স্রেফ একটা ছোট্ট Thank You,আর তাতেই কিন্তু খুশি হয় উল্টোদিকের মানুষটি। অটোয় খুচরো নেওয়ার পর যদি আপনি একটা ধন্যবাদ জানান কিংবা মাছওয়াসা আপনার পছন্দের মাছ কেটেকুটে এনে দিলে তাকেও একটা ছোট্ট thanks জানাতে ভুলবেন না। সম্পর্কের বন্ধুন অটুট হয় ছোট্ট এই দুটো শব্দতেই। বর্তমানে সকলেই খুব অসহিষ্ণু হয়ে উঠেছে। অল্পেতেই অতিরিক্ত রেগে যাওয়া, সামান্যতম ধৈর্য না থাকা এবং এখন সবাই নিজেকে ভাবে রাজা। প্রত্যেকেই নিজের জীবনে খুবই ব্যস্ত। ফলে একটা সেকেন্ডও কারোর সঙ্গে দাঁড়িয়ে কথা বলার অবকাশ থাকে না। আর তাই কারোর সামান্যতম উপকারের বিনিময়ে আপনি যদি ধন্যবাদ বলেন, তাহলে তিনি যে শুধুমাত্র খুশি হবেন তা নয় সেই সঙ্গে দৃঢ় হবে মানুষের সঙ্গে মানুষের বন্ধন। আর তাই দেখুন কেন আপনি সুযোগ পেলে মানুষকে ধন্যবাদ বলবেন। Thank You একটা শব্দই বাড়িয়ে দেয় মনোবলনানা কারণেই অনেক সময় মানুষ আত্মবিশ্বাস হারিয়ে ফেলেন। এমন অনেক পরিস্থিতি আসে যা মানুষকে দুর্বল করে দেয়য। ঘুরে দাঁড়ানোর মতো ক্ষমতাও থাকে না। আর তাই এমন মানুষদের কোনও ভালো কাজের প্রশংসা যেমন সবসময় করবেন, তেমনই কোনও কিছুর বিনিময়ে ধন্যবাদ জানাতে ভুলবেন না। এতে তাঁদের মনের মধ্যে আবারও ফিরবে আত্মবিশ্বাস। সেই সঙ্গে সমাজ সম্বন্ধে একটা ভালো ধারণাও তৈরি হবে। অপরিচিতের সঙ্গে মেলবন্ধনবাসে, ট্রামে বাজারে এখনও কিন্তু কোনও অপরিচিত ব্যক্তি এগিয়ে আসেন আপনি সমস্যায় পড়লে আপনাকে উদ্ধার করতে। এমন কোনও ব্যক্তির সাক্ষাৎ আপনি পেয়েছেন? তাহলে অন্তত একবার তাঁকে ধন্যবাদ জানান। এমনও হল, কোনও অপরিচিতের কথায় আপনি মুগ্ধ হলেন। তখন মনে মনে না বলে তাঁকে একবার সামনে গিয়ে Thank you বলুন। সেই সঙ্গে তাঁর কথা যে আপনার ভালো লেগেছে তা বোঝাতে ভুলবেন না। বাড়বে যোগাযোগআজকাল দূরত্ব বেড়েছে, যোগাযোগ নিভেছে। মানুষ সর্বদাই নিজেকে নিয়ে ব্যস্ত। কারোর খোঁজ খবর টুকু নেওয়ার সুযোগ নেই। যেটুকু খোঁজ খবর জোটে তাও ওই সোশ্যাল মিডিয়া মারফত। ফলে সামনে দাঁড়িয়ে কেমন আছেন, তা বলার দিন এখন শেষ। এখন অ্যাপের যুগ। চাল, ডাল থেকে মাংস সবই এখন বাড়ি বসেই পৌঁছে যাচ্ছে অনলাইনে। আর তাই যিনি আপনার বাড়িতে সব পৌঁছে দিচ্ছেন, তাঁর সঙ্গে কড়া ভাষায় কথা না বলে একটা ধন্যবাদ বলুন। দেখবেন, মন থেকে আপনার নিজেরই ভালো লাগছে। মানুষের দৃষ্টিভঙ্গি বদলে যায়গত প্রায় এক বছর ধরে খুবই কঠিন সময়ের মধ্যে দিয়ে গিয়েছে। আর এমন কঠিন পরিস্থির সম্মুখীন হয়ে অনেকেই ভালো থাকা প্রায় ভুলে গিয়েছেন। কেউ যে কারোর ভালো চাইতে পারে এটাও এখন সকলের কাছে বিস্মৃত। তাই আপনি কাউকে ধন্যবাদ বললে তিনি তাঁর পজিটিভিটি ফিরে পাবেন। সেই সঙ্গে তৈরি হবে দীর্ঘ সূত্রতাও। মানুষ হিসেবে আপনি কেমন তা বোঝা যায়অনেকেই ভাবেন ধন্যবাদ জ্ঞাপন মানে ছোট হয়ে যাওয়া। সবাই চান আমিই সেরা এটা যেন বজায় থাকে। ফলে খুব সহজে কেুই ধন্যবাদ বলতে চান না। বরং সুযোগ পেলে অবশ্যই ধন্যবাদ জানান। এতে মানুষ হিসেবে আপনি কেমন প্রকৃতির তা সহজেই বোঝা যাবে।

Source link

Comments

comments