সারাবাংলা ডেস্ক: ভারতীয় নৌসেনার প্রাক্তন কর্মী কুলভূষণ জাদবকে তৃতীয়বার কনসুলার অ্যাকসেস দিল পাকিস্তান। অর্থাৎ ফের ভারতীয় কুটনীতিবিদের সঙ্গে দেখা করতে পারবেন তিনি। তবে এবার নয়াদিল্লির দাবি মেনে ভারতীয় প্রতিনিধিদের কুলভূষণের সঙ্গে ‘একান্তে’ সাক্ষাতের অনুমতি দিয়েছে ইসলামাবাদ।[আরও পড়ুন: ফের বিপাকে ইসলামাবাদ, আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদী ঘোষিত পাকিস্তানের জঙ্গিগোষ্ঠীর প্রধান]Pakistan offers third consular access to India for Kulbhushan Jadhav (file pic), a note verbale has been sent meeting India’s demand to not have a security personnel during the meeting says Pakistani Foreign Minister Shah Mahmood Qureshi: Pakistan Media pic.twitter.com/K6G2zWUQk9— ANI (@ANI) July 17, 2020সংবাদ সংস্থা এএনআই সূত্রে খবর, ইতিমধ্যে এই মর্মে ভারতের কাছে চিঠি (note verbale) পাঠিয়েছেন পাকিস্তানের বিদেশমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কুরেশি। তিনি জানান, ভারতের দাবি মেনে, এবার সাক্ষাতের সময় কুলভূষণের পাশে কোনও পাকিস্তানি নিরাপত্তা আধিকারিক থাকবে না। কুলভূষণের সঙ্গে দ্বিতীয়বার সাক্ষাতের পর ভারতীয় প্রতিনিধিরা জানিয়েছেন, আলোচনার সময় সেখানে পাকিস্তানের নিরাপত্তা অধিকারিকর মজুত ছিলেন। স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছিল কুলভূষণের উপর চাপ সৃষ্টি করা হচ্ছে। মন খুলে কোনও কথা তিনি বলতে পারেননি। এই বিষয়ে ইসলামাবাদের কাছে তীব্র ভাষায় প্রতিবাদ জানিয়েছিল নয়াদিল্লি।এদিকে, তৃতীয়বার কবে এবং কোথায় কুলভূষণের সঙ্গে দেখা করবেন ভারতীয় প্রতিনিধিরা তা এখনও স্পষ্ট নয়। গতকাল, ভারতীয় দূতাবাস থেকে কুটনীতিবিদ গৌরব আলুওয়ালিয়া ও তাঁর সঙ্গী বেলা ৩টে নাগাদ কুলভূষণের সঙ্গে একটি অজ্ঞাত জায়গায় সাক্ষাৎ করেন। তবে বৈঠকের সময় নীতি লঙ্ঘন করে সেখানে উপস্থিতি ছিলেন পাক অধিকারিকরা। এই সাক্ষাতের কথা নিশ্চিত করেছেন ভারতীয় বিদেশমন্ত্রকে মুখপাত্র অনুরাগ শ্রীবাস্তব। ভারতীয় নৌসেনার প্রাক্তন কর্মীর সঙ্গে কুটনীতিবিদের একান্তে সাক্ষাৎ করতে দেয়নি পাকিস্তান।উল্লেখ্য, কয়েকদিন আগেই পাকিস্তান দাবি করেছিল, মৃত্যুদণ্ডের পুনর্বিবেচনা চান না ভারতীয় নৌসেনার প্রাক্তন কর্মী কুলভূষণ যাদব। নিজের আইনি অধিকার প্রয়োগ করে আদালতে সাজা পুনর্বিবেচনার আরজি দাখিল করতে রাজি হননি তিনি। পাকিস্তানের অ্যাডিশনাল অ্যাটর্নি জেনারেল জানান, জুনের ১৭ তারিখ সাজা পুনর্বিবেচনার আরজি জানানোর কথা বলা হয়েছিল কুলভূষণ জাদবকে। তবে নিজের আইনি অধিকার প্রয়োগ করে কোনও আপিল করা থেকে বিরত থাকেন তিনি। এই মর্মে আগে দাখিল করা ক্ষমা প্রার্থনার আপিলের দিকেই তাকিয়ে আছেন তিনি। উল্লেখ্য, পাক সেনার দাবি, দোষী সাব্যস্ত হওয়ার পর ২০১৭ সালে পাক সেনাপ্রধান জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়ার কাছে মৃত্যুদণ্ড রদ করার আবেদন জানিয়ে আপিল করেছিলেন কুলভূষণ।[আরও পড়ুন: রাম নিয়ে নাছোড় নেপাল, ওলির দাবির পর অযোধ্যা খুঁজতে শুরু খননকার্য]

Source link

Comments

comments