এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: করোনায় আক্রান্ত হয়ে ফের হাসপাতালে ভর্তি হলেন রাজ্যের মন্ত্রী নির্মল মাজি। শনিবার রাতে মেডিক্যালের এসএসবি-তে তিনি ভর্তি হয়েছেন। মস্তিষ্কে রক্ত জমাট বাঁধার সমস্যা নিয়ে গত মাসেই এসএসকেএমে ভর্তি হয়েছিলেন নির্মল মাজি। চিকিত্‍‌সার কারণে কিছুদিন তাঁকে এসএসকেএমে ভর্তিও থাকতে হয়েছিল।সূত্রের খবর, সামান্য উপসর্গ থাকায় একটি বেসরকারি ল্যাবে সোয়াব টেস্ট করান নির্মল। শনিবার সন্ধ্যায় তাঁর কোভিড টেস্ট রিপোর্ট পজিটিভ আসে। প্রেশার-সুগারের পাশাপাশি অতিরিক্ত ওজন ইত্যাদির মতো তাঁর গুচ্ছ কো-মর্বিডিটি রয়েছে। তাই রিপোর্ট পজিটিভ আসার পরে ঝুঁকি না নিয়ে তাঁকে হাসপাতালে ভর্তির পরামর্শ দেন চিকিৎসকেরা। সেই মতো এদিন রাত ১০টা ৪০ মিনিটে মেডিক্যালের এসএসবিতে ভর্তি হন মন্ত্রী। শুক্রবারই মেডিক্যালের রোগীকল্যাণ সমিতির বৈঠকে নির্মল মাজি সভাপতিত্ব করেছিলেন। ফলে অধ্যক্ষ, উপাধ্যক্ষ-সহ মেডিক্যালের অনেক শিক্ষক-চিকিৎসকই চাপে পড়ে গিয়েছেন। চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, আপাতত স্থিতিশীলই আছেন নির্মল।মাথার যন্ত্রণা অসহ্য পর্যায়ে পৌঁছনোয় সেপ্টেম্বরে এসএসকেএম হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন রাজ্যের শ্রম প্রতিমন্ত্রী নির্মল মাজি। বাঙুর ইনস্টিটিউট অফ নিউরোলজিতেও নিয়ে গিয়ে দ্রুত সিটি স্ক্যান করানো হয়। রিপোর্ট দেখে চিকিৎসকেরা জানান তাঁর সাব-ডিউরাল হেমাটোমা ধরা পড়েছে। ফলে তাঁর মস্তিষ্কে অস্ত্রোপচার করার সিদ্ধান্ত নেন চিকিত্‍‌সকেরা। মন্ত্রীর জন্য ৮ সদস্যের একটি মেডিক্য়াল বোর্ডও গঠিত হয়েছিল। মস্তিষ্কে একটি বড় ধরনের অস্ত্রোপচারের পর চিকিত্‍‌সকদের পর্যবেক্ষণে বেশ কিছু দিন এসএসকেএমে ভর্তি ছিলেন উলুবেড়িয়া উত্তর কেন্দ্রের বিধায়ক। আরও পড়ুন: রাজ্যে করোনায় মৃত্যু ৬০০০ ছোঁয়ার মুখে, অ্যাক্টিভ আক্রান্ত ছাড়াল ৩৩ হাজারঅসুস্থ হওয়ার আগে মেডিক্যাল কলেজে করোনা চিকিৎসা দেখভালের দায়িত্বে ছিলেন নির্মল মাজি। রাজ্য সরকার মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালকে করোনা হাসপাতাল ঘোষণা করে। যে কারণে প্রতিদিন মেডিক্যালে করোনা রোগীর ভিড় লেগে থাকে। সবাই যাতে ঠিক ভাবে চিকিৎসা পান, চিকিৎসক, নার্স বা স্বাস্থ্যকর্মীদের যাতে কোনও সমস্যা না হয়, সবদিক দেখার দায়িত্ব ছিল নির্মল মাজির উপর।আরও পড়ুন: ভোটের সূত্র মেনেই গোটা দেশে ভ্যাকসিন বিতরণ! টোটকা মোদীরকী কারণে মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ হয়েছিল, তা অবশ্য স্পষ্ট করে জানা যায়নি। তবে, ঘটনার দিন সকাল থেকেই তিনি ভীষণ ব্যস্ততার মধ্যে ছিলেন। তারই মধ্যে অসুস্থ হয়ে পড়লে, তড়িঘড়ি ভর্তি করানো হয় SSKM-এ। সেখানে সিটি স্ক্যান করার পরেই ধরা পড়ে মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ হয়েছে। অস্ত্রোপচারের পর কয়েকটা দিন প্রবল উদ্বেগের মধ্যে কাটে পরিবারের। চিকিত্‍‌সকেরাও তাঁর স্বাস্থ্য নিয়ে উদ্বিগ্ন ছিলেন। ধীরে ধীরে সেই সংকট থেকে বেরিয়ে আসেন। এই সময় ডিজিটাল এখন টেলিগ্রামেও। সাবস্ক্রাইব করুন, থাকুন সবসময় আপডেটেড। জাস্ট এখানে ক্লিক করুন।

Source link

Comments

comments