extra marital affairs: ৪৮% ভারতীয় মহিলা বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কে লিপ্ত! – shocking survey says, married indian women are finding love outside of their marriage

হাইলাইটসবর্তমানে মহিলাদের মধ্যে অর্থনৈতিক স্বাধীনতা এসেছে। ফলে আত্মবিশ্বাসও বেড়েছে। স্বামীর পরকীয়া বুঝতে পেরেও মুখ বুঝে সহ্য করার মানসিকতা আর নেইএই সময় জীবনযাপন ডেস্ক: আন্তর্জাতিক এক সংবাদমাধ্যমের শিরোনাম পড়ে চমকে উঠেছিল রাধিকা। পরকীয়ার প্রতি নাকি ভারতীয় মহিলাদের আগ্রহ বাড়ছে দ্রুত হারে! সর্বনাশ। এসব খবর কি তাহলে এবার নিউজ পোর্টালেও বের হতে শুরু করেছে।পরকীয়ার মতো পরকীয়া সংক্রান্ত খবর পড়তেও দারুণ লাগে রাধিকার। ৩৭ বছরের রাধিকা ডেটিং অ্যাপের মাধ্যমে সম্পর্কে লিপ্ত। প্রথমে ভার্চুয়াল সম্পর্ক হলেও পরে তা বাস্তবে পরিণত হয়। সঙ্গীটি রাধিকার থেকে ১০ বছরের ছোটো। প্রায় ২ বছর ধরে চলছে তাদের সম্পর্ক। ব্যবসা আর টাকা নিয়ে ব্যস্ত রাধিকার স্বামী বেশিরভাগ সময় বাইরে থাকেন। রাধিকাকে সময় দেওয়ার মতো ‘সময়’ তাঁর হাতে নেই। অগত্যা ডেটিং অ্যাপের সাহায্যে বন্ধু বানাতে থাকে। অবশেষে বর্তমান সঙ্গীর সঙ্গে পরিচয় হয়। তার সঙ্গে মানসিক এবং যৌনতৃপ্তি রাধিকার একাকীত্ব ঘুচিয়েছে। সঙ্গীও বয়সে বড় বান্ধবীকে নিয়ে সুখী।প্রতিবেদন পড়তে পড়তে রাধিকার মনে হচ্ছিল নিজের জীবনের কথাই পড়ছে সে। আসলে ফ্রান্সের এক বিখ্যাত ডেটিং অ্যাপ সংস্থার সাম্প্রতিক সমীক্ষা বলছে ৩০ থেকে ৬০ বছর পর্যন্ত প্রায় ৪৮ শতাংশ ভারতীয় মহিলাই বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কে লিপ্ত। আর এক্ষেত্রেও পুরুষের মতো ঘরে-বাইরে সমান তালেই সামলাচ্ছেন তাঁরা।মাত্র দুবছরে প্রায় ১৩ লক্ষ ভারতীয় মহিলা পরকীয়ায় মজেছেন সমীক্ষা বলছে গত মাত্র দুই বছরে অন্তত ১৩ লাখ ভারতীয় মহিলা ডেটিং অ্যাপ-এর সাহায্যে নতুন সম্পর্ক তৈরি করেছেন।মনোবিদদের মতে, বর্তমানে মহিলাদের মধ্যে অর্থনৈতিক স্বাধীনতা এসেছে। ফলে আত্মবিশ্বাসও বেড়েছে। স্বামীর পরকীয়া বুঝতে পেরেও মুখ বুঝে সহ্য করার মানসিকতা আর নেই। সমাজ কিংবা পরিবারের কারণে বিয়ে টিকিয়ে রাখার বাধ্যতা থাকলেও, বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্ক চুটিয়ে উপভোগ করছেন তাঁরা। পুরুষের মতো তাঁদের শরীরও যে যৌনতা চায়, তা প্রকাশ করতে কেউ মেকি অপরাধবোধে ভোগেন না। আইনি সঙ্গী যদি শারীরিক এবং মানসিক সুখ দিতে না পারেন তাহলে তথাকথিত বেআইনি সঙ্গী বেছে নেওয়া দোষের নয় বলেই বিশ্বাস তাঁদের। মেয়ে বলেই কি পরকীয়া অপরাধ পুরুষও তো শারীরিক চাহিদার লোভে এবং যৌনসুখ মেটাতে বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কে লিপ্ত হন। তখন তো সমাজের কোনও সমস্যা হয় না। ভারতীয় মহিলাদের মধ্যে এই মানসিকতাও দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। আসলে প্রজন্মের পর প্রজন্ম ধরে সমাজের চাপিয়ে দেওয়া নিয়মে পরিবর্তন চাইছেন মহিলারা।সমাজবিজ্ঞানীদের একাংশের দাবি, বিবাহিতাদের পরকীয়া নিয়ে এত আলোচনা নেহাতই ডেটিং অ্যাপের বাণিজ্যিক কারসাজি। বেশিরভাগ ভারতীয় পুরুষই পরকীয়া করেন। তাঁদের মধ্যে অনেকেই বিবাহিত। ডেটিং অ্যপের মাধ্যমে প্রকাশিত সমীক্ষা নেহাতই সংখ্যামাত্র। বিবাহবহির্ভূত সম্পর্ক আগেও ছিল ভবিষ্যতেও থাকবে। এ নিয়ে মহিলাদের দিকে আঙুল তোলা অপ্রযোজনীয়। পুরুষতান্ত্রিক সমাজ নিজেকে শোধরালেই পরকীয়া শব্দটি সমাজ থেকে বিলুপ্ত হবে।টাটকা ভিডিয়ো খবর পেতে সাবস্ক্রাইব করুন এই সময় ডিজিটালের YouTube পেজে। সাবস্ক্রাইব করতে এখানে ক্লিক করুন।

Source link

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *