হাইলাইটসছাত্রছাত্রীরা শিক্ষক শিক্ষিকাদের সঙ্গে কলকাতা ও শহরতলির পুজোমন্ডপ ঘুরে নির্বাচন করে সেরা পুজো, সেরা মন্ডপ ও আলোক সজ্জা।পুজোর আনন্দ যাতে মাটি না হয়, স্কুলের ছাত্র-ছাত্রী সহ সবাইকে বিনোদনের একটা সুযোগ করে দিতে এবছর অ্যাপের মাধ্যমে পূজোর অনুষ্ঠান করা হচ্ছে।এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: করোনার আতঙ্কে জনজীবন যখন বেহাল পরিস্থিতির সম্মুখীন তখনই ঢাকের সুরে হঠাৎই জীবন নতুন ছন্দে আগমনীর গান গেয়ে ওঠে। কিন্তু বিগত বছরের মতো নয়, এবছর পুজোর আনন্দ কিছুটা হলেও রং হীন। এই রং হীন আনন্দকে রঙিন করে তুলবে নব নালন্দা গ্রুপ অফ স্কুলের ছাত্রছাত্রী ও শিক্ষক শিক্ষিকারা। বিগত পাঁচ বছর ধরে পঞ্চম থেকে দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রছাত্রীদের নিয়ে স্কুল কতৃপক্ষ আয়োজন করে চলেছে “আমাদের চোখে সেরা দুগ্গাপুজো”। ছাত্রছাত্রীরা শিক্ষক শিক্ষিকাদের সঙ্গে কলকাতা ও শহরতলির পুজোমন্ডপ ঘুরে নির্বাচন করে সেরা পুজো, সেরা মন্ডপ ও আলোক সজ্জা। কিন্তু বিগত বছরের মতো এই বছরেও পুজো পরিক্রমা কিভাবেই বা সম্ভব, তারই পরিকল্পনা তুলে ধরলেন স্কুল প্রিন্সিপাল অরিজিৎ মিত্র এবং প্রাক্তন ছাত্র অর্ক ব্যানার্জী। এ বছরের সমস্ত পুজো পরিক্রমা দেখা যাবে ‘নব রবি কিরণ’ এই অ্যাপের মাধ্যমে। ১৯ অক্টোবর, সোমবার নব নালন্দা স্কুল কেম্পাসে এই অ্যাপের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন মেয়র পারিষদ দেবাশিস কুমার। ঐশিক দে নব নালন্দা স্কুলের নার্সারি টু এর ছাত্র। এই ক্ষুদে শিল্পী ঢাক বাজিয়ে এদিন অনুষ্ঠানের শুভ সূচনা করে। দেবাশিস কুমার বলেন, ‘শিক্ষার সঙ্গে সংস্কৃতির একটা সুন্দর মেলবন্ধন ঘটিয়েছে নব নালন্দা স্কুল। এই অতিমারির সময় দুর্গাপুজো হবে কি হবে না সে নিয়ে একটা অনিশ্চয়তা ছিল। কিন্তু আমরা উদ্যোক্তারা বলছি এবার পুজোর দিন গুলোতে দয়া করে আপনারা মণ্ডপে আসবেন না। সামাজিক দূরত্ব নয় কিন্তু শারীরিক দূরত্বটা পালন করুন। শারীরিক দূরত্ব মেনেই উৎসবে শামিল হতে হবে। কলকাতা হাইকোর্টের রায় ঘোষণার পরে মানুষের পূজো মণ্ডপে যাওয়াটাও নিয়ন্ত্রণের মধ্যে চলে এসেছে। যখন করোনা আতঙ্কে মানুষ প্রায় গৃহবন্দি সেসময় এই অ্যাপের মাধ্যমে পুজো দেখার সুযোগ করে দেওয়া নব নালন্দার একটা সাহসী এবং ব্যতিক্রমী পদক্ষেপ। এই উদ্যোগকে আমি শুভেচ্ছা জানাই’। নব নালন্দা স্কুলের প্রিন্সিপাল বলেন, বাঙালির সেরা পূজা দুর্গাপূজা কিন্তু এবছরটা একেবারেই অন্যরকম। পুজোর আনন্দ যাতে মাটি না হয়, স্কুলের ছাত্র-ছাত্রী সহ সবাইকে বিনোদনের একটা সুযোগ করে দিতে এবছর অ্যাপের মাধ্যমে পূজোর অনুষ্ঠান করা হচ্ছে। আর এই অ্যাপের মাধ্যমে সেরা দুর্গাপূজা দেখা যাবে। প্রতিবছর একটা পুজোর থিম সং করা হয়। যেখানে স্কুলের ছাত্র-ছাত্রী সহ অতিথি শিল্পীরাও অংশগ্রহণ করেন। অন্যবারের মতো এবারও এই সংগীতায়োজনের দায়িত্বে রয়েছেন জয় সরকার। এবছর নব নালন্দা স্কুলের ছাত্রছাত্রীরা ভার্চুয়াল দুর্গাপুজোর সাক্ষী থাকবে। সপ্তমীতে পূজোর থিম সং প্রকাশ পাবে। এই অ্যাপ যে কেউ ডাউনলোড করতে পারেন। যার মাধ্যমে অঞ্জলি, সন্ধ্যারতি, পুজোর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান সহ পুজোর লাইভ বিসর্জনের অনুষ্ঠানও দেখতে পাওয়া যাবে। এই প্রজন্মের নানান খ্যাতিমান শিল্পী ইমন চক্রবর্তী, জয় সরকার থেকে শুরু করে নতুন প্রজন্মের জনপ্রিয় শিল্পীদের গানও শুনতে পাওয়া যাবে অ্যাপের মাধ্যমে। আরও পড়ুন: ভোট কমলেও বিহারের কুর্সিতে সেই নীতীশ-বিজেপি জোট! আভাস ওপিনিয়ন পোলেএই অ্যাপের মাধ্যমেই ছাত্রছাত্রীরা নিজেদের ভোটের মধ্যে দিয়ে পুজোগুলিকে নির্বাচিত করতে পারবে। অষ্টমী, সন্ধ্যা আরতী, সন্ধিপুজো, নবমীর ধুনুচি নাচ, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, বসবে পুজোর আড্ডাও। সমস্ত পুজো পরিক্রমা শেষ করে সপ্তমীতে ঘোষণা করা হবে ফলাফল। পরবর্তীকালে এই অ্যপের মাধ্যমেই স্কুলের নানা নান্দনিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে। এই সমস্ত পরিকল্পনা রূপায়ণে সহযোগিতা করেছে স্কুলেরই প্রাক্তন ছাত্র অর্ক ব্যানার্জী ও তার সংস্থা ‘অ্যারোবিট’। সত্যি বলতে কি প্রতি বছরের মতো এ বছরেও ছাত্রছাত্রীদের চোখধাঁধানো সাফল্যই বলে দেয় অতিমারির বিপর্যয়ের মধ্যেও নব নালন্দা শিক্ষা ও সংস্কৃতিক্ষেত্রে তার ঐতিহ্য ধরে রাখতে সর্বতোভাবে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।এই সময় ডিজিটাল এখন টেলিগ্রামেও। সাবস্ক্রাইব করুন, থাকুন সবসময় আপডেটেড। জাস্ট এখানে ক্লিক করুন।

Source link

Comments

comments