Tag Archives: extra marital affairs

সন্দেহের বসে স্ত্রীকে পুড়িয়ে মারার চেষ্টা, অগ্নিদগ্ধ হয়ে মৃত্যু হল শ্বশুর ও শ্বাশুড়ির – attempt to burn wife to death on suspicion, mother-in-law and father-in-law burnt to death

এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: স্ত্রীর সাথে অন্য কারোর অবৈধ সম্পর্ক রয়েছে এই সন্দেহে স্ত্রীকে জ্যান্ত পুড়িয়ে মারার চেষ্টা ৷ স্ত্রী প্রাণে বাঁচলেও মারা গেলেন শ্বশুর ও শ্বাশুড়ি ৷ ঘটনার পরেই গ্রামবাসীদের হাতে ধরা পড়ল জামাই ৷ বেধড়ক মারধর করা হয় তাকে ৷ ঘটনায় গুরুতর জখম জামাইকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ ৷ আজ তাকে বারুইপুর আদালতে পেশ করা হয়েছে ৷ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ ৷ ঘটনাটি ঘটেছে জয়নগর থানা এলাকার মানিকনগরে ৷ নয় বছর আগে এখানকার বাসিন্দা কৄষ্ণা সর্দারের সাথে বিয়ে হয় জয়নগরের শ্রীকৄষ্ণনগরের বাসিন্দা রামকৄষ্ণ মালির ৷ তাদের একটি ৮ বছরের সন্তানও রয়েছে ৷ বিয়ের পর থেকেই মাঝেমধ্যেই যখন তখন বাপের বাড়ি চলে যেত সে ৷ এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে তাদের মধ্যে বিবাদ বাধে ৷ তার জেরে বিয়ের কয়েকবছর পরেই তাদের মধ্যে অশান্তি শুরু হয় ৷ বিগত ১ বছর ধরে স্বামীকে ছেড়ে সন্তানকে নিয়ে বাবা ও মায়ের কাছে থাকছিলেন কৄষ্ণা ৷ স্বামীর বিরুদ্ধে বধু নির্যাতনের মামলাও করেছিলেন তিনি ৷ এতে রাগ আরও বেড়ে যায় রামকৄষ্ণর ৷ স্ত্রীকে ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলেও সে ফেরেনি ৷ তাই গত সপ্তাহে এসে স্ত্রীকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে গিয়েছিল সে ৷ভয়াবহ পরিস্থিতি! বাংলায় ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত ৮৪১৯, ঘণ্টায় গড়ে মৃত ১সেইমতো শনিবার রাতে সে শ্বশুরবাড়িতে আসে ৷ শ্বশুর বাড়িতে এসে ঘরের দরজার সামনে পেট্রোল বা কেরোসিন জাতীয় কিছু ছড়িয়ে আগুন লাগিয়ে দেয় ৷ ঘরেই অগ্নিদগ্ধ হন কৄষ্ণার বাবা ও মা সুবল সর্দার ও কাজল সর্দার ৷ বাড়িতে আগুন জ্বলতে দেখে তারা চিৎকার শুরু করেন ৷ তাদের চিৎকারে ঘর থেকে বেরিয়ে আসেন কৄষ্ণা, আগুন জ্বলতে দেখে দৌড়ে আসে প্রতিবেশীরাও ৷ তারাই তাদের দুজনকে উদ্ধার করে বারুইপুর মহকুমা হাসপাতালে পাঠায় ৷ অবস্থা আশঙ্কাজনক হওযায় সেখান থেকে তাদেরকে পাঠানো হয় কলকাতার হাসপাতালে ৷ সেখানেই মৄত্যু হয় তাদের ৷ এই ঘটনার জেরে রামকৄষ্ণকে বেধড়ক মারধর করে গ্রামবাসীরা ৷ তারপর তারা তাকে তুলে দেয় পুলিশের হাতে ৷ অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ ৷টাটকা ভিডিয়ো খবর পেতে সাবস্ক্রাইব করুন এই সময় ডিজিটালের YouTube পেজে। সাবস্ক্রাইব করতে এখানে ক্লিক করুন। Representative Image

Source link

extra marital affairs: ৪৮% ভারতীয় মহিলা বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কে লিপ্ত! – shocking survey says, married indian women are finding love outside of their marriage

হাইলাইটসবর্তমানে মহিলাদের মধ্যে অর্থনৈতিক স্বাধীনতা এসেছে। ফলে আত্মবিশ্বাসও বেড়েছে। স্বামীর পরকীয়া বুঝতে পেরেও মুখ বুঝে সহ্য করার মানসিকতা আর নেইএই সময় জীবনযাপন ডেস্ক: আন্তর্জাতিক এক সংবাদমাধ্যমের শিরোনাম পড়ে চমকে উঠেছিল রাধিকা। পরকীয়ার প্রতি নাকি ভারতীয় মহিলাদের আগ্রহ বাড়ছে দ্রুত হারে! সর্বনাশ। এসব খবর কি তাহলে এবার নিউজ পোর্টালেও বের হতে শুরু করেছে।পরকীয়ার মতো পরকীয়া সংক্রান্ত খবর পড়তেও দারুণ লাগে রাধিকার। ৩৭ বছরের রাধিকা ডেটিং অ্যাপের মাধ্যমে সম্পর্কে লিপ্ত। প্রথমে ভার্চুয়াল সম্পর্ক হলেও পরে তা বাস্তবে পরিণত হয়। সঙ্গীটি রাধিকার থেকে ১০ বছরের ছোটো। প্রায় ২ বছর ধরে চলছে তাদের সম্পর্ক। ব্যবসা আর টাকা নিয়ে ব্যস্ত রাধিকার স্বামী বেশিরভাগ সময় বাইরে থাকেন। রাধিকাকে সময় দেওয়ার মতো ‘সময়’ তাঁর হাতে নেই। অগত্যা ডেটিং অ্যাপের সাহায্যে বন্ধু বানাতে থাকে। অবশেষে বর্তমান সঙ্গীর সঙ্গে পরিচয় হয়। তার সঙ্গে মানসিক এবং যৌনতৃপ্তি রাধিকার একাকীত্ব ঘুচিয়েছে। সঙ্গীও বয়সে বড় বান্ধবীকে নিয়ে সুখী।প্রতিবেদন পড়তে পড়তে রাধিকার মনে হচ্ছিল নিজের জীবনের কথাই পড়ছে সে। আসলে ফ্রান্সের এক বিখ্যাত ডেটিং অ্যাপ সংস্থার সাম্প্রতিক সমীক্ষা বলছে ৩০ থেকে ৬০ বছর পর্যন্ত প্রায় ৪৮ শতাংশ ভারতীয় মহিলাই বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কে লিপ্ত। আর এক্ষেত্রেও পুরুষের মতো ঘরে-বাইরে সমান তালেই সামলাচ্ছেন তাঁরা।মাত্র দুবছরে প্রায় ১৩ লক্ষ ভারতীয় মহিলা পরকীয়ায় মজেছেন সমীক্ষা বলছে গত মাত্র দুই বছরে অন্তত ১৩ লাখ ভারতীয় মহিলা ডেটিং অ্যাপ-এর সাহায্যে নতুন সম্পর্ক তৈরি করেছেন।মনোবিদদের মতে, বর্তমানে মহিলাদের মধ্যে অর্থনৈতিক স্বাধীনতা এসেছে। ফলে আত্মবিশ্বাসও বেড়েছে। স্বামীর পরকীয়া বুঝতে পেরেও মুখ বুঝে সহ্য করার মানসিকতা আর নেই। সমাজ কিংবা পরিবারের কারণে বিয়ে টিকিয়ে রাখার বাধ্যতা থাকলেও, বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্ক চুটিয়ে উপভোগ করছেন তাঁরা। পুরুষের মতো তাঁদের শরীরও যে যৌনতা চায়, তা প্রকাশ করতে কেউ মেকি অপরাধবোধে ভোগেন না। আইনি সঙ্গী যদি শারীরিক এবং মানসিক সুখ দিতে না পারেন তাহলে তথাকথিত বেআইনি সঙ্গী বেছে নেওয়া দোষের নয় বলেই বিশ্বাস তাঁদের। মেয়ে বলেই কি পরকীয়া অপরাধ পুরুষও তো শারীরিক চাহিদার লোভে এবং যৌনসুখ মেটাতে বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কে লিপ্ত হন। তখন তো সমাজের কোনও সমস্যা হয় না। ভারতীয় মহিলাদের মধ্যে এই মানসিকতাও দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। আসলে প্রজন্মের পর প্রজন্ম ধরে সমাজের চাপিয়ে দেওয়া নিয়মে পরিবর্তন চাইছেন মহিলারা।সমাজবিজ্ঞানীদের একাংশের দাবি, বিবাহিতাদের পরকীয়া নিয়ে এত আলোচনা নেহাতই ডেটিং অ্যাপের বাণিজ্যিক কারসাজি। বেশিরভাগ ভারতীয় পুরুষই পরকীয়া করেন। তাঁদের মধ্যে অনেকেই বিবাহিত। ডেটিং অ্যপের মাধ্যমে প্রকাশিত সমীক্ষা নেহাতই সংখ্যামাত্র। বিবাহবহির্ভূত সম্পর্ক আগেও ছিল ভবিষ্যতেও থাকবে। এ নিয়ে মহিলাদের দিকে আঙুল তোলা অপ্রযোজনীয়। পুরুষতান্ত্রিক সমাজ নিজেকে শোধরালেই পরকীয়া শব্দটি সমাজ থেকে বিলুপ্ত হবে।টাটকা ভিডিয়ো খবর পেতে সাবস্ক্রাইব করুন এই সময় ডিজিটালের YouTube পেজে। সাবস্ক্রাইব করতে এখানে ক্লিক করুন।

Source link

extramarital affair: গৃহবধূকে পরকীয়ার শাস্তি দিল গ্রামবাসীরা, স্বামীর কথা শুনে তাজ্জব সকলে – extramarital affair exposed in daspur west bengal video goes viral

হাইলাইটসঅভিযোগ, বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কে জড়িয়েছিলেন এক গৃহবধূ।এক যুবককে নিজের বাড়িতে রেখে অবাধে মেলামেশা চালাচ্ছিলেন দাসপুরের কুমারীচক গ্রামের ঘাঁটা পাড়ার ওই গৃহবধূ।তাঁদের হাতে-নাতে ধরে গণধোলাই দিয়ে দাসপুর থানার পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হল।এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্ক জানাজানি হতেই শুরু হয় সালিশি সভা৷ হেনস্থা, মারধর কিছুই বাদ যায় না। অভিযোগ, বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কে জড়িয়ে ছিলেন এক গৃহবধূ। এক যুবককে নিজের বাড়িতে রেখে অবাধে মেলামেশা চালাচ্ছিলেন দাসপুরের কুমারীচক গ্রামের ঘাঁটা পাড়ার ওই গৃহবধূ। দাসপুর থানার পাঁচবেড়িয়া করুণাচকে তাঁদের হাতে-নাতে ধরে গণধোলাই দিয়ে দাসপুর থানার পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হল। ওই যুবককে কোমরে দড়ি বেঁধে গণধোলাই দেওয়া হয়। গোটা ঘটনার VIDEO ইতিমধ্যেই সোস্যাল সাইটে ভাইরাল হয়েছে। জানা গিয়েছে, ওই গৃহবধূর স্বামী কর্মসূত্রে বাইরে থাকেন। বাড়িতে তিনি শাশুড়ির সঙ্গেই থাকতেন। সম্প্রতি তাঁদের নতুন পাকাবাড়ি তৈরি হয়েছে। সেই বাড়িতেই একাই থাকতেন ওই গৃহবধু। রান্না খাওয়াও হয় এই বাড়িতে। শাশুড়ির বিশেষ যাতায়াত ছিল না সেখানে। স্থানীয়দের অভিযোগ, এই সুযোগেই কয়েক দিন ধরে এক যুবক সেই বাড়িতে আসত। স্থানীয়দের দাবি, অনেক দিন এ বাড়িতে থেকেই যেতেন ওই যুবক। সাধারণত ওই বাড়িতে চাবি দিয়েই বেরত ওই গৃহবধূ। কিন্তু মঙ্গলবার চাবি না দিয়েই বাড়ির বাইরে বেশ কিছুক্ষণের জন্য বেরিয়ে যান তিনি। আর সেই সময় এক আত্মীয় এই বাড়িতে গিয়ে একজন অপরিচিত যুবককে দেখতে পান। সঙ্গে সঙ্গে দরজায় শিকল দিয়ে পাড়া প্রতিবেশীদের ডেকে আনেন তিনি। গৃহবধূ এবং ওই যুবককে বেঁধে চলে গণপ্রহার। স্থানীয়দের দাবি, ছেলেটির সঙ্গে তাঁর সম্পর্কের কথা স্বীকার করে নেন মহিলা। ফোনে সমস্ত বিষয় জানানো হয় ভিনরাজ্যে কর্মরত স্বামীকে। স্বামী সব শুনে ওই যুবকের সাথেই তাঁর স্ত্রীর বিয়ে দিয়ে দেওয়ার প্রস্তাব দেন বলে স্থানীয় সুত্রে খবর।দাসপুর পুলিশ এসে যুবককে উদ্ধার করে নিয়ে যায়। অন্যদিকে, পাড়া প্রতেবেশীরা বউমাকে তাঁর বাপের বাড়িতে খবর দিলে মেয়ের বাবা মেয়েকে নিয়ে যান বলে জানা গিয়েছে।দেওয়াল লিখন শুরু, অনুমতি না-নেওয়ার অভিযোগপরকীয়া ফৌজদারি অপরাধ নয়। ইংরেজ শাসনকালে তৈরি এই আইনের ৪৯৭ ধারা অসাংবিধানিক। ২০১৮ সালেই রায় দিয়েছিল সুপ্রিম কোর্ট। স্বামী কখনই স্ত্রীর প্রভু বা মালিক হতে পারেন না। ব্রিটিশদের তৈরি করা ১৮৬০ সালের আইনকে চ্যালেঞ্জ করে একটি মামলার প্রেক্ষিতেই শীর্ষ আদালতের এই রায় দিয়েছিল।১৮৬০ সালে তৈরি ওই আইনের ৪৯৭ নম্বর ধারায় বলা হয়েছে, কোনও ব্যক্তি কোনও মহিলার সঙ্গে যৌন সম্পর্ক করলে এবং ওই মহিলার স্বামীর অনুমতি না থাকলে পাঁচ বছর পর্যন্ত জেল এবং জরিমানা বা উভয়ই হতে পারে। এই আইনের সাংবিধানিক বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে ২০১৭ সালে সুপ্রিম কোর্টে মামলা দায়ের করেন জনৈক যোশেফ শাইন। তবে শুধু পরকীয়া নয়, গণ আদালত ডেকে মারধরের ঘটনারও নিন্দা করা হয়েছে সব মহল থেকে।

Source link