চুলের যত্ন বর্ষাকালে আবহাওয়া স্যাঁতস্যাঁতে হওয়ার কারণে চুলের গোড়া খুব তৈলাক্ত হয়ে যায়। এক্ষেত্রে, সালফেট ফ্রি ক্লিনজার ব্যবহার করুন। শ্যাম্পু করার সময় চুলের গোড়া ভালো করে ঘষুন। সপ্তাহে তিন দিন অবশ্যই শ্যাম্পু করুন। চুলের গোড়া শুকনো রাখুন বর্ষাকালে আবহাওয়া গুমোট থাকায় চুলের গোড়া ঘেমে যায়। আর, এই ঘাম থেকেই খুশকি ও চুল পড়া শুরু হয়। তাই চুলের গোড়া সবসময় শুকনো রাখা উচিত। সিরাম লাগান বর্ষাকালে কোঁকড়ানো এবং ওয়েভি চুলের যত্ন নেওয়া খুবই কঠিন হয়ে পড়ে। তাই বর্ষাকালে চুলে সিরাম লাগান। এতে চুলে জট পড়বে না। শুষ্ক ত্বকের জন্য মুখের গ্লিসারিন ব্যবহার করুন, ত্বক হবে নরম ও উজ্জ্বল ভেজা চুলের ক্ষেত্রে সাবধানতা অবলম্বন করুন বর্ষাকালে ভেজা চুলের বিশেষ যত্ন নিতে হয়। ভেজা চুল বেঁধে রাখা উচিত নয়, কারণ এতে সংক্রমণের ঝুঁকি বেড়ে যায়। খুশকি, উকুনের মতো সমস্যা দেখা যায়। বৃষ্টিতে ভিজে যাওয়ার পরে চুল অবশ্যই শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে। আর্দ্রতা বৃষ্টির দিনে আবহাওয়া স্যাঁতস্যাঁতে থাকে, যার কারণে কোঁকড়ানো চুল আরও বেশি ঘন মনে হয়। এর কারণ হল, কোঁকড়ানো চুল বাতাসের আর্দ্রতা শোষণ করে নেয়। এক্ষেত্রে আপনার চুলে অবশ্যই কন্ডিশনার লাগান। সপ্তাহে তিন বার চুলের যত্ন সপ্তাহে অন্তত তিন বার চুলে প্যাক ও গোলাপজল এক সাথে মিশিয়ে শ্যাম্পুর পর লাগান। কিছুক্ষণ রেখে তারপর ঠাণ্ডা জলে চুল ধুয়ে নিন। এছাড়া টক দইয়ের সঙ্গে পাতিলেবু ও নিমপাতার রস মিশিয়েও লাগাতে পারেন। হেয়ার মাস্ক বর্ষাকালে চুল নিস্তেজ ও প্রাণহীন হয়ে যায়। তাই, চুলের যত্ন নিতে এই মরসুমে হেয়ার মাস্ক লাগানো উচিত। চুলে দই এবং অ্যাভোকাডোর হেয়ার মাস্ক লাগাতে পারেন। মেথি চুলের জন্যে মেথি খুবই উপকারি। সারারাত মেথি ভিজিয়ে রেখে পরেরদিন জলটা ছেঁকে নিন। শ্যাম্পু করার পর সব শেষে মেথি ভেজানো জল দিয়ে চুল ধুয়ে নিন। এতে চুল পড়া, খুশকি দূর হবে এবং চুলের উজ্জ্বলতা বাড়বে। হেয়ার ড্রায়ার এই সময়টায় হেয়ার ড্রায়ার ব্যবহার না করাই ভাল। যতটা পারবেন এড়িয়ে যাবেন।

Source link

Comments

comments