Tag Archives: beauty tips

How To Make Homemade Lip Balm : ঠোঁট ফাটছে? সুন্দর ঠোঁটের জন্য ঘরে তৈরি লিপ বাম ব্যবহার করুন, দেখুন তৈরির পদ্ধতি


Beauty oi-Purabi Jana |

Updated: Thursday, December 31, 2020, 17:16 [IST]
শীতকালে রুক্ষ-শুষ্ক আবহাওয়ার কারণে গা-হাত-পায়ের ত্বকের পাশাপাশি ঠোঁটেও ফাটল দেখা দেয়। তাই ঠোঁট ঠিক রাখতে আমরা প্রত্যেকেই লিপ বাম ব্যবহার করি। কিন্তু কেমিকেল যুক্ত লিপ বাম ব্যবহারের ফলে অনেক সময় ঠোঁট কালো হয়ে যায়। তাই আপনি ঘরে তৈরি লিপ বাম ব্যবহার করতে পারেন। তাহলে জেনে নিন বাড়িতে কীভাবে লিপ বাম তৈরি করবেন। ১) লিপ বাম তৈরির পদ্ধতি লিপ বাম তৈরি করতে দুই চামচ নারকেল তেল, এক চা চামচ শিয়া বাটার, এক চামচ মধু, আধা চামচ বিট পাউডার, এসেনশিয়াল অয়েল এবং এক চামচ ক্যাস্টর অয়েল নিন। একটি প্যানে নারকেল তেল, শিয়া বাটার এবং ক্যাস্টর অয়েল গরম করে মিশিয়ে নিন। এই মিশ্রণটিতে মধু, বিট পাউডার এবং এসেনশিয়াল অয়েল দিন। এর পরে এটি একটি ছোট কৌটো বা জারে রাখুন। তারপর এটি ফ্রিজে রাখুন। এই লিপ বাম ব্যবহার করতে পারেন। হাঁটু-কনুইয়ে কালচে দাগ? দূর করুন এই ঘরোয়া উপায়ে এই লিপ বামের উপকারিতা ঘরের তৈরি লিপ বাম ঠোঁটে আর্দ্রতা বজায় রাখে। নারকেল তেল ফাটা ঠোঁটকে ময়েশ্চারাইজ করতে সহায়তা করে। ক্যাস্টর অয়েল এবং শিয়া বাটার শুকনো ঠোঁট ঠিক করে। এসেনশিয়াল অয়েল ঠোঁটের ফোলাভাব কমায়। বিট পাউন্ডার ঠোঁটে গোলাপী রঙ দেয়। গ্রিন টি লিপ বাম উপকরণ ১ টেবিল চামচ অলিভ অয়েল, ১ টেবিল চামচ নারকেল তেল, ১ টেবিল চামচ বিওয়াক্স, দুটো গ্রিন টি ব্যাগ, এসেনশিয়াল অয়েল কয়েক ফোঁটা একদম কম আঁচে নারকেল তেল আর গ্রিন টি ব্যাগ ফুটিয়ে নিয়ে বেশ কিছুক্ষণ রেখে দিন। এরপর টি ব্যাগগুলো ফেলে দিয়ে নারকেল তেল এবং গ্রিন টি-র মধ্যে বিওয়াক্স ও অলিভ অয়েল মিশিয়ে আবার একটু গরম করে নিন। বিওয়াক্স গলে গেলে গ্যাস বন্ধ করে একটু ঠাণ্ডা হতে দিন। তারপর তাতে কয়েক ফোঁটা এসেনশিয়াল অয়েল দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে একটা ছোট কৌটোয় ভরে রেখে দিন। এবার এটা কয়েক ঘণ্টা ফ্রিজে রেখে দিলেই তৈরি গ্রিন টি লিপ বাম।

GET THE BEST BOLDSKY STORIES!

Allow Notifications

You have already subscribed

Source link

Jaggery Milk For Glowing Skin In Winter : শীতের সময় উজ্জ্বল ত্বক পেতে পান করুন গুড়ের দুধ!


সুন্দর ত্বক গুড় খেলে শরীরে হিমোগ্লোবিনের ঘাটতি হয় না। এই কারণে শরীরে অক্সিজেনের প্রবাহ ভাল থাকে। যার ফলে মুখের ত্বক উজ্জ্বল হয়। আপনার ডায়েটে সামান্য গুড় অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন। উজ্জ্বল ত্বক গুড়ে আয়রন এবং ভিটামিন রয়েছে, যা ত্বকের জন্য খুব উপকারি। প্রতিদিন গুড় খাওয়ার ফলে শরীরের ক্ষতিকারক টক্সিন দূর হয় যা ত্বক পরিষ্কার করে। পাশাপাশি ত্বক উজ্জ্বল হয়। গুড়ে ক্যালসিয়াম এবং ফসফরাস রয়েছে, যা ত্বকে সম্পূর্ণ পুষ্টি সরবরাহ করে। মুখে রিঙ্কেলস, ফুসকুড়ি এবং পিম্পলস এর মতো সমস্যা কমায়। তবে মনে রাখবেন যে, খুব বেশি গুড় খাওয়ার ফলে মুখে পিম্পল হতে পারে। শীতে শুষ্ক ত্বক থেকে রেহাই পেতে স্নানের সময় এই জিনিসগুলি ব্যবহার করুন! ডার্ক সার্কেল ডার্ক সার্কেল যেকোনও মানুষের মুখের সৌন্দর্য নষ্ট করে। গুড়ের দুধ পান করলে ডার্ক সার্কেলও কমে। আপনিও যদি এই সমস্যায় পড়ে থাকেন, তবে এখন থেকে দুধ এবং গুড় খাওয়া শুরু করুন। মুখে ফোলাভাব সকালে ঘুম থেকে ওঠার পরে যদি আপনার মুখ ফুলে যায় বা আপনার চোখ ফুলে যায়, তবে অবশ্যই আপনার গুড়ের দুধ পান করা উচিত। এটি সেবন করলে মুখের ফোলাভাব কমে যাবে। রক্তের অভাবের ফলে মুখে ফোলাভাব দেখা দেয়। গুড় খাওয়ার ফলে এই ঘাটতি পূরণ হতে পারে।

Source link

রুটিন মেনে ত্বকের যত্ন নিন প্রতিদিন, রইল পুরুষদের জন্য কিছু বিশেষ টিপস | Best Skin Care Tips For Men


টোনার টোনার ত্বকের যত্নের জন্য খুব কার্যকর। টোনার ব্যবহারের ফলে ত্বকের পোর্স টাইট হয়ে যায়, যার ফলে মুখে ব্রণ হয় না। তরুণ ত্বকের জন্য টোনার ব্যবহার করুন। দাড়ি কাটার ক্ষেত্রে আপনার যদি একদিন অন্তর অন্তর দাড়ি কাটার অভ্যাস থাকে তবে অবশ্যই নতুন ব্লেড বা রেজার ব্যবহার করার চেষ্টা করুন, কারণ পুরোনো ব্লেড ত্বকের জন্য খুবই ক্ষতিকর। ময়েশ্চারাইজার ময়শ্চারাইজার ত্বকের ধরণ অনুযায়ী ব্যবহার করা উচিত। ময়েশ্চারাইজার ব্যবহারের ফলে ত্বক খুব ভাল থাকে। কোমল হয়। ৩০ বছর বয়সের পরেও চেহারায় তারূণ্য ধরে রাখতে ছেলেদের জন্য রইল কিছু টিপস্ ক্লিনজার ঘরের বাইরে বেরোলে, দূষণ ও ধুলোবালির কারণে মুখে প্রভাব পড়ে। এক্ষেত্রে প্রত্যেক ছেলের-ই ত্বকের যত্নের জন্য ক্লিনজার ব্যবহার করা উচিত। বাড়িতে আসার পরে, মুখ ক্লিনজার দিয়ে পরিষ্কার করা উচিত। তাহলে মুখে জমে থাকা ময়লা দূর হবে। দিনে দু’বার ক্লিনজার লাগান। ফেস রোলার উজ্জ্বল ও স্বাস্থ্যকর ত্বকের জন্য মুখে ম্যাসাজ করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। পুরো মুখে ফেস রোলার ব্যবহার করা উচিত। উজ্জ্বল ত্বক পেতে কয়েক মিনিটের জন্য মুখে ম্যাসাজ করা উচিত।

Source link

Home Remedies for Under Eye Wrinkles : চোখের চারপাশে রিঙ্কেলস নিয়ে চিন্তিত? এই ঘরোয়া পদ্ধতি প্রয়োগেই হবে সমস্যার সমাধান!


রোদে বেশি সময় থাকা সূর্যের রশ্মি ত্বকের ব্যাপক ক্ষতি করে। আমাদের চোখ তীব্র সূর্যের আলো সহ্য করতে পারে না। তাই রোদে বেশি সময় ব্যয় করার কারণে মুখে রিঙ্কেল দেখা যায়। চোখ ঘষার অভ্যাস অনেকেরই ঘনঘন চোখ ঘষার অভ্যাস থাকে, এই কারণে চোখের চারপাশে রিঙ্কেলস পড়ে যায়। চোখ ঘষার ফলে চোখের পেশীগুলির ক্ষতি হয়। ধূমপান যাদের ধূমপানের অভ্যাস রয়েছে তাদের মুখেও রিঙ্কেলস দেখা যায়। ধূমপানে অনেক বিষাক্ত পদার্থ পাওয়া যায় যা ত্বকের ক্ষতি করে। চোখ কুঁচকে হাসির অভ্যাস অনেকের আবার চোখ কুঁচকে হাসির অভ্যাস রয়েছে, এর ফলে পেশীগুলির উপর চাপ পড়ে এবং যার ফলে সেগুলি দুর্বল হয়ে যায়। যার ফলে চোখে কোঁচকানো রেখা দেখা যায়। রিঙ্কেলস নিরাময়ের ঘরোয়া প্রতিকার আনারস আনারসে ব্রোমেলিন নামক এনজাইম থাকে, যা রিঙ্কেল কমাতে খুব কার্যকর। আনারসের জুস নিয়ে ওই জায়গায় লাগান। ১৫ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন। এটি আপনার চোখের চারপাশে কোঁচকানো রেখা কমিয়ে দেবে! শসা শসা ত্বককে ময়েশ্চারাইজ করার পাশাপাশি রিঙ্কেলস কমাতেও সহায়তা করে। এছাড়া শসা ডার্ক সার্কেল এবং পিগমেন্টেশন হ্রাস করতেও খুব কার্যকর। অলিভ অয়েল অলিভ অয়েল দিয়ে চোখের চারপাশে মালিশ করলে রিঙ্কেলের সমস্যা কমে। এটি ব্যবহার করলে ত্বক ময়েশ্চারাইজ থাকে, আবার মুখের সূক্ষ্ম রেখাও কম হয়। ডিম ডিমের সাদা অংশ ত্বককে শক্ত করতে সহায়তা করে। এর সাথে এটি মুখের কুঁচকে যাওয়াও কমায়। ক্যাস্টর অয়েল ক্যাস্টর অয়েল দিয়ে চোখে ম্যাসাজ করলে চোখের চারপাশের রিঙ্কেলস দূর হয়। ক্যাস্টর অয়েল দিয়ে আলতো করে মুখে ম্যাসাজ করুন। এটি ত্বকের কোলাজেন বাড়ায় এবং বলিরেখা কমায়। দই দইয়ের মধ্যে লেবুর রস মিশিয়ে মুখে লাগান। ১৫ মিনিট পরে পরিষ্কার জল দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এরপরে ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করুন। দই ব্যবহার করলে মুখের মৃত ত্বক দূর হবে। এছাড়াও, চোখের চারপাশের পেশীগুলিও মজবুত হবে। কনট্যাক্ট লেন্স পরেন? চোখের মেকআপের সময় মাথায় রাখুন এই বিষয়গুলি এই বিষয়গুলি মাথায় রাখুন ক) যদি আপনি রোদে বেশি সময় ব্যয় করেন, তবে ঘরের বাইরে বেরোনোর সময় চশমা এবং সানস্ক্রিন ব্যবহার করুন। খ) ডায়েটে ফল, শাকসবজি, ডিম, মাছ, বিনস, বাদাম অন্তর্ভুক্ত করুন। গ) ধূমপান ও মদ্যপান কমান। ঘ) বেশি পরিমাণে জল পান করুন। দিনে অন্তত ৮-৯ গ্লাস জল পান করুন।

Source link

How to get pink lips naturally at home : নরম ও গোলাপি ঠোঁটের জন্য এই টিপসগুলি অনুসরণ করুন


১) অ্যালোভেরা জেল ফাটা ঠোঁট নিরাময়ে আপনি অ্যালোভেরা জেল ব্যবহার করতে পারেন। রোজ রাতে ঘুমানোর আগে ঠোঁটে অ্যালোভেরা জেল লাগান। অ্যালোভেরা জেল লাগালে ঠোঁট আর্দ্র থাকে। ২) ভ্যাসলিন, মধু এবং অলিভ অয়েল ভ্যাসলিন ঠোঁট নরম করতে বেশ কার্যকর। যদি ভ্যাসলিন লাগানোর ফলে আপনার ঠোঁট ঠিক না হয়, তবে আপনি ভ্যাসলিনের সঙ্গে মধু এবং অলিভ অয়েল মিশিয়ে ঠোঁটে লাগাতে পারেন। এটি আপনার ঠোঁট নরম করবে। ভ্যাসলিন, মধু এবং অলিভ অয়েলের পেস্ট বানিয়ে, তা দিয়ে ঠোঁট ম্যাসাজ করলে আপনার ফাটা ঠোঁট ঠিক হয়ে যাবে। ৩) চিনি ঠোঁটে চিনি দিয়ে হালকা করে স্ক্রাব করতে পারেন। এতে ঠোঁট সতেজ থাকে। ৪) মধু ও ব্রাউন সুগার মধু ঠোঁট ফাটা বন্ধ করতে পারে। এক চামচ মধুর সঙ্গে পরিমাণমতো ব্রাউন সুগার মিশিয়ে সেটা ঠোঁটে লাগান। তারপর আলতো করে মালিশ করুন। কিছুক্ষণ স্ক্রাবিংয়ের পর হালকা গরম জল দিয়ে ঠোঁট ধুয়ে ফেলুন। দেখবেন ঠোঁট গোলাপি ও নরম হবে! ঠোঁট ফাটছে? সুন্দর ঠোঁটের জন্য ঘরে তৈরি লিপ বাম ব্যবহার করুন, দেখুন তৈরির পদ্ধতি ৫) অলিভ অয়েল ও দারুচিনির গুঁড়ো এক চিমটে দারুচিনির গুঁড়ো নিয়ে এক চামচ অলিভ অয়েলের সঙ্গে ভালভাবে মিশিয়ে ঠোঁটে কিছুক্ষণ লাগিয়ে রাখুন। এরপর হালকা গরম জলে ধুয়ে ফেলুন। কাজ দেবে। ৬) মধু ও লেবু এক চামচ মধুর সঙ্গে এক চামচ লেবুর রস মিশিয়ে ঠোঁটে লাগান। এটি ৩০ মিনিট রেখে ঠান্ডা জল দিয়ে ঠোঁট ধুয়ে ফেলুন। ৭) নারকেল তেল নারকেল তেল আমাদের ত্বক ও চুলের জন্য খুব উপকারি। এর মধ্যে ময়শ্চারাইজিংয়ের গুণ থাকে, যা ঠোঁট ফাটা থেকে রক্ষা করে। তাই রাতে শোওয়ার আগে ঠোঁটে নারকেল তেল লাগান। দেখবেন ঠোঁট মোলায়েম ও উজ্জ্বল থাকবে।

Source link

চোখে কাজল পরলে ঘেঁটে যায়? এই সহজ উপায়ে হবে সমস্যার সমাধান! | How To Prevent Your Kajal From Smudging


সুতির কাপড়ে বরফ একটি নরম সুতির কাপড়ে বরফ নিয়ে চোখের চারপাশটা হালকা করে ম্যাসাজ করুন। এর পরে একটা শুকনো কাপড় দিয়ে চোখ মুছে নিন। তাহলে চোখের চারপাশের অতিরিক্ত তেল চলে যাবে এবং কাজল অনেকক্ষণ থাকবে। টোনার ব্যবহার করুন আপনি টোনার ব্যবহার করতে পারেন। একটি কটন প্যাড নিন, তারপরে তাতে টোনার লাগান। এরপর এই কটন প্যাড দিয়ে চোখের পাতাগুলি পরিষ্কার করুন। এর ফলে চোখে থাকা তেল দূর হবে। তাহলে কাজল ছড়াবে না! কটন প্যাড চোখে কাজল দীর্ঘসময় ঠিক রাখতে এই পদ্ধতি প্রয়োগ করুন। কাজল লাগানোর আগে একটি কটন প্যাড ঠান্ডা জলে ডুবিয়ে রাখুন এবং এটি আপনার চোখের পাতায় লাগান। তারপর চোখের পাতা ভাল করে মুছুন। এরপরে কাজল পেন্সিল দিয়ে চোখে কাজল পরুন। তারপরে আপনার চোখের পাতাতে ফেস পাউডার লাগান। চোখের চারপাশে রিঙ্কেলস নিয়ে চিন্তিত? এই ঘরোয়া পদ্ধতি প্রয়োগেই হবে সমস্যার সমাধান! বিবি ক্রিম বা ফাউন্ডেশন ব্যবহার করুন কাজল লাগানোর আগে চোখের চারপাশে বিবি ক্রিম বা হালকা ফাউন্ডেশন লাগান। তবে দেখবেন যাতে ক্রিম পুরোপুরি ত্বকের সঙ্গে মিশে যায়। এর ফলে চোখের অতিরিক্ত তেল চলে যাবে এবং চোখের চারপাশটা বেশ পরিষ্কার দেখাবে। এটি করলে কাজল লাগানোর পরেও স্মাজ হবে না। আর বিবি ক্রিম বা ফাউন্ডেশন ব্যবহারের ফলে চোখের চারপাশে কালো স্পটও কম হবে। পাউডার লাগান কাজল বা আইলাইনার পরার পরে চোখের চারপাশে হালকা করে পাউডার লাগিয়ে নিন। এতে চোখের চারপাশের অতিরিক্ত তেল দূর হয়।

Source link

চোখে কাজল পরলে ঘেঁটে যায়? এই সহজ উপায়ে হবে সমস্যার সমাধান! | How To Prevent Your Kajal From Smudging


সুতির কাপড়ে বরফ একটি নরম সুতির কাপড়ে বরফ নিয়ে চোখের চারপাশটা হালকা করে ম্যাসাজ করুন। এর পরে একটা শুকনো কাপড় দিয়ে চোখ মুছে নিন। তাহলে চোখের চারপাশের অতিরিক্ত তেল চলে যাবে এবং কাজল অনেকক্ষণ থাকবে। টোনার ব্যবহার করুন আপনি টোনার ব্যবহার করতে পারেন। একটি কটন প্যাড নিন, তারপরে তাতে টোনার লাগান। এরপর এই কটন প্যাড দিয়ে চোখের পাতাগুলি পরিষ্কার করুন। এর ফলে চোখে থাকা তেল দূর হবে। তাহলে কাজল ছড়াবে না! কটন প্যাড চোখে কাজল দীর্ঘসময় ঠিক রাখতে এই পদ্ধতি প্রয়োগ করুন। কাজল লাগানোর আগে একটি কটন প্যাড ঠান্ডা জলে ডুবিয়ে রাখুন এবং এটি আপনার চোখের পাতায় লাগান। তারপর চোখের পাতা ভাল করে মুছুন। এরপরে কাজল পেন্সিল দিয়ে চোখে কাজল পরুন। তারপরে আপনার চোখের পাতাতে ফেস পাউডার লাগান। চোখের চারপাশে রিঙ্কেলস নিয়ে চিন্তিত? এই ঘরোয়া পদ্ধতি প্রয়োগেই হবে সমস্যার সমাধান! বিবি ক্রিম বা ফাউন্ডেশন ব্যবহার করুন কাজল লাগানোর আগে চোখের চারপাশে বিবি ক্রিম বা হালকা ফাউন্ডেশন লাগান। তবে দেখবেন যাতে ক্রিম পুরোপুরি ত্বকের সঙ্গে মিশে যায়। এর ফলে চোখের অতিরিক্ত তেল চলে যাবে এবং চোখের চারপাশটা বেশ পরিষ্কার দেখাবে। এটি করলে কাজল লাগানোর পরেও স্মাজ হবে না। আর বিবি ক্রিম বা ফাউন্ডেশন ব্যবহারের ফলে চোখের চারপাশে কালো স্পটও কম হবে। পাউডার লাগান কাজল বা আইলাইনার পরার পরে চোখের চারপাশে হালকা করে পাউডার লাগিয়ে নিন। এতে চোখের চারপাশের অতিরিক্ত তেল দূর হয়।

Source link

How To Make Homemade Lip Balm : ঠোঁট ফাটছে? সুন্দর ঠোঁটের জন্য ঘরে তৈরি লিপ বাম ব্যবহার করুন, দেখুন তৈরির পদ্ধতি


Beauty oi-Purabi Jana |

Updated: Thursday, December 31, 2020, 17:16 [IST]
শীতকালে রুক্ষ-শুষ্ক আবহাওয়ার কারণে গা-হাত-পায়ের ত্বকের পাশাপাশি ঠোঁটেও ফাটল দেখা দেয়। তাই ঠোঁট ঠিক রাখতে আমরা প্রত্যেকেই লিপ বাম ব্যবহার করি। কিন্তু কেমিকেল যুক্ত লিপ বাম ব্যবহারের ফলে অনেক সময় ঠোঁট কালো হয়ে যায়। তাই আপনি ঘরে তৈরি লিপ বাম ব্যবহার করতে পারেন। তাহলে জেনে নিন বাড়িতে কীভাবে লিপ বাম তৈরি করবেন। ১) লিপ বাম তৈরির পদ্ধতি লিপ বাম তৈরি করতে দুই চামচ নারকেল তেল, এক চা চামচ শিয়া বাটার, এক চামচ মধু, আধা চামচ বিট পাউডার, এসেনশিয়াল অয়েল এবং এক চামচ ক্যাস্টর অয়েল নিন। একটি প্যানে নারকেল তেল, শিয়া বাটার এবং ক্যাস্টর অয়েল গরম করে মিশিয়ে নিন। এই মিশ্রণটিতে মধু, বিট পাউডার এবং এসেনশিয়াল অয়েল দিন। এর পরে এটি একটি ছোট কৌটো বা জারে রাখুন। তারপর এটি ফ্রিজে রাখুন। এই লিপ বাম ব্যবহার করতে পারেন। হাঁটু-কনুইয়ে কালচে দাগ? দূর করুন এই ঘরোয়া উপায়ে এই লিপ বামের উপকারিতা ঘরের তৈরি লিপ বাম ঠোঁটে আর্দ্রতা বজায় রাখে। নারকেল তেল ফাটা ঠোঁটকে ময়েশ্চারাইজ করতে সহায়তা করে। ক্যাস্টর অয়েল এবং শিয়া বাটার শুকনো ঠোঁট ঠিক করে। এসেনশিয়াল অয়েল ঠোঁটের ফোলাভাব কমায়। বিট পাউন্ডার ঠোঁটে গোলাপী রঙ দেয়। গ্রিন টি লিপ বাম উপকরণ ১ টেবিল চামচ অলিভ অয়েল, ১ টেবিল চামচ নারকেল তেল, ১ টেবিল চামচ বিওয়াক্স, দুটো গ্রিন টি ব্যাগ, এসেনশিয়াল অয়েল কয়েক ফোঁটা একদম কম আঁচে নারকেল তেল আর গ্রিন টি ব্যাগ ফুটিয়ে নিয়ে বেশ কিছুক্ষণ রেখে দিন। এরপর টি ব্যাগগুলো ফেলে দিয়ে নারকেল তেল এবং গ্রিন টি-র মধ্যে বিওয়াক্স ও অলিভ অয়েল মিশিয়ে আবার একটু গরম করে নিন। বিওয়াক্স গলে গেলে গ্যাস বন্ধ করে একটু ঠাণ্ডা হতে দিন। তারপর তাতে কয়েক ফোঁটা এসেনশিয়াল অয়েল দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে একটা ছোট কৌটোয় ভরে রেখে দিন। এবার এটা কয়েক ঘণ্টা ফ্রিজে রেখে দিলেই তৈরি গ্রিন টি লিপ বাম।

GET THE BEST BOLDSKY STORIES!

Allow Notifications

You have already subscribed

Source link

How to get pink lips naturally at home : নরম ও গোলাপি ঠোঁটের জন্য এই টিপসগুলি অনুসরণ করুন


১) অ্যালোভেরা জেল ফাটা ঠোঁট নিরাময়ে আপনি অ্যালোভেরা জেল ব্যবহার করতে পারেন। রোজ রাতে ঘুমানোর আগে ঠোঁটে অ্যালোভেরা জেল লাগান। অ্যালোভেরা জেল লাগালে ঠোঁট আর্দ্র থাকে। ২) ভ্যাসলিন, মধু এবং অলিভ অয়েল ভ্যাসলিন ঠোঁট নরম করতে বেশ কার্যকর। যদি ভ্যাসলিন লাগানোর ফলে আপনার ঠোঁট ঠিক না হয়, তবে আপনি ভ্যাসলিনের সঙ্গে মধু এবং অলিভ অয়েল মিশিয়ে ঠোঁটে লাগাতে পারেন। এটি আপনার ঠোঁট নরম করবে। ভ্যাসলিন, মধু এবং অলিভ অয়েলের পেস্ট বানিয়ে, তা দিয়ে ঠোঁট ম্যাসাজ করলে আপনার ফাটা ঠোঁট ঠিক হয়ে যাবে। ৩) চিনি ঠোঁটে চিনি দিয়ে হালকা করে স্ক্রাব করতে পারেন। এতে ঠোঁট সতেজ থাকে। ৪) মধু ও ব্রাউন সুগার মধু ঠোঁট ফাটা বন্ধ করতে পারে। এক চামচ মধুর সঙ্গে পরিমাণমতো ব্রাউন সুগার মিশিয়ে সেটা ঠোঁটে লাগান। তারপর আলতো করে মালিশ করুন। কিছুক্ষণ স্ক্রাবিংয়ের পর হালকা গরম জল দিয়ে ঠোঁট ধুয়ে ফেলুন। দেখবেন ঠোঁট গোলাপি ও নরম হবে! ঠোঁট ফাটছে? সুন্দর ঠোঁটের জন্য ঘরে তৈরি লিপ বাম ব্যবহার করুন, দেখুন তৈরির পদ্ধতি ৫) অলিভ অয়েল ও দারুচিনির গুঁড়ো এক চিমটে দারুচিনির গুঁড়ো নিয়ে এক চামচ অলিভ অয়েলের সঙ্গে ভালভাবে মিশিয়ে ঠোঁটে কিছুক্ষণ লাগিয়ে রাখুন। এরপর হালকা গরম জলে ধুয়ে ফেলুন। কাজ দেবে। ৬) মধু ও লেবু এক চামচ মধুর সঙ্গে এক চামচ লেবুর রস মিশিয়ে ঠোঁটে লাগান। এটি ৩০ মিনিট রেখে ঠান্ডা জল দিয়ে ঠোঁট ধুয়ে ফেলুন। ৭) নারকেল তেল নারকেল তেল আমাদের ত্বক ও চুলের জন্য খুব উপকারি। এর মধ্যে ময়শ্চারাইজিংয়ের গুণ থাকে, যা ঠোঁট ফাটা থেকে রক্ষা করে। তাই রাতে শোওয়ার আগে ঠোঁটে নারকেল তেল লাগান। দেখবেন ঠোঁট মোলায়েম ও উজ্জ্বল থাকবে।

Source link

চোখে কাজল পরলে ঘেঁটে যায়? এই সহজ উপায়ে হবে সমস্যার সমাধান! | How To Prevent Your Kajal From Smudging


সুতির কাপড়ে বরফ একটি নরম সুতির কাপড়ে বরফ নিয়ে চোখের চারপাশটা হালকা করে ম্যাসাজ করুন। এর পরে একটা শুকনো কাপড় দিয়ে চোখ মুছে নিন। তাহলে চোখের চারপাশের অতিরিক্ত তেল চলে যাবে এবং কাজল অনেকক্ষণ থাকবে। টোনার ব্যবহার করুন আপনি টোনার ব্যবহার করতে পারেন। একটি কটন প্যাড নিন, তারপরে তাতে টোনার লাগান। এরপর এই কটন প্যাড দিয়ে চোখের পাতাগুলি পরিষ্কার করুন। এর ফলে চোখে থাকা তেল দূর হবে। তাহলে কাজল ছড়াবে না! কটন প্যাড চোখে কাজল দীর্ঘসময় ঠিক রাখতে এই পদ্ধতি প্রয়োগ করুন। কাজল লাগানোর আগে একটি কটন প্যাড ঠান্ডা জলে ডুবিয়ে রাখুন এবং এটি আপনার চোখের পাতায় লাগান। তারপর চোখের পাতা ভাল করে মুছুন। এরপরে কাজল পেন্সিল দিয়ে চোখে কাজল পরুন। তারপরে আপনার চোখের পাতাতে ফেস পাউডার লাগান। চোখের চারপাশে রিঙ্কেলস নিয়ে চিন্তিত? এই ঘরোয়া পদ্ধতি প্রয়োগেই হবে সমস্যার সমাধান! বিবি ক্রিম বা ফাউন্ডেশন ব্যবহার করুন কাজল লাগানোর আগে চোখের চারপাশে বিবি ক্রিম বা হালকা ফাউন্ডেশন লাগান। তবে দেখবেন যাতে ক্রিম পুরোপুরি ত্বকের সঙ্গে মিশে যায়। এর ফলে চোখের অতিরিক্ত তেল চলে যাবে এবং চোখের চারপাশটা বেশ পরিষ্কার দেখাবে। এটি করলে কাজল লাগানোর পরেও স্মাজ হবে না। আর বিবি ক্রিম বা ফাউন্ডেশন ব্যবহারের ফলে চোখের চারপাশে কালো স্পটও কম হবে। পাউডার লাগান কাজল বা আইলাইনার পরার পরে চোখের চারপাশে হালকা করে পাউডার লাগিয়ে নিন। এতে চোখের চারপাশের অতিরিক্ত তেল দূর হয়।

Source link