হাইলাইটসতেজপাতা গুঁড়ো করে যদি গরম জলে মিশিয়ে খান তাহলে হজমশক্তি বাড়বেই। এছাড়াও শরীরের মেটাবলিজম ক্ষমতাও বৃদ্ধি পাবে। ফলে শরীরের অতিরিক্ত ওজন কমবেএই সময় জীবনযাপন ডেস্ক: এই পাতার নামের মধ্যেই লুকিয়ে রয়েছে তেজ। আর এই তেজেই হয় প্রচুর উপশম। তেজপাতার নিজস্ব একটা গন্ধ রয়েছে। রান্নাঘরে খুবই জনপ্রিয়। যে কোনও রান্না শুরু হয় এই পাতা দিয়েই। মশলা হিসেবে খুবই খ্যাতি রয়েছে তেজপাতার। এছাড়াও প্রচুর গুণ রয়েছে এই পাতার। প্রাচীন কাল থেকেই এই পাতার বহুল ব্যবহার রয়েছে। ঔষধি গুণের জন্য খ্যাতি রয়েছে তেজপাতার। আর যে কারণে রান্নায় এই পাতা ব্যবহার করা হয়। রান্নায় ব্যবহার করলে যেমন গন্ধ বাড়ে তেমনই হজমও ভালো হয়। অনেকেই রান্নায় তেজপাতা অতিরিক্ত মনে করেন। আর সেটি না খেয়ে ফেলে দেন। আর তাই এবার থেকে ফেলে দেওয়ার আগে ভালো করে ভাবুন। তেজপাতা গুঁড়ো করে যদি গরম জলে মিশিয়ে খান তাহলে হজমশক্তি বাড়বেই। এছাড়াও শরীরের মেটাবলিজম ক্ষমতাও বৃদ্ধি পাবে। ফলে শরীরের অতিরিক্ত ওজন কমবে। পেট ফাঁপা, বুকজ্বালা, বদহজম এসব থেকেও মিলবে মুক্তি। সর্দি, কাশি হলে প্রাচীন কাল থেকেই তেজপাতা খাওয়ার কথা বলা হয়। যদি কারোর বুকে কফ জমার মতো সমস্যা থাকে তখনও তুলসী পাতা, তেজপাতা, মধু একসঙ্গে গরম জলে দিয়ে খেলে ভালো উপকার পাওয়া যায়। যে কোনও ব্যাথায় খুব কাজে আসে তেজপাতা। বাতের ব্যাথা থেকে মাইগ্রেনের ব্যথা কিংবা পায়ে চোট লেগে ফুলে গেলে তেজপাতা দেওয়া তেল মালিশ করুন। মাথাব্যথা, মাইগ্রেনের ব্যাথাতেও খুব উপকারী তেজপাতার তেল। যে কোনও ব্যাথার উপশমে যাঁদের ব্রণের সমস্যা রয়েছে তাঁরা চন্দন আর তেজপাতা একসঙ্গে বেটে মুখে লাগাতে পারেন। ফলে দাগ, ছোপ থেকেও যেমন রেহাই পাবেন তেমনই ত্বক থাকবে উজ্জ্বল ও সতেজ। এছাড়াও গায়ের দুর্গন্ধ কমায় তেজপাতা। আশ্বিন পেরিয়ে কার্তিক মাস পড়লেও কমেনি গরমের প্রকোপ। প্রতিদিনই তা বাড়ছে। সেই সঙ্গে বাড়ছে করোনার সংক্রমণও। আর তাই এই সব কিছু থেকে রেহাই পেতে সকালে আদা, গোলমরিচ, দারচিনি দেওয়া জল তো খাচ্ছেন। সেই সঙ্গে খাচ্ছেন খাচ্ছেন তুলসী দেওয়া চা। এবার খেয়ে দেখুন তেজপাতা দেওয়া এই বিশেষ চা। তেজপাতার মধ্যে থাকা ভিটামিন ও, ভিটামিন সি, পটাশিয়াম, ম্যাগনেশিয়াম, ক্যালসিয়াম আমাদের অনেক উপকারে আসে। এছাড়াও সংক্রমণ রুখতে জুড়ি নেই তেজপাতার। এখন ঘাম বসেও গলা ব্যাথা হচ্ছে। এদিকে করোনার লক্ষণেও বলা হয়েছে গলা ব্যাথার কথা। তাই অযথা ভয় না পেয়ে বানিয়ে নিন এই চা। দেখে নিন কীভাবে বানাবেন। মশলা হিসেবে ব্যবহার প্রাচীন কাল থেকেই যা যা লাগছেজল- ১ কাপতেজপাতা- ৩ টেলেবুর রস- ২ চামচযেভাবে বানাবেনসসপ্যানে জল বসান। এবার গরম হলে তেজপাতা দিন। এবার ফুটলে চা পাতা দিয়ে বন্ধ করুন। পাঁচ মিনিট পর ছেঁকে নিন। এবার ওর মধ্যে লেবুর রস মিশিয়ে খান। এই চা কিন্তু ঠান্ডা করে খাবেন না। গরম খেলে তবেই উপকারে আসবে। এই সময় ডিজিটালের লাইফস্টাইল সংক্রান্ত সব আপডেট এখন টেলিগ্রামে। সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন এখানে।

Source link

Comments

comments