমিত ব্যক্তির সংস্পর্শে আসেন তাহলে আপনিও এই ভাইরাসে আক্রান্ত হতে পারেন। তবে এসবের পরও সবসময় ভালো করে হাত ধুতে হবে, মাস্ক পরতে হবে। এই সব নিয়ম অবশ্যই মেনে চলুন সব সময়। যেহেতু ঘুম কম হলে অন্যান্য নানা সমস্যা যেমন মেজাজ বিগড়ে যাওয়া, ঠান্ডা লাগা অন্যান্য শারীরিক অসুস্থতা আসে তাই সব বয়সের সকলের ক্ষেত্রেই ঘুম ভালো হওয়া খুব দরকার। আরও পড়ুনসিজন চেঞ্জে গলাব্যথা? সমাধান এই ঘরোয়া টোটকায়তবে খুব বেশি ঘুমও কিন্তু ভালো নয়। রিসার্চ বলছে বেশি ঘুমোলে ওবেসিটি, ডায়াবিটিস, মাথাব্যথা ইত্যাদির মতো শারীরিক সমস্যা খুব সহজেই এসে যায়। আর বেশি ঘুমোলে তার ফলে শরীরের মেটাবলিজম ঠিক মতো হয় না। শরীর বিগড়ে যেতে পারে। আসতে পারে থাইরয়েডের মতো সমস্যাও। এছাড়াও হার্টের নানা ব্যাধি, ডিপ্রেশন এসব হতেই পারে। এমনকী স্মৃতিশক্তিভ্রম হতে পারে। যাঁরা বেশি ঘুমোন তাই তাঁদের ক্ষেত্রে পথ দুর্ঘটনার সম্ভাবনা থাকে অনেক বেশি। শরীর ভালো রাখতে যে ঘুমের প্রয়োজন একথা সবাই জানেন। সুস্থ থাকতে হলে আমাদের কাজ করতে হবে। সেই সঙ্গে সঠিক আহার করতে হবে। আর শরীর সহায়ক বলেই যে শরীরের উপর টানা অত্যাচার চালিয়ে যাব, বছরের পর বছর ধরে পাঁচ ঘন্টার কম ঘুমবো এরকমটা করবেন না। এতে হিতে বিপরীত হবে। করোনা ছাড়াও হতে পারে অন্য কোনও ব্যাধি। আর তাই ওষুধে নন, প্রাকৃতিক ভাবেই গড়ে তুলুন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা। এই সময় ডিজিটালের লাইফস্টাইল সংক্রান্ত সব আপডেট এখন টেলিগ্রামে। সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন এখানে।

Source link

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *