Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: September 24, 2020 5:51 pm|    Updated: September 24, 2020 6:08 pm
ধ্রুবজ্যোতি বন্দ্যোপাধ্য়ায়: অন্য সময়ের চেয়ে এ বছরটা আলাদা। করোনা আবহেই বাঙালির শ্রেষ্ঠ উৎসবের প্রস্তুতি। এবার নিয়মবিধিতে অনেক বদল আসতে চলেছে, সেই ইঙ্গিত ছিলই। বৃহস্পতিবার নেতাজি ইন্ডোরে পুজো কমিটিগুলোর সঙ্গে বৈঠকে নয়া নিয়মাবলি নিজেই জানিয়ে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)। সতর্কতার সঙ্গে পুজোর আনন্দে মাততে এবার বাদ গেল প্রথাগত বেশ কয়েকটি বৈশিষ্ট্য। সংক্রমণ এড়াতে যোগ হল নতুন অনেক নিয়মই। চলতি বছর রাজ্যে ৩৭ হাজারেরও বেশি দুর্গাপুজো (Durgapuja) হচ্ছে বলে হিসেব দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।[আরও পড়ুন: কোভিডযুদ্ধে হার, প্রয়াত INS-অরিহন্তের স্থপতি, পদ্মশ্রীপ্রাপ্ত পরমাণু বিজ্ঞানী শেখর বসু] করোনা (Coronavirus) কালে খোলামেলা প্যান্ডেল করার কথা আগেই ঘোষণা করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। পুজো কমিটিগুলোর কাছে আজও ফের সেই বার্তাই পৌঁছে দিলেন। মমতার কথায়, ”চারপাশটা খোলা রেখে প্যান্ডেল করুন। এখনও বেশ কিছুদিন সময়ে আছে, ভেবেচিন্তে প্যান্ডেল করতে পারবেন। যারা চারপাশ খোলা রাখতে পারবেন না, তারা অন্তত ছাদ খোলা রাখুন। এটা আমাদের গ্লোবাল অ্যাডভাইজরি কমিটিরই পরামর্শ।” এবছর দুর্গাপুজোয় কী কী বাধ্যতামূলক, তার তালিকা দিলেন মুখ্যমন্ত্রী। যেমন – প্যান্ডেলে শারীরিক দূরত্ববিধি মেনে চলতে হবে। দর্শনার্থীদের জন্য প্রয়োজনে গন্ডি কেটে দিন।ভিড় এড়াতে মণ্ডপে প্রবেশ ও প্রস্থান পথ পৃথক করুন। মণ্ডপের ১ কিংবা আধ কিলোমিটারের মধ্যে হ্যান্ড স্যানিটাইজার, মাস্ক রাখতে হবে। প্রত্যেক দর্শনার্থীর মুখে আবশ্যক, মণ্ডপে প্রবেশের আগে হ্যান্ড স্যানিটাইজার দিয়ে হাত ধুতেই হবে।তৃতীয়া থেকে একাদশী – রাতভর পুজো দেখা যাবে।পাবলিক অ্যানাউন্সমেন্ট সিস্টেম থাকতে হবে প্রত্যেক মণ্ডপে। দর্শনার্থীদের সতর্ক করতে সতর্কতামূলক ঘোষণা হবে অনবরত। ২ তারিখ থেকে রেজিস্ট্রেশনের জন্য আবেদন করতে হবে কমিটিগুলোকে। পুজো কমিটিগুলোকে সাহায্যের জন্য মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণা, দমকল, কর্পোরেশনকে কোনও টাকা দিতে হবে না। সিইএসসি, পশ্চিমবঙ্গ বিদ্যুৎ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ ৫০ শতাংশ দাম নেবে। ক্লাবগুলিতে ৫০ হাজার টাকা অনুদান।[আরও পড়ুন: হাওড়া স্টেশন থেকে উদ্ধার চিনা সামগ্রী, নজরে রেলের পার্সেল পরিষেবা]করোনা কাঁটায়, শারীরিক দূরত্ববিধি মানার জন্য বাদ পড়ছে বেশ কয়েকটি প্রথা। তার মধ্যে অন্যতম – রেড রোডের পুজো কার্নিভ্যাল বাতিল। দুঃসংবাদ ঘোষণা করে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ”এবার কার্নিভ্যালটা করতে পারছি না। কারণ, রেড রোডে এবার নমাজও বাতিল হয়েছে। আমি দুঃখিত এর জন্য। আগামী বছর খুব ভাল করে কার্নিভ্যাল করব।” এছাড়াও বাদ পড়ছে – একসঙ্গে অঞ্জলি, সিঁদুরখেলা। মুখ্যমন্ত্রীর পরামর্শ, ছোট ছোট দলে দর্শনার্থীদের ভাগ করে শারীরিক দূরত্ব মেনে অঞ্জলি এবং সিঁদুরখেলা করানো হোক। আবেগ এবং সতর্কতা উভয়েই যেন বজায় থাকে। পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানও এবার সরাসরি হচ্ছে না। মুখ্যমন্ত্রী জানিয়ে দেন, বিশ্ব বাংলার তরফে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান ভারচুয়ালি করা হবে। অন্যান্য় ক্লাবগুলিও যেন তেমনটাই করে। 

Source link

Comments

comments