Tag Archives: boost immunity

weight loss drink: জাদু আছে জুসে, ওজন কমাবে বিট! জানুন কীভাবে… – beetroot juice – a potent weight loss drink that can help lower blood pressure, boost immunity

এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: একটু ওজন ঝরানোর (weight loss) জন্য কত কসরতই না করতে হয়। সকালে উঠে হাঁটা, তারপর সুযোগ হলে জিম, জীবন থেকে ফ্যাট, কার্বোহাইড্রেট একেবারে বাদ দেওয়া আরও কত কিছু। অনেকেই আবার এই রুটিন একমায় মেনে চললেই হাঁপিয়ে যান। তখন মনে হয়, ফাইবার, মিনারেলস আর ভিটামিন আর কতদিন! এই ঠান্ডার নানা রঙের কত সবজি বাজারে। কিন্তু সুগার হতে পারে এই ভয়ে মাটির নীচের সবজি বাদ দিয়েছেন তালিকা থেকে। অযথা ভয় না পেয়ে নির্ভয়ে খান। বিট-গাজরের জুস বা বিটের সঙ্গে আপেল বেদানার জুস বানিয়ে খান। শরীরের ডিটক্সিফিকেশন হবে। তাতে কমবে ওজন, ত্বকে আসবে ঔজ্বল্য। এছাড়াও এখন বাজারে বিটের জ্যাম পাওয়া যায়। তারমধ্যেও কিন্তু ভিটামিন থাকে। বিট এমন একটা খাবার যা সহজে কেউ পছন্দ করে না। আর ওজন কমানোর বিষয়ে যে এভাবে বিট কাজে আসতে পারে, তা অনেকেরই অজানা।তবে শুধু ওজন কমানোই নয়। নিয়মিত বিট খেলে আরও উপকার পেতে পারেন। বিট খেলে বেশিদিন সুস্থ ভাবে বেঁচে থাকার সম্ভাবনা বেড়ে যায়। তাই রোজ গরম গরম এক বাটি বিটের স্যুপ খেলেই সুস্থ থাকতে পারবেন। এছাড়াও বেশ কিছু রোগ প্রতিরোধে সাহায্য করে এই সবজি। শরীরকে তরতাজা ও শক্তিশালী রাখতে এই খাবারের জুড়ি মেলা ভার। হজমে সাহায্য করতেও সক্ষম বিট। শরীর থেকে অতিরিক্ত টক্সিন বের করে দেয় বিট। ফলে সহজেই ওজন নিয়ন্ত্রণে থাকে। আর ক্যালরি কম থাকায় পেট ভরানোর জন্য খেতেই পারেন বিটের তরকারি। বিটের জুসচটজলদি ওজন কমাতে কেন বিটের জুস খাবেন তা একবার দেখে নিনবিটের জুসে প্রচুর পরিমাণ মিনারেল আর ভিটামিন থাকে। এছাড়াও ফাইবার থাকে। যা ওজন কমাতে সাহায্য করে। এছাড়াও ১০০ এম এল বিটের জুসে ক্যালোরির পরিমাণ ৩৫। বিটের সঙ্গে গাজর, আপেল, টমেটো এবং বেদানার জুস মিশিয়ে নিন। তাহলে তার পুষ্টিগুণ হবে অনেক বেশি এবং ওজনও ঝরবে তাড়াতাড়ি।যেভাবে বানাবেনবিট-গাজরের জুস বিট ওগাজর ভালো করে কুচিয়ে নিয়ে একবার মিক্সিতে ঘুরিয়ে নিন। এবার ওর সঙ্গে আধ কাপ জল, ৫ চামচ লেবুর রস, একচিমটে নুন ও পুদিনা পাতা যোগ করে একগ্লাস খান।বিট-আপেল জুসএকটি আপেলের খোসা ছাড়িয়ে ভালো করে টুকরো করে নিন। এবার মিক্সিতে আপেল, বিট, গোলমরিচ, নুন দিয়ে ভালো করে ব্লেন্ড করে নিন। উপর থেকে দারচিনির গুঁড়ো মিশিয়ে খান।বিট-বেদানা জুসবিট কুচনো ২ কাপ এবং বেদানা এককাপ নিয়ে ওর সঙ্গে লেবুর রস ও গোলমরিচ দিয়ে ভালো করে ব্লেন্ড করে নিন। এবার খালি পেটে দুগ্লাস খান।এই সময় ডিজিটালের লাইফস্টাইল সংক্রান্ত সব আপডেট এখন টেলিগ্রামে। সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন এখানে।

Source link

health & fitness News : করোনাকালে ইমিউনিটি বাড়াতে টোটকা দিলেন শেফ সঞ্জীব কাপুর – amid coronavirus, chef sanjeev kapoor shares tips on boost immunity

হাইলাইটসরোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার সঙ্গে মনের ঘনিষ্ঠ যোগ রয়েছে। শরীরে যখনই কোনও বড় পরিবর্তন হয়, মানসিক চাপ বাড়ে, ঘুম কমে যায়, দুর্বল হয় প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা৷ রোগ সারতে চায় না৷ কারণ সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই চালাতে গেলে মনকে তরতাজা থাকতে হবে, ঘুম হল যার অন্যতম মাধ্যম। এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: লকডাউনের দিনগুলোতে একপ্রকার ঘরে বন্দি অবস্থাতেই আমরা কাটিয়ে চলেছি। ইচ্ছে হলেই জমিয়ে খাওয়া দাওয়া নেই। এর মধ্যে চলছে হয় গুমোট গরম নয়তো ঝড়-বৃষ্টি। তার সঙ্গে যোগ হয়েছে কোভিড-১৯-এর ভয়। সাধারণ ফ্লু থেকে করোনা, সব রকম অসুখ থেকে বাঁচতে এই সময় শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার উপর জোর দিচ্ছেন চিকিৎসক ও গবেষকরা। করোনাভাইরাসের ঘন ঘন চরিত্রবদলের দায়ে প্রতিষেধক ও ওষুধ দুই-ই এই সময় অধরা। বিশেষ করে বাড়ির শিশু ও বয়স্কদের ক্ষেত্রে সে তার মরণকামড় বসাচ্ছে। শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে বাড়ানো ও মাস্ক-সাবান-স্যানিটাইজার ব্যবহার করে অসুখের সঙ্গে লড়াই করা ছাড়া এই মুহূর্তে কোনও বিকল্প পথও খোলা নেই। তবে এই মুহুর্তে সোশ্যাল মিডিয়ায় ট্রেন্ডিং হচ্ছে বাড়িতে বানানো নানা সহজ চটপটে রেসিপি। কিন্তু এই করোনাকালে কেমন খাবার খাবেন, কেমনই-বা রাখবেন আপনার রান্নাঘর-এ সব নিয়ে বললেন জনপ্রিয় শেফ সঞ্জীব কাপুর।শেফ জানিয়েছেন, যে কোনও ভাইরাস, ব্যাকটেরিয়ার সঙ্গে লড়তে প্রাথমিক ভাবে জরুরি ইমিউনিটি বাড়ানো অর্থাৎ রোগ প্রতিরোধের ক্ষমতা বাড়ানো। কিন্তু কেমন খাবার খেলে ইমিউনিটি বাড়বে?শেফ জানিয়েছেন, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার সঙ্গে মনের ঘনিষ্ঠ যোগ রয়েছে। শরীরে যখনই কোনও বড় পরিবর্তন হয়, মানসিক চাপ বাড়ে, ঘুম কমে যায়, দুর্বল হয় প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা৷ রোগ সারতে চায় না৷ কারণ সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই চালাতে গেলে মনকে তরতাজা থাকতে হবে, ঘুম হল যার অন্যতম মাধ্যম। সুতরাং চিন্তা কমান, রাতে ঘুমান। ইমিউনিটি বাড়তে গেলে শরীরের পাশপাশি মনেরও যত্ন নিতে হবে। এই পরিস্থিতিতে খুব জরুরি হল রাতের ঘুম যা রোগ প্রতিরোধের ক্ষমতা বাড়ানোর জন্য খুব জরুরি। তবে হ্যাঁ, এই করোনা পরিস্থিতিতে শরীর ঠিক রাখতে হলে কিছু জরুরী জিনিসের উপর নজর দিতে হবে। যেমন-হালকা খাবার খেতে হবে। তেলমশলা যুক্ত খাবার এড়িয়ে যাওয়াই ভালো। যে খাবার এখন খাওয়া উচিত সেগুলি হল, ভিটামিন বি-১২, ভিটামিন বি৩, ভিটামিন সি যুক্ত খাবার, প্রোটিন এবং অবশ্যই মরসুমি ফল ও সবজি।এই করোনাকালে বাজার থেকে ফল বা সবজি কেনা হলে সেগুলি জীবাণুমুক্ত করার সময় ভালো করে পরিস্কার জল দিয়ে ধুয়ে নিতে হবে। শেফ জানিয়েছেন, সবজি বা ফল বাজার থেকে নিয়ে আসার পর সেগুলিকে অন্তত এক মিনিট ধরে স্প্রে করতে হবে। এর পর চলমান জলের (Running Water) সাহায্যে ভালো করে ধুয়ে নিতে হবে। তবে, শাক-সবজি, ফলের পাশাপাশি রান্নাঘরেরও যত্ন নেওয়া প্রয়োজন। শেফ বলেছেন, আপনার রান্নাঘরটিকে ভালো করে পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে। স্যানিটাইজ করতে হবে। কোভিড-১৯ পরিস্থিতিতে শিশু এবং বয়স্কদের খাদ্য তালিকায় কী কী রাখা উচিত?নানা রকমের স্যালাড, শাক-সবজি, মরসুমি ফল অবশ্যই রাখতে হবে। সারাদিনে আপনি যা খাচ্ছেন, তাতে যদি সামান্য অ্যান্টিসেপ্টিক, অ্যান্টিব্যাক্টেরিয়াল ইমিউনিটি বাড়াতে কার্যকরী ভূমিকা নেবে।এই সময় ডিজিটাল এখন টেলিগ্রামেও। সাবস্ক্রাইব করুন, থাকুন সবসময় আপডেটেড। জাস্টএখানে ক্লিক করুন।

Source link