Tag Archives: Coronavirus

Coronavirus in West Bengal: ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত মাত্র ২৫২, করোনা-মুক্ত সময়ের অপেক্ষায় বাংলা – within last 24 hours 252 people effected by coronavirus in west bengal , dead 7

হাইলাইটসবাংলায় মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৫ লক্ষ ৫৮ হাজার ৩৫৫ জন।তাঁদের মধ্যে ৫ লক্ষ ৫২ হাজার ০৮২ জন।নতুন করে সাত জনের মৃত্যু হওয়ায় মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১০, ১২২ জন।এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: দরজায় কড়া নাড়ছে ভোট। আর তার জন্য বাংলার সমস্ত রাজনৈতিক দলের নেতা-কর্মীরাই পুরোদমে পথে নেমে গিয়েছেন। উপচে পড়ছে সভা-সমিতির মাঠ। এই পরিস্থিতিতে অনেকেরই আশঙ্কা ছিল, ভিড়ের ঠেলায় আবার বাড়বে না তো করোনা? কিন্তু রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের বুলেটিন বলছে, আশঙ্কার দিন বোধহয় ফুরোতে চলেছে। সোমবার রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের বুলেটিন অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে বাংলায় করোনা আক্রান্ত হয়েছেন মাত্র ২৫২ জন। মৃত্যুর সংখ্যাও কমে নেমে এসেছে মাত্র সাতে।বুলেটিন অনুযায়ী, এই মুহূর্তে বাংলায় মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৫ লক্ষ ৫৮ হাজার ৩৫৫ জন। কিন্তু তাঁদের মধ্যে ৫ লক্ষ ৫২ হাজার ০৮২ জন। নতুন করে সাত জনের মৃত্যু হওয়ায় মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১০, ১২২ জন।করোনা পরিস্থিতির শুরু থেকেই কলকাতা ও উত্তর ২৪ পরগনার পরিস্থিতি ছিল সবচেয়ে খারাপ। কিন্তু বর্তমানে এই দুই জেলাতেও আশার আলো। গত ২৪ ঘণ্টায় কলকাতায় করোনা আক্রান্ত মাত্র ৫৭ জন, মৃত্যু ৩ জনের, উত্তর ২৪ পরগনায় নতুন আক্রান্ত ৭৪ ও মৃত ১। এছাড়াও নদীয়াতে ২ জন ও হুগলিতে একজন মারা গিয়েছেন।অপরদিকে, দেশে প্রথম দফার কোভিড টিকাকরণের প্রক্রিয়া ইতিমধ্যেই শুরু হয়েছে এবং গত সাত দিনে ১৬ লক্ষেরও বেশি প্রথম সারির কোভিড যোদ্ধাদের ওই টিকা দেওয়া হয়েছে। কিন্তু, প্রথম ডোজ নেওয়ার ২৮ দিন পর দ্বিতীয় ডোজ না নেওয়া পর্যন্ত ওই প্রতিষেধক কার্যকরী হবে না। অর্থাৎ, টিকাকরণের প্রক্রিয়া শুরু হলেও কোভিড নিয়ন্ত্রণে তার প্রভাবে এখনও পড়েনি।আরও পড়ুন: ভারতে কোভিড ভ্যাকসিন বিক্রিতে আগ্রহী টাটারা, চলছে আলোচনাএ দিকে, কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক জানিয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় কোভিডে দেশে ১৩১ জনের মৃত্যু হয়েছে, যা গত আট মাসে সর্বনিম্ন। সবচেয়ে বড় কথা, কেরালা ও মহারাষ্ট্র ছাড়া দেশের বাকি সব রাজ্যে দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যা এখন এক অঙ্কের ঘরে (১ থেকে ৯) নেমে এসেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় মহারাষ্ট্রে মারা গিয়েছেন ৪৫ জন এবং কেরালায় ২০ জন।এর থেকে একটা ব্যাপার স্পষ্ট, ভ্যাকসিন বাজারে আসা এবং গণটিকাকরণ শুরু হওয়ার আগেই কোভিডের প্রাণঘাতী ক্ষমতা অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে আনা গিয়েছে।এই সময় ডিজিটাল এখন টেলিগ্রামেও। সাবস্ক্রাইব করুন, থাকুন সবসময় আপডেটেড। জাস্ট এখানে ক্লিক করুন।

Source link

Vaccination For Senior Citizens: প্রবীণদের করোনা টিকা কর্মসূচি, আজ থেকেই শহরে শুরু নাম নথিভুক্তকরণ – senior citizens of kolkata will be able to register their name for vaccination from monday

হাইলাইটসপ্রবীণ নাগরিকদের টিকাকরণের জন্য সোমবার থেকেই নাম নথিভুক্ত করবে কলকাতা পুরসভা।পুরপ্রশাসক ফিরহাদ হাকিমের ওয়ার্ডের ‘মেয়রর্স ক্লিনিক’ থেকে শুরু হবে এই নথিভুক্তকরণ কর্মসূচি।এই তালিকা পাঠানো হবে দিল্লিতে।এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: টিকাকরণের জন্য আজ, সোমবার থেকে প্রবীণ নাগরিকদের নাম নথিভুক্ত করবে কলকাতা পুরসভা। পুর প্রশাসক ফিরহাদ হাকিমের ওয়ার্ডের ‘মেয়রর্স ক্লিনিক’ থেকে শুরু হবে এই নথিভুক্তকরণ কর্মসূচি। রবিবার চেতলায় ‘দুয়ারে সরকার’-এর শিবিরে এসে একথা জানিয়েছেন ফিরহাদ। প্রাথমিকভাবে পঞ্চাশোর্ধ্ব ব্যক্তিরাই নিজেদের নাম নথিভুক্ত করতে পারবেন। সেই তালিকা পাঠানো হবে দিল্লিতে।রবিবার ফিরহাদ হাকিম বলেন, ‘বর্তমানে কলকাতা পুরসভার যে পাঁচটি পুর প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে করোনার টিকা দেওয়া হচ্ছে সেখানেই নাম নথিভুক্ত করতে পারবেন প্রবীণ নাগরিকরা।‘ প্রসঙ্গত, বর্তমানে শহর কলকাতার ১১, ৩৭, ৫৭, ৮২ এবং ১১১ নম্বর ওয়ার্ডের স্বাস্থ্যকেন্দ্রে দেওয়া হচ্ছে করোনার টিকা। করোনা প্রাণ কাড়ল করোনা যোদ্ধার, এখনো পর্যন্ত প্রয়াত ৯০ জনের বেশি চিকিৎসকফিরহাদ হাকিম আরও বলেন, ‘সাধারণ মানুষের কাছে টিকা পৌঁছে দিতে বদ্ধপরিকর রাজ্য প্রশাসন।‘ সেই লক্ষ্যেই সোমবার প্রথমে মেয়র্স ক্লিনিকে একটি কাউন্টার তৈরি করা হবে। কাউন্টারে প্রবীণরা নিজের পরিচয়পত্র দেখিয়ে নাম নথিভুক্ত করতে পারবেন। কিন্তু, নাম নথিভুক্ত করার সঙ্গে সঙ্গেই পাওয়া যাবে না ভ্যাকসিন। নথিভুক্ত নাম পাঠানো হবে কেন্দ্রের কাছে। কেন্দ্র টিকা বরাদ্দ করলে তারপর তা দেওয়া হবে শহরের প্রবীণদের।এদিন যুব সমাজের উদ্দেশ্যে বার্তা দিয়ে কলকাতার পুর প্রশাসক বলেন, ‘তরুণ প্রজন্মের চিন্তা করার কোনও কারণ নেই। আমার মেয়ের করোনা হয়েছিল। নিজে থেকেই সে সুস্থ হয়ে গিয়েছে। যাঁরা আমার মতো একটু বয়স্ক তাঁরা সংকটে পড়তে পারেন। তাই তাঁদের প্রাধান্য দেওয়া হচ্ছে।’ভায়ালে অবশিষ্ট টিকার অপচয় নয়, কড়া নির্দেশ রাজ্যেরপ্রসঙ্গত, প্রশাসনের তরফে আগেই জানানো হয়েছিল, প্রথম সারির করোনা যোদ্ধাদের পর টিকা দেওয়া হবে প্রবীণ নাগরিকদের। এবার সেই পথেই হাঁটতে চলেছে কলকাতা পুরসভা। ফিরহাদ হাকিম বলেন, পশ্চিমবঙ্গে করোনার প্রকোপ অনেক কম, যা বাংলার মানুষের জন্য অত্যন্ত সুখবর কিন্তু সাধারণ মানুষকে অসচেতন হলে চলবে না। মাস্ক পরা থেকে শুরু করে যাবতীয় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। উল্লেখ্য়, গতকাল পর্যন্ত রাজ্যে মোট করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৫,৬৭,৭১৪। প্রাণ হারিয়েছেন মোট ১০,১০৭ জন করোনা রোগী। রাজ্যে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৫,৫১,২১১ জন। বর্তমানে করোনা পজিটিভ ৬,৩৯৬ জন।

Source link

Covaxin Arrived At Kolkata: কোভিশিল্ডের পর এবার রাজ্য পেল কোভ্যাক্সিন – covid-19 vaccine covaxin arrived at kolkata

হাইলাইটসএবার রাজ্যে পেলো ভারত বায়োটেকের তৈরি কোভ্যাক্সিন।শুক্রবার ৫৬৪৮ টি ভায়ালে ভ্য়াকসিন আসে।কলকাতা বিমানবন্দর থেকে সেগুলি নিয়ে যাওয়া হবে ভ্য়াকসিন সংরক্ষণাগারে। এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: এবার রাজ্য পেল সম্পূর্ণ দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি ভারত বায়োটেকের কোভ্যাক্সিন। প্রথম ধাপে রাজ্য় পেয়েছিল অস্কফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় আবিষ্কৃত সেরাম ইন্সটিটিউটের তৈরি কোভিশিল্ড। শুক্রবার ৫৬৪৮টি ভায়ালে কোভ্য়াক্সিন কলকাতাতে আসে। বিমানবন্দর থেকে টিকাগুলি নিয়ে যাওয়া হয়েছে বাগবাজারের কেন্দ্রীয় সংরক্ষণাগারে। বিমানবন্দর থেকে বাগবাজারে যাওয়ার পথে ছিল কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা। আপাতত বাগবাজার থেকেই রাজ্যে সরবরাহ করা হবে কোভ্য়াকসিন। দেশজুড়ে শুরু হয়েছে টিকাকরণ কর্মসূচি। প্রথম ধাপে পশ্চিমবঙ্গ পেয়েছিল কোভিশিল্ড ভ্য়াকসিন। ৮৩টি বাক্সে ৯ লাখ ৬০টি টিকার ডোজ এসেছিল রাজ্যে। স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে খবর, আজ ২৪টি বাক্সে ৫ হাজার ৬৪৮টি ভায়াল কোভ্য়াকসিন ঢুকেছে রাজ্যে। অর্থাৎ, নতুন করে প্রায় এক লক্ষের বেশি টিকার ডোজ পেল পশ্চিমবঙ্গ। COVID-টিকা নেওয়ার পর ছাড়তে হবে মদ? কী বলছেন বিশেষজ্ঞরা, জানুন…প্রসঙ্গত, বর্তমানে প্রতি সপ্তাহে মঙ্গল, বৃহস্পতি ও শুক্রবার রাজ্যের ২০৭টি কেন্দ্রে চলছে টিকাকরণ। টিকাকরণের দিনগুলিতে রাজ্য়জুড়ে ২০ হাজার ৭০০ জন স্বাস্থ্য়কর্মীকে টিকা দেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে এগোচ্ছে রাজ্য় স্বাস্থ্য দফতর। কিন্তু, কো-উইন অ্যাপে সমস্যা থাকায় বিপাকে পড়তে হচ্ছিল। প্রথম সপ্তাহের টিকাকরণে আশানুরূপ সাড়া না পাওয়ার জন্য অ্যাপে সমস্যাকেই দায়ী করেছে রাজ্য় স্বাস্থ্য দফতর। এরাজ্যে টিকাকরণের প্রথম দিনে ভ্য়াকসিন দেওয়া হয়েছিল ১৫ হাজার ৭০৭ জনকে। দ্বিতীয় দিন ১৪ হাজার ১১০ জন এবং তৃতীয় দিন টিকা দেওয়া হয় ১৩ হাজার ৬৯৩ জনকে।অন্যদিকে, কোভ্য়াক্সিন কতটা নিরাপদ তা নিয়ে বিস্তর প্রশ্ন উঠেছে। তৃতীয় দফার পরীক্ষামূলক প্রয়োগের ফল প্রকাশের আগেই ছাড়পত্র দেওয়া নিয়েও উঠেছিল বিস্তর প্রশ্ন।

Source link

Covid vaccine: COVID-টিকা নেওয়ার পর ছাড়তে হবে মদ? কী বলছেন বিশেষজ্ঞরা, জানুন… – does drinking alcohol reduce immunity and resistance to covid-19?

হাইলাইটসনা, এমন নয় যে, মদ না ছুঁলেই করোনা থেকে নিরাপদ থাকবেন আপনি। বিষয়টা হল, যদি করোনার ভ্যাকসিন নিয়ে নিজেকে করোনাভাইরাসের থাবা থেকে সুরক্ষিত রাখতে চান, তবে কিছু বিধি নেষেধ মেনে চলতে হবে। এমনই জানিয়ে দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: না, এমন নয় যে, মদ না ছুঁলেই করোনা থেকে নিরাপদ থাকবেন আপনি। বিষয়টা হল, যদি করোনার ভ্যাকসিন নিয়ে নিজেকে করোনাভাইরাসের থাবা থেকে সুরক্ষিত রাখতে চান, তবে কিছু বিধি নেষেধ মেনে চলতে হবে। এমনই জানিয়ে দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। প্রাণ বাঁচাতে গেলে টিকা নির্মাতাদের পরামর্শ মেনে চলা ছাড়া উপায় নেই।যুক্তরাষ্ট্রে রোজ প্রায় ২০০,০০০ এরও বেশি টিকা দেওয়া হয়েছে। সেপ্টেম্বরের মধ্যে সকলকে এই টিকা দিয়ে দেওয়া হবে বলে জানা গিয়েছে। মার্চের মধ্যে ৫০ বছরেরও বেশি বয়স্কদের এই টিকা দেওয়ার কাজ শেষ করা হবে। তবে, লকডাউনে দীর্ঘদিন অফিস-আদালত, রেস্তারাঁ বন্ধ থাকার পর সব কিছুই স্বাভাবিক নিয়মে খুলতে শুরু করেছে। খুলেছে বারও। সুরাপ্রেমীদের মন আনন্দে মেতে উঠলেও টিকা নেওয়ার পর অ্যালকোহল পান করা উচিত কিনা সে বিষয়ে পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। ভ্যাকসিন দেওয়ার পরে আপনার কি অ্যালকোহল পান করা উচিত? এতে কোনও পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া হবে কি?এ রাজ্যে অ্যালকোহলের বিক্রি বরাবরই চড়া। ফি বছর ৮০ লক্ষ কেস বিয়ার বিক্রি হয় বঙ্গে। একেকটি কেসে ২৪টি করে বিয়ারের বোতল থাকে। অন্যদিকে, বছরে আইএমএফএল বা ইন্ডিয়ান মেড ফরেন লিকারের বিক্রি হয় ১.৪ কোটি কেস। পরিমাণেই মালুম হয় বাংলায় মদ বিক্রির বহর।ওজন কমাতে খাওয়া-দাওয়া সব ছেড়ে দিয়েছেন? কষ্ট না করে ভরসা রাখুন জাপানি ওয়াটার থেরাপি!এখন প্রশ্ন হল, টিকা নেওয়ার পর ঠোঁটে গ্লাস ছোঁয়ান যাবে কী?করোনার টিকা নিতে হলে দূরে রাখতে হবে সোনালি তরল। ঠোঁটে গ্লাস ছোঁয়ালে কাজ করবে না কোভিড (COVID-19) টিকা। এমনটাই জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। তাঁরা জানিয়েছেন, মদ ওই সময়ে শরীরের ইমিউনিটি পাওয়ারকে কমিয়ে দেবে। ফলে কোভিড-১৯-এর বিরুদ্ধে লড়ার জন্য শারীরিক অবস্থা যেমন থাকা কাম্য, তা থাকবে না। তবে এর বিরুদ্ধমতও বাজারে ঘুরছে। বলা হচ্ছে, এক পাত্তর শ্যাম্পেন মোটেই শরীরের ইমিউনিটি পাওয়ার কমবে না। তাঁদের ব্যাখ্যায়, চিকিৎসা পরিভাষায় অ্যালকোহলকে বলে ইমিউনো সাপ্রেসেন্ট। অর্থাৎ অ্যালকোহল রক্তে মেশার পর শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায়। সংক্রামক স্ট্রেনকে শরীরে প্রবেশ করানোর আগে বিজ্ঞানসম্মত উপায়ে নিষ্ক্রিয় করে দেওয়া হচ্ছে। এই নিষ্ক্রিয় ভাইরাল স্ট্রেন অত্যন্ত দুর্বল। তার আর শরীরে ঢুকে প্রতিলিপি তৈরি করার ক্ষমতা নেই। এই স্ট্রেন শরীরে ঢুকে বি সেলকে সক্রিয় করে তুলবে। যা অ্যান্টিবডি তৈরির পক্রিয়াকে উজ্জিবিত করবে। কিন্তু অ্যালকোহল এই প্রক্রিয়াকেই ব্যাহত করবে।পলিসিস্টিক ওভারি নিয়ে ভয়? অসুখ এড়াবেন কোন পথে? পড়ুন বিশেষজ্ঞের পরামর্শ…কতদিন বন্ধ রাখতে হবে মদ খাওয়া?রাশিয়ার কনজিউমার হেল্থের প্রধান আন্না পপোভা একটি রেডিয়ো স্টেশনে জানিয়েছেন, স্পুটনিক-ভি’র প্রথম দু’টি ডোজ নেওয়ার আগে গ্রাহককে অন্তপক্ষে দু’সপ্তাহ মদ থেকে দূরে থাকতে হবে। এবং টিকা নেওয়ার পরে আরও চল্লিশদিন তাঁকে মদ্যপান থেকে বিরত থাকতে হবে। এসব শুনে এর মধ্যেই অধিকাংশ মানুষ হতাশ হয়ে পড়েছেন।কোভিড টিকায় পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া আছে?ক্লান্তি ভাবমাথাধরাদুর্বলতাঅস্বস্তি বোধ করাএই সময় ডিজিটালের লাইফস্টাইল সংক্রান্ত সব আপডেট এখন টেলিগ্রামে। সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন এখানে।

Source link

covid vaccine west bengal: টিকাকরণের দ্বিতীয় দিনেও পূরণ হল না লক্ষ্যমাত্রা – west bengal health department have not got expected response on the second day of coronavirus vaccination

হাইলাইটসআজ গোটা রাজ্য়ে টিকা পেয়েছে ১৪ হাজার ১১০ জন। কো-উইন অ্য়াপটি ঠিকমতো কাজ না করায় জটিলতার সৃষ্টি হয়েছে।ভ্য়াকসিন নেওয়ার পর ৩৪ ও ৪৬ বছর বয়সী দুই মহিলা স্বাস্থ্য়কর্মী অসুস্থ হয়ে পড়েন।এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: সমস্যায় ফেলেছে কো-উইন অ্যাপ, রাজ্যে টিকাকরণের দ্বিতীয় দিনেও পাওয়া গেল না আশানুরূপ সাড়া। আজ সপ্তাহের প্রথম দিনে রাজ্যজুড়ে ২০৭টি কেন্দ্রেই টিকাকরণের আয়োজন করা হয়েছিল। কিন্তু রাজ্যে টিকাকরণের দ্বিতীয় দিনেও পূরণ হয়নি লক্ষ্যমাত্রা। রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে খবর, আজ গোটা রাজ্যে টিকা পেয়েছে ১৪ হাজার ১১০ জন।দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর অবশেষে হাতের নাগালে এসেছে করোনাভাইরাসের টিকা। প্রথম ধাপে রাজ্যে নির্ধারিত টিকাকরণের দিন ২০ হাজার ৭০০ জন প্রথম সারির করোনা যোদ্ধাকে টিকা দেওয়ার পরিকল্পনা করেছিল রাজ্য প্রশাসন। এর মধ্যে শনিবার রাজ্যের ১৫ হাজার ৭০৭ জন কোভিড যোদ্ধাকে এই টিকা দেওয়া হয়েছিল। সেই সংখ্যা আজ আরও কমে হয়েছে ১৪ হাজার ১১০ জন। কেন টিকা দেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা পূরণ হচ্ছে না, তা নিয়ে শুরু হয়েছে জোর গুঞ্জন।ভায়ালে অবশিষ্ট টিকার অপচয় নয়, কড়া নির্দেশ রাজ্যেরযদিও প্রাথমিকভাবে রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর মনে করছে, কো-উইন অ্যাপটি ঠিকমতো কাজ না করায় জটিলতার সৃষ্টি হয়েছে। বহু প্রথম সারির করোনা যোদ্ধার কাছে টিকা নেওয়ার জন্য মেসেজ পৌঁছায়নি, জানা গেছে এমনটাই। যাদের কাছে মেসেজ পৌঁছায়নি, তাদের সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হয় স্বাস্থ্য দফতরের তরফে।অন্যদিকে আজ ভ্যাকসিন নেওয়ার পর ৩৪ ও ৪৬ বছর বয়সী দুই মহিলা স্বাস্থ্যকর্মী অসুস্থ হয়ে পড়েন। তাঁদের একজনকে ডায়মন্ড হারবার সুপার স্পেশ্যালিটি হাসপাতাল ও আরেকজনকে ফালাকাটা মাল্টি স্পেশ্যালিটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়াও রাজ্য জুড়ে আজ ভ্যাকসিন নেওয়ার পর মোট ১৪ জন অসুস্থ হয়ে পড়েন। চিকিৎসকরা জানাচ্ছেন, এই বিষয়টিকে ‘অ্যাডভার্স ইভেন্ট ফলোয়িং ইমিউনাইজেশন’ বলা হয়। অন্যান্য টিকা নেওয়া পরেও এই ধরনের সামান্য অসুস্থতা অনেকে মধ্যে লক্ষ্য করা যায়। বিষয়টি নিয়ে উদ্বেগের কোনও কারণ নেই বলেও জানাচ্ছেন তাঁরা।

Source link

mouth infection: জিভে ইনফেকশনও করোনার নতুন উপসর্গ, বলছেন বিশেষজ্ঞরা – infection in mouth can be an early sign of covid 19

এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: খাবারের স্বাদ না পাওয়া বা গন্ধ না পাওয়ার লক্ষণ তো এখন সকলেই জেনে গেছেন, তবে বিজ্ঞানীরা আবার মারণ করোনার নতুন লক্ষণ খুঁজে পেলেন, থাকুন সাবধান, হন সতর্ক৷ এই বিরল উপসর্গের জন্য মুখের ভিতরে ইনফেকশন হতে পারে বলে জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা।হাজারো বিতর্কের মধ্যেই ভ্যাকসিন বাজারে আসতে যখন সবে কিছুটা আশার আলো ছড়িয়েছিল, তখনই করোনা নিয়ে নতুন এই উপসর্গের কথা জানালেন বিশেষজ্ঞরা। কিংস কলেজ লন্ডন-এর অধ্যাপক টিম স্পেকটর এক হেলথ ম্যাগাজিনকে জানিয়েছেন, করোনার প্রাথমিক উপসর্গ দেখা যেতে পারে মুখের ভিতর। বেশ কয়েকজন কোভিডের রোগীদের মধ্যেই এই উপসর্গ তিনি লক্ষ্য করেছেন। মুখের ভিতরে ইনফেকশন, জিভে অস্বস্তি লক্ষ্য করা যাচ্ছে। প্রতি পাঁচজন করোনা রোগীর মধ্যে একজনের এই উপসর্গের অভিজ্ঞতা রয়েছে।তাই এই উপসর্গের সঙ্গে অন্য উপসর্গ দেখা গেলে তখনই সতর্ক হতে বলছেন চিকিৎসকরা। কিন্তু উপসর্গ তেমন ক্ষতিকর পর্যায়ে পৌঁছায় না বলে জানা যাচ্ছে। সময়ের সঙ্গে নিজে থেকেই এই সমস্যা কমতে থাকে। তবে এই উপসর্গের সঙ্গে জ্বর, খুসখুসে কাশি, শ্বাসকষ্টের মতো উপসর্গ দেখা গেলে আইসোলেশনের পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। বঙ্গে দ্বিতীয় দফার করোনা ভ্যাকসিনের চালান আসতে চলেছে আগামী সপ্তাহেই। এমনটাই স্বাস্থ্য ভবন সূত্রে জানা গিয়েছে। স্বাস্থ্য ভবনের এক আধিকারিক জানিয়েছেন, কেন্দ্রের তরফে জানানো হয়েছে, আগামী সপ্তাহেই আসবে করোনার ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় চালান। পুনের সেরাম ইন্সটিটিউট থেকে আসবে ভ্যাকসিন। তবে কত ভ্যাকসিন আসবে তা এখনো জানায়নি কেন্দ্র। এই সময় ডিজিটালের লাইফস্টাইল সংক্রান্ত সব আপডেট এখন টেলিগ্রামে। সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন এখানে।

Source link

Firhad Hakim: এই ভ্যাকসিন মোদীর নয়, বিজেপির নয়, এই ভ্যাকসিন দেশবাসীর: ফিরহাদ হাকিম – neither bjp not even modi this vaccine belongs to common people said firhad hakim

হাইলাইটসশরীরে যাওয়ার পর নিজেকে ৬২ নয় ৪২ বছরের মনে হচ্ছে, এমনটাই জানালেন আপ্লুত ফিরহাদ।মুখ্য়মন্ত্রী সকাল থেকে পরিস্থিতির ওপর নজর রাখছেন।ফিরহাদ হাকিম বলেন, ‘মোদী নয়, দেশবাসীর কাছে করোনার টিকা পৌঁছে দিয়েছেন দেশের বিজ্ঞানীরা।এই ভ্য়াকসিন মোদীর নয়, বিজেপির নয়, এই ভ্য়াকসিন দেশবাসীর।’এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী মোদী ও বিজেপিকে বিঁধে বিজ্ঞানীদের জয়গান করলেন রাজ্য়ের পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম। একইসঙ্গে কোভিডের টিকা শরীরে যাওয়ার পর নিজেকে ‘৬২ নয় ৪২ বছরের’ মনে হচ্ছে, এমনটাই জানালেন আপ্লুত ফিরহাদ।আজ দেশজুড়ে চলছে গণটিকাকরণ। SSKM হাসপাতালের কর্মী রাজা চৌধুরীকে প্রথম করোনা ভাইরাসের টিকা দেওয়া হয়েছে। তাঁর টিকাকরণের পর এদিন রাজ্য়ের পুরমন্ত্রী তথা কলকাতার পুরপ্রশাসকমণ্ডলীর প্রধান ফিরহাদ হাকিম জানান, মুখ্য়মন্ত্রী সকাল থেকে পরিস্থিতির ওপর নজর রাখছেন। তিনি রাজ্য়জুড়ে এই টিকাকরণ প্রক্রিয়ার তদারকি করছেন। এক বছর পর আজ মুক্তির দিন। সাধারণ মানুষকে ভ্য়াকসিন নেওয়ার জন্য় আবেদন জানিয়ে এদিন ফিরহাদ হাকিম জানান,’আমার শরীরে ভ্য়াকসিন যাওয়ার পর নিজেকে অনেক তরুণ লাগছে। আমি সম্পূর্ণ সুস্থ।’ ভ্য়াকসিন নেওয়ার পর ফিরহাদ হাকিমের দেহে অ্য়ান্টিবডি তৈরি হয়েছে কিনা তা জানতে তাঁর দেহ থেকে রক্তের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য় পাঠানো হয়েছে মুম্বই-এ। প্রসঙ্গত, কোভ্য়াক্সিনের ট্রায়ালে স্বেচ্ছাসেবক ছিলেন ফিরহাদ হাকিম।রাজ্যে প্রথম করোনার টিকা পেলেন SSKM-এর এই কর্মীএদিকে, কোভিডে টিকাতেও লেগেছে রাজনীতির রং। টিকা তৈরির ক্ষেত্রে ভারতীয় সংস্থাগুলির সাফল্যকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সাফল্য হিসেবে তুলে ধরছেন BJP নেতাদের একাংশ। স্বভাবতই তাতে নাখুশ ফিরহাদ হাকিম। এই প্রসঙ্গে রাজ্যের গুরুত্বপূর্ণ এই মন্ত্রী বলেন, ‘এই ভ্য়াকসিন মোদীর নয়। বিজেপির নয়। এই ভ্য়াকসিন দেশবাসীর। এই ভ্য়াকসিন তৈরির অবদান সম্পূর্ণ বিজ্ঞানীদের। কেন্দ্রে একাধিক সরকার এসেছে, কিন্তু এই বিজ্ঞানীরা ছিলেন, আছেন এবং থাকবেন। তাঁদের অবদান দেশবাসী ভুলবে না। আমরা আমাদের দেশের বিজ্ঞানীদের নিয়ে গর্ব করি। এই নিয়ে রাজনীতি করা উচিত নয়।’আজ তো টিকা! উত্তেজনা চরমে প্রাপকদেরআজ চেতলার পুরপ্রাথমিক স্বাস্থ্য়কেন্দ্রে পুরসভার প্রথম সারির করোনাযোদ্ধাদের টিকা দেওয়া হয়। এদিন টিকাকরণের সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন ফিরহাদ হাকিম নিজে। এদিন তিনি বলেন, ‘এতদিন পরিজনের কথা ভেবে সবসময় আতঙ্কের মধ্য়ে থাকতে হতো। কিন্তু টিকা নেওয়ার পর এই যন্ত্রণা থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে।’ এর রেশ ধরে তিনি জানিয়েছেন, প্রথমে টিকা দেওয়া হবে স্বাস্থ্য়কর্মীদের। পরে ধাপে ধাপে পুলিশ, সাফাইকর্মী এবং ষাটোর্দ্ধদের কাছে পৌঁছে দেওয়া হবে টিকা। আজ পুরসভার পাঁচটি স্বাস্থ্য়কেন্দ্রে চলছে টিকাকরণের কাজ।

Source link

Vaccination In Bengal: রাজ্য়ে প্রথম করোনার টিকা পেলেন SSKM-এর কর্মী রাজা চৌধুরি – raja chowdhury an health worker of sskm got the first corona vaccine in the state

হাইলাইটসরাজ্য়ে প্রথম SSKM হাসপাতালে টিকাকরণ শুরু হয় এবং রাজ্য়ে প্রথম টিকা পান রাজা চৌধুরি।পশ্চিমবঙ্গে আজ ২০ হাজার ৭০০ জন প্রথম সারির করোনা যোদ্ধাকে দেওয়া হবে টিকা।এদিন করোনা টিকা নেওয়ার পর রাজা জানান তিনি সম্পূর্ণ সুস্থ রয়েছেন।এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: করোনা রোগীদের সেবা করতে গিয়ে এই মারণ রোগ একদিন থাবা বসিয়েছিল SSKM হাসপাতালে গ্রুপ ডি কর্মী রাজা চৌধুরির শরীরে। সামান্য় ভয় পেলেও ‘যুদ্ধের ময়দানে’না ছেড়ে সাধারণের সেবা করে গেছেন তিনি। আজ রাজ্য়ে প্রথম তাঁকেই করোনা টিকা দেওয়া হয়। আজথেকে দেশজুড়ে শুরু হয়েছে গণটিকাকরণ। পশ্চিমবঙ্গে আজ ২০ হাজার ৭০০ জন প্রথম সারির করোনা যোদ্ধাকে দেওয়া হবে টিকা। এদিন রাজ্য়ে প্রথম SSKM হাসপাতালে টিকাকরণ শুরু হয় এবং রাজ্য়ে প্রথম টিকা পান রাজা চৌধুরি। করোনা আতঙ্ক যখন তুঙ্গে তখন SSKM হাসপাতালে প্রথম সারিতে থেকে সাধারণ মানুষের সেবা করেছেন তিনি। ২০২০ সালের ২২ জুলাই এই সংক্রামক রোগ থাবা বসিয়েছিল তাঁর শরীরেও। সেই সময় ৭ দিন হাসপাতাল ও পরে ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইনে থেকে করোনা ভাইরাসকে হারিয়ে ফিরে এসেছিলেন সুস্থ স্বাভাবিক জীবনে। আবার নতুন করে শুরু করেছিলেন করোনা রোগীদের সুস্থ করার যুদ্ধ।রাজ্য়জুড়ে ২০৭টি হাসপাতালে আজ টিকাকরণএদিন করোনা টিকা নেওয়ার পর রাজা জানান তিনি সম্পূর্ণ সুস্থ রয়েছেন। সকলকে টিকা নেওয়ার জন্য় আশ্বস্থও করেন তিনি। এদিন তাঁর সঙ্গে কথা বলেন রাজ্য়ের পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম।

Source link

Nusrat Jahan: ‘করোনার থেকেও ভয়ংকর BJP!’ তোপ নুসরত জাহানের – bjp more dangerous than coronavirus says nusrat jahan slams amit malaviya

হাইলাইটসনুসরতের কথায়, ‘বাংলার সংস্কৃতি বোঝে না BJP। মানবিকতা বোঝে না। ধর্মের নামে দাঙ্গা লাগায় ওরা। বাংলাকে হিন্দু-মুসলিমের মধ্যে ভাগ করে দিতে চায়।’ভ্যাকসিন নিয়ে নোংরা রাজনীতি হচ্ছে বাংলায়। টুইটে লেখেন অমিত মালব্য।অভিযোগ ওঠে কলকাতা থেকে বাঁকুড়া যাওয়ার পথে একটি ভ্যাকসিনের ট্রাক মন্ত্রী সিদ্দিকুল্লা চৌধুরীর রাজনৈতিক কর্মসূচির কারনে মাঝপথে আটকে পড়ে। এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: করোনাভাইরাসের থেকেও ভয়ংকর হল BJP। সাম্প্রদায়িকতা ইস্যুতে এবার কেন্দ্রীয় শাসক দলের উদ্দেশ্যে এভাবেই কটাক্ষ করলেন তৃণমূল সাংসদ নুসরত জাহান (Nusrat Jahan)। শুক্রবার উত্তর-২৪ পরগনার দেগঙ্গায় দলীয় পদযাত্রায় অংশগ্রহণ করেন তিনি। সেখান থেকেই সাম্প্রদায়িকতা ইস্যুতে BJP-র বিরুদ্ধে সরব হন সাংসদ-অভিনেত্রী। তাঁর কথায়, ‘বাংলার সংস্কৃতি বোঝে না BJP। মানবিকতা বোঝে না। ধর্মের নামে হিংসা লাগায় ওরা। বাংলাকে হিন্দু-মুসলিমের মধ্যে ভাগ করে দিতে চায়।’এদিকে, গেরুয়া শিবিরের বিরুদ্ধে নুসরতের এই মন্তব্যের পর পাল্টা সরব হন BJP IT সেল প্রধান অমিত মালব্য (Amit Malviya)। সংখ্যালঘু তোষণের অভিযোগ তুলে তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আক্রমণ করে সোশ্যাল মিডিয়ায় তোপ দাগেন তিনি। ফের মুখ্যমন্ত্রীকে ‘পিসি’ বলে কটাক্ষ করেন পশ্চিমবঙ্গের সহ-পর্যবেক্ষক অমিত মালব্য। টুইটে তিনি লেখেন, ‘ভ্যাকসিন নিয়ে নোংরা রাজনীতি হচ্ছে বাংলায়। একদিকে, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ক্যাবিনেট মন্ত্রী ভ্যাকসিনের ট্রাক আটকে দিচ্ছেন। অন্যদিকে, একজন অভিনেত্রী সাংসদ মুসলিম এলাকায় গিয়ে BJP-কে করোনা ভাইরাস বলে অ্যাখ্যা দিচ্ছে। আর পিসি কি করছেন? এখনও চুপ করে রয়েছেন? তোষণ রাজনীতি?’জানা গিয়েছে, কলকাতা থেকে বাঁকুড়া যাওয়ার পথে একটি ভ্যাকসিনের ট্রাক মাঝপথে ট্র্যাফিকে আটকে পড়ে। অভিযোগ ওঠে যে মন্ত্রী সিদ্দিকুল্লা চৌধুরীর একটি রাজনৈতিক কর্মসূচির কারণেই ট্রাকটি আটকে পড়েছে। যদিও অভিযোগ উড়িয়ে মন্ত্রী জানান, ভ্যাকসিনের ভ্যান ওই একই রাস্তা দিয়ে যাওয়ার কোনও খবর তাঁর কাছে ছিল না। নির্বাচন যত এগোচ্ছে ততই যেন তৃণমূল আর BJP-র মধ্যে শব্দের উত্তাপও বাড়ছে। কটাক্ষ, পাল্টা কটাক্ষের মধ্যে দিয়ে উত্তপ্ত হয়ে উঠছে রাজ্য-রাজনীতি। ২১-এর মহারণে সাম্প্রদায়িকতা এখন অন্যতম প্রধান ইস্যু হয়ে দাঁড়িয়েছে।

Source link

coronavirus: COVID চিকিৎসায় নজর কাড়ছে নবজাতকের নাড়ি! যা জানা জরুরি… – stem cell of new born babies umbilical cord can treat patients who are infected with coronavirus

এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক:কোভিড-১৯ রোগীকে সুস্থ করতে বিশ্ব জুড়ে নানা চিকিৎসাপদ্ধতির শরণ নিচ্ছেন চিকিৎসকরা। কোথাও প্লাজমা প্রতিস্থাপন, কোথাও কিছু অ্যান্টি ভাইরাল ড্রাগের সাহায্য নিয়ে, আবার কোথাও হাইড্রক্সিক্লোরোকুইনকে আঁকড়ে রোগীকে বাঁচানোর চেষ্টা চলছে। এই তালিকায় অন্যতম সংযোজন এই শিশুর নাভি থেকে পাওয়া স্টেম সেল থেরাপি। গবেষকরাও বিভিন্ন ধরণের গবেষণা করে ভাইরাস নির্মূল করার চেষ্টা করছেন। এদিকে, একটি নতুন গবেষণা উঠে এসেছে যে জানিয়েছে যে সদ্য জন্ম নেওয়া শিশুর নাড়ির মধ্যে যে স্টেম সেল পাওয়া যায় তা করোনাভাইরাসের জীবনরক্ষক। স্টেম সেল থেরাপি কী?বিশেষজ্ঞদের মতে, সন্তান জন্মানোর পর শিশুর নাভি থেকে যে কোষ থাকে, তার মধ্যে রয়েছে এই সব স্টেম সেল। বিজ্ঞানীরা এখান থেকে কোষ নিয়ে তাকে পরিণত করেন স্মার্ট কোষে। এমন ভাবে প্রোগ্রামিং করা হয় যে, সেই কোষ যে শরীরে যাবে, সেই শরীরের প্রয়োজন বুঝে, ঠিক তার মাপ মতো ওষুধ তথা প্রোটিন নিঃসরণ করবে। স্টেম সেল থেরাপি মূলত এটিই।অল্প দৌড়েই কি হাঁপিয়ে পড়ছেন? দম বাড়াতে হলে মেনে চলুন কয়েকটি টিপস…মায়ামি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক সমীক্ষায় দেখা গেছে যে ৮৫ বছরের বয়সি এক ব্যক্তির করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন। তাঁকে ওই সদ্যজাত শিশুর নারী থেকে পাওয়া স্টেম সেল ব্যবহার করা হয়। প্রয়োগ পর দেখা যায় সেই ব্যক্তি সুস্থ হয়ে উঠেছে। এই স্টেম সেল সাধারণভাবে নাভিতে পাওয়া যায়। যা শরীরের ক্ষতিগ্রস্থ কোষগুলি নিরাময় করতে পারে। বিজ্ঞানীদের মতে, সদ্যজাতের নাভিতে যে স্টেম কোষ রয়েছে তাতে ১০ হাজার রোগীর চিকিত্সা করতে পারে।বিজ্ঞানীরা গবেষণা থেকে যা তথ্য পেয়েছেনমিয়ামি বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনিয়র অধ্যাপক ক্যামিলো রিকার্ডির মতে, এই স্টেম সেল চিকিত্সা পদ্ধতি অত্যন্ত সস্তা এবং কার্যকরী। বিজ্ঞানীরা এই গবেষণা করেছেন ২৪জন রোগীর উপরে। ভাইরাসে সংক্রামিত হওয়ার পরে এই রোগীদের শ্বাস-প্রশ্বাসের মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল। এ জাতীয় পরিস্থিতিতে প্রতিটি ব্যক্তিদের দু’দিনের ব্যবধানে দুটি করে স্টেম সেল ইঞ্জেকশন দেওয়া হয়েছিল। বিজ্ঞানীরা আরও দেখতে পান যে, রোগীরা এই চিকিত্সায় শীঘ্রই সেরে উঠেছে। ৮০ শতাংশ লোক একমাসেই মুক্তি পেয়েছে মারণ ভাইরাস থেকে। কোভিড ছাড়া আর কোথায় এর সাফল্য আছে? হার্ট অ্যাটাকে মৃত পেশীতে গিয়ে স্টেম সেলের প্রোটিন নতুন হৃদকোষ তৈরি করতে পারে। পায়ের শিরা পচে রক্ত চলাচল বন্ধ হয়ে গেলেও তৈরি করতে পারে নতুন শিরা। রক্তের ক্যানসার, কিছু বিশেষ ধরনের রক্তাল্পতা বা রশ্মি চিকিৎসায় অস্থিমজ্জা নষ্ট হয়ে গেলে, নতুন অস্থিমজ্জা তৈরতেও সক্ষম।এই সময় ডিজিটালের লাইফস্টাইল সংক্রান্ত সব আপডেট এখন টেলিগ্রামে। সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন এখানে।

Source link