Tag Archives: winter skin care

উজ্জ্বল ও ফ্রেশ ত্বকের জন্য রাতে এই হোমমেড ফেস প্যাকটি ব্যবহার করুন, রইল তৈরির পদ্ধতি | Homemade Face Pack For Glowing Skin During Winter


ফ্রুট ফেস প্যাক ত্বক উজ্জ্বল করতে ফ্রুট ফেস প্যাক বেশ কার্যকরী। আপনি প্রতিদিন এই ফেস প্যাক ব্যবহার করতে পারেন। আপেলে ভিটামিন সি এবং অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট রয়েছে, যা ত্বকের ট্যানিং হ্রাস করে এবং ত্বককে উজ্জ্বল করে তোলে। পেঁপেতে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে। ত্বককে ফ্রেশ রাখতে আপনি পেঁপে ব্যবহার করতে পারেন। এছাড়াও, কলাতে ভিটামিন ই, বি এবং সি পাওয়া যায়, যা ত্বক উজ্জ্বল হয়। ত্বকের শুষ্কতা কমাতে কলা ব্যবহার করা যেতে পারে। ফ্রুট ফেস প্যাক তৈরির পদ্ধতি ১ চামচ গ্রেটেড আপেল, ১ চামচ পেঁপের শাঁস, ১ চামচ কলা এবং আধা চামচ ওটস নিন। প্রথমে পেঁপে, কলা এবং আপেল ভাল করে মেশান। তারপরে এই মিশ্রণে ওটস দিন। এই ফেস প্যাকটি আপনার মুখে লাগান। আধা ঘণ্টা পরে মুখ ধুয়ে ফেলুন। মধু, দই এবং রেড ওয়াইন ফেস প্যাক এক চামচ মধু, এক চামচ দই, এক চামচ রেড ওয়াইন নিন। এই ফেস প্যাকটি তৈরি করতে সর্বপ্রথমে মধু, দই এবং রেড ওয়াইন ভালভাবে মিশিয়ে নিন। মিশ্রণটি প্রস্তুত হওয়ার পরে এই পেস্টটি মুখে লাগান। ৩০ মিনিট পরে পরিষ্কার জল দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এর পরে মুখে ময়েশ্চারাইজার লাগান। ফেস প্যাকের উপকারিতা এই ফেস প্যাক প্রয়োগ করলে মুখের ত্বক উজ্জ্বল হয়। মধু, দই এবং রেড ওয়াইন ত্বকের ট্যান অপসারণ করার পাশাপাশি ত্বক নরম করে। দইতে অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি বৈশিষ্ট্য পাওয়া যায়, যা ত্বকের দাগ দূর করতে সহায়তা করে। মধুতে অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি গুণ রয়েছে যা পিম্পল কমাতে সহায়তা করে। রেড ওয়াইন রিঙ্কেলস কমাতে সহায়তা করে।

Source link

কোমল ও উজ্জ্বল ত্বকের জন্য শীতকালে ভুলেও এই জিনিসগুলি ব্যবহার করবেন না | Avoid These Ingredients For Dry Skin In Winter In Bengali


এক্সফোলিয়েট কম করুন শীতের মরসুমে ত্বক বারবার এক্সফোলিয়েট করলে ত্বক শুষ্ক হয়ে ওঠে। তাই শীতে এক্সফোলিয়েট করা থেকে বিরত থাকুন। সপ্তাহে একবার বা খুব বেশি হলে দু’বার এক্সফোলিয়েট করতে পারেন। ঠান্ডা বা গরম জলে মুখ ধোওয়া মুখ ধোওয়ার সময়ে খুব ঠান্ডা বা খুব গরম জল একদমই ব্যবহার করবেন না। সর্বদা ঈষদুষ্ণ জলে মুখ ধোবেন। এতে ত্বকের স্বাভাবিক তৈলাক্ত ভাব এবং আর্দ্রতা কমবে না। লেবু মুখের ত্বক উজ্জ্বল করতে লেবু ব্যবহার করা হয়। লেবুতে অ্যাসিড রয়েছে, যা ঠান্ডায় ত্বককে শুষ্ক করে তোলে। ঠাণ্ডায় লেবু ব্যবহারের ফলে ত্বকে জ্বালা হতে পারে। তাই শীতকালে ত্বকে লেবু ব্যবহার না করাই ভাল। শীতে শুষ্ক ত্বকের যত্ন নিন ঘরোয়া উপায়ে, দেখুন কী করবেন চালের গুঁড়ো ফর্সা হওয়ার জন্য, অনেক মহিলাই চালের গুঁড়োর ফেস প্যাক ব্যবহার করে থাকেন। চালের ফেস প্যাক অ্যান্টি-এজিংয়ের জন্য কাজ করে। তবে চালের গুঁড়োতে স্টার্চ থাকে, যা ত্বককে শুষ্ক করে তোলে। তাই শীতেকালে চালের গুঁড়ো ব্যবহার করা উচিত নয়। বারবার মুখ ধোওয়া শীতে ঘন ঘন মুখ ধোওয়া হলে ত্বক শুষ্ক হয়ে ওঠে। তাই এই সময় ঘন ঘন মুখ ধোওয়া এড়িয়ে চলুন, কারণ এতে মুখের ন্যাচরাল অয়েল কম হয়ে যায়। রাতে ঘুমোতে যাওয়ার আগে মেকআপ অপসারণ করতে জল নয়, বরং ভেজা ওয়াইপ ব্যবহার করুন।

Source link

How To Use Silicone Face Scrub For Glowing Skin in bengali : শীতকালে ত্বকের যত্নে ব্যবহার করুন সিলিকন ফেস স্ক্রাব, দেখুন ব্যবহারের সঠিক পদ্ধতি


অল্প সময়ে স্ক্রাব করুন সিলিকন ফেস স্ক্রাবার ব্যবহারের ক্ষেত্রে সময় অনেক কম লাগে। সিলিকন স্ক্রাব দিয়ে মুখে ক্লিনজার করা অনেক সহজ। আঙুলের চেয়ে সিলিকন দিয়ে স্ক্রাব করা অনেক সহজ। সিলিকন ব্যবহারের ফলে ফেনা দ্রুত তৈরি হয়, যার ফলে মুখ দ্রুত পরিষ্কার হয়ে যায়। চোখের পাতা দীর্ঘ ও ঘন করতে এই ঘরোয়া পদ্ধতিগুলি প্রয়োগ করুন ডিপ ক্লিনজিং আঙুল দিয়ে স্ক্রাব করলে মুখের ডিপ ক্লিনজিং হয় না। সিলিকন ফেস স্ক্রাবার ব্যবহার করলে মুখের ডিপ ক্লিনজিং হয়। যে মহিলারা প্রতিদিন মুখে মেকআপ ব্যবহার করেন, তাদের জন্য সিলিকন স্ক্রাবার বেস্ট অপশন। বিভিন্নভাবে ব্যবহার করুন এটি বিভিন্ন উপায়ে ব্যবহার করা যেতে পারে। সিলিকন ফেস স্ক্রাবার আপনি মুখের পাশাপাশি বডি-তেও ব্যবহার করতে পারেন। মুখের সাথে শরীরের যত্ন নেওয়াও উচিত। শরীরকে এক্সফোলিয়েট করতে আপনি সিলিকন স্ক্রাবার ব্যবহার করতে পারেন।

Source link

চটজলদি ট্যান তুলতে চান? এই ফেস প্যাক ব্যবহারে নিমেষেই দূর হবে ট্যান! | Homemade DiY Face Pack For Tanned Skin In Winter


গ্লিসারিন এবং চিনির ফেস প্যাক শীতকালে ত্বক রুক্ষ-শুষ্ক হয়ে যায়, গ্লিসারিন ত্বক নরম করতে সহায়তা করে। পাশাপাশি গ্লিসারিন ত্বকের ট্যান অপসারণেও বেশ কার্যকর। লেবু ব্লিচিংয়ের মতো কাজ করে যা মুখ পরিষ্কার করতে সহায়তা করে। চিনি ত্বকের মৃত কোষ অপসারণে সহায়তা করে। যার ফলে কালো ত্বক দূর হয়। আধা চামচ গ্লিসারিনে এক চামচ চিনি মেশান। এর পরে এতে লেবুর রস দিন। এই পেস্টটি মুখে লাগিয়ে স্ক্রাব করুন। তিন থেকে চার মিনিট স্ক্রাব করার পরে, জল দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। কলার ফেস প্যাক কলাও ত্বকের জন্য খুব উপকারি। কলায় ভিটামিন এবং মিনারেলস পাওয়া যায়, যা ত্বকে পুষ্টি যোগায়। কলা ফেস প্যাক লাগালে ত্বক উজ্জ্বল হয় এবং কলার ফেস প্যাক ব্যবহারে মুখের ট্যানও কমে। কলা নিয়ে ভালভাবে ম্যাশ করুন। এতে এক চামচ দুধ মেশান। এই মিশ্রণে লেবুর রসও দিন। সমস্ত উপকরণ ভালভাবে মিশিয়ে এই পেস্টটি আপনার মুখে লাগান। ১৫ মিনিট পরে মুখ পরিষ্কার করে ফেলুন। সপ্তাহে দু’বার এই ফেস প্যাকটি প্রয়োগ করুন। শশার ফেস প্যাক ত্বকের যত্নে শসা খুবই উপকারি। শসা ব্যবহারের ফলে ত্বক হাইড্রেট থাকে। শসাতে ব্লিচিং বৈশিষ্ট্য রয়েছে। শসার ফেস প্যাক ব্যবহার করে ত্বকের ট্যান কমে। আধ টুকরো শসা নিয়ে ভালো করে পিষে নিন। এতে এক চামচ লেবুর রস মেশান। এবার এই পেস্টটি আপনার ত্বকে লাগান। ১৫ মিনিট পরে পরিষ্কার জল দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এই ফেস প্যাকটি সপ্তাহে দু’বার প্রয়োগ করুন। ঠোঁটে কালো ছোপ বসে গিয়েছে? এই ঘরোয়া পদ্ধতি প্রয়োগে সমস্যার সমাধান হবে নিমেষেই! লেবুর খোসা এবং কাঁচা দুধ কাঁচা দুধ মুখের ত্বক ময়েশ্চারাইজ করার কাজ করে। ত্বককে নরম রাখতেও সহায়তা করে। লেবুর খোসায় ভিটামিন সি রয়েছে, যা ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়িয়ে তুলতে এবং ট্যান অপসারণে সহায়তা করে। লেবুর খোসা শুকিয়ে গুঁড়ো করে নিন। এই পাউডারের সাথে কাঁচা দুধ মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। এবার এই পেস্টটি আপনার মুখে লাগান। ২০ মিনিট রেখে দিন। এরপর পরিষ্কার জল দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। টমেটোর ফেস প্যাক টমেটো ফাইটোকেমিকেল সমৃদ্ধ, যা সূর্যের ক্ষতিকারক ইউভি রশ্মি দ্বারা হওয়া ক্ষতির বিরুদ্ধে লড়াই করতে পারে। এটি ট্যান দূর করতে এবং ন্যাচরাল স্কিন টোন ফেরাতে সহায়তা করে। একটা টমেটো ভাল করে পিষে নিন। এবার এর সাথে ১ চা চামচ লেবুর রস মেশান। এই পেস্টটি মুখে লাগান, বিশেষ করে ট্যানের জায়গায় লাগান। ১৫ মিনিট রেখে ঠান্ডা জলে ধুয়ে ফেলুন।

Source link

চটজলদি ট্যান তুলতে চান? এই ফেস প্যাক ব্যবহারে নিমেষেই দূর হবে ট্যান! | Homemade DiY Face Pack For Tanned Skin In Winter


গ্লিসারিন এবং চিনির ফেস প্যাক শীতকালে ত্বক রুক্ষ-শুষ্ক হয়ে যায়, গ্লিসারিন ত্বক নরম করতে সহায়তা করে। পাশাপাশি গ্লিসারিন ত্বকের ট্যান অপসারণেও বেশ কার্যকর। লেবু ব্লিচিংয়ের মতো কাজ করে যা মুখ পরিষ্কার করতে সহায়তা করে। চিনি ত্বকের মৃত কোষ অপসারণে সহায়তা করে। যার ফলে কালো ত্বক দূর হয়। আধা চামচ গ্লিসারিনে এক চামচ চিনি মেশান। এর পরে এতে লেবুর রস দিন। এই পেস্টটি মুখে লাগিয়ে স্ক্রাব করুন। তিন থেকে চার মিনিট স্ক্রাব করার পরে, জল দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। কলার ফেস প্যাক কলাও ত্বকের জন্য খুব উপকারি। কলায় ভিটামিন এবং মিনারেলস পাওয়া যায়, যা ত্বকে পুষ্টি যোগায়। কলা ফেস প্যাক লাগালে ত্বক উজ্জ্বল হয় এবং কলার ফেস প্যাক ব্যবহারে মুখের ট্যানও কমে। কলা নিয়ে ভালভাবে ম্যাশ করুন। এতে এক চামচ দুধ মেশান। এই মিশ্রণে লেবুর রসও দিন। সমস্ত উপকরণ ভালভাবে মিশিয়ে এই পেস্টটি আপনার মুখে লাগান। ১৫ মিনিট পরে মুখ পরিষ্কার করে ফেলুন। সপ্তাহে দু’বার এই ফেস প্যাকটি প্রয়োগ করুন। শশার ফেস প্যাক ত্বকের যত্নে শসা খুবই উপকারি। শসা ব্যবহারের ফলে ত্বক হাইড্রেট থাকে। শসাতে ব্লিচিং বৈশিষ্ট্য রয়েছে। শসার ফেস প্যাক ব্যবহার করে ত্বকের ট্যান কমে। আধ টুকরো শসা নিয়ে ভালো করে পিষে নিন। এতে এক চামচ লেবুর রস মেশান। এবার এই পেস্টটি আপনার ত্বকে লাগান। ১৫ মিনিট পরে পরিষ্কার জল দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এই ফেস প্যাকটি সপ্তাহে দু’বার প্রয়োগ করুন। ঠোঁটে কালো ছোপ বসে গিয়েছে? এই ঘরোয়া পদ্ধতি প্রয়োগে সমস্যার সমাধান হবে নিমেষেই! লেবুর খোসা এবং কাঁচা দুধ কাঁচা দুধ মুখের ত্বক ময়েশ্চারাইজ করার কাজ করে। ত্বককে নরম রাখতেও সহায়তা করে। লেবুর খোসায় ভিটামিন সি রয়েছে, যা ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়িয়ে তুলতে এবং ট্যান অপসারণে সহায়তা করে। লেবুর খোসা শুকিয়ে গুঁড়ো করে নিন। এই পাউডারের সাথে কাঁচা দুধ মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। এবার এই পেস্টটি আপনার মুখে লাগান। ২০ মিনিট রেখে দিন। এরপর পরিষ্কার জল দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। টমেটোর ফেস প্যাক টমেটো ফাইটোকেমিকেল সমৃদ্ধ, যা সূর্যের ক্ষতিকারক ইউভি রশ্মি দ্বারা হওয়া ক্ষতির বিরুদ্ধে লড়াই করতে পারে। এটি ট্যান দূর করতে এবং ন্যাচরাল স্কিন টোন ফেরাতে সহায়তা করে। একটা টমেটো ভাল করে পিষে নিন। এবার এর সাথে ১ চা চামচ লেবুর রস মেশান। এই পেস্টটি মুখে লাগান, বিশেষ করে ট্যানের জায়গায় লাগান। ১৫ মিনিট রেখে ঠান্ডা জলে ধুয়ে ফেলুন।

Source link

শীতকালে ত্বকের যত্নে ব্যবহার করুন সিলিকন ফেস স্ক্রাব, দেখুন ব্যবহারের সঠিক পদ্ধতি | How To Use Silicone Face Scrub For Glowing Skin In Winter In Bengali


অল্প সময়ে স্ক্রাব করুন সিলিকন ফেস স্ক্রাবার ব্যবহারের ক্ষেত্রে সময় অনেক কম লাগে। সিলিকন স্ক্রাব দিয়ে মুখে ক্লিনজার করা অনেক সহজ। আঙুলের চেয়ে সিলিকন দিয়ে স্ক্রাব করা অনেক সহজ। সিলিকন ব্যবহারের ফলে ফেনা দ্রুত তৈরি হয়, যার ফলে মুখ দ্রুত পরিষ্কার হয়ে যায়। চোখের পাতা দীর্ঘ ও ঘন করতে এই ঘরোয়া পদ্ধতিগুলি প্রয়োগ করুন ডিপ ক্লিনজিং আঙুল দিয়ে স্ক্রাব করলে মুখের ডিপ ক্লিনজিং হয় না। সিলিকন ফেস স্ক্রাবার ব্যবহার করলে মুখের ডিপ ক্লিনজিং হয়। যে মহিলারা প্রতিদিন মুখে মেকআপ ব্যবহার করেন, তাদের জন্য সিলিকন স্ক্রাবার বেস্ট অপশন। বিভিন্নভাবে ব্যবহার করুন এটি বিভিন্ন উপায়ে ব্যবহার করা যেতে পারে। সিলিকন ফেস স্ক্রাবার আপনি মুখের পাশাপাশি বডি-তেও ব্যবহার করতে পারেন। মুখের সাথে শরীরের যত্ন নেওয়াও উচিত। শরীরকে এক্সফোলিয়েট করতে আপনি সিলিকন স্ক্রাবার ব্যবহার করতে পারেন।

Source link

Skin Care Tips in Bengali: ময়েশ্চারাইজার ব্যবহারেও ত্বকে লাভ হচ্ছে না? রইল সমাধান – top tips for a great winter skincare routine

এই সময় জীবনযাপন ডেস্ক: শীত মানেই ত্বক রুক্ষ খসখসে হয়ে যাওয়া। তেল, সাবান, ক্রিম, ময়েশ্চারাইজার নিয়ম করে সব লাগানো। নইলে ত্বক শুকনো হয়ে যা। সাদা দাগ পড়ে। আর যাঁদের ত্বক এমনিতেই শুষ্ক এই শীতে তাঁদের সমস্যা আরও বাড়ে। এছাড়াও ত্বক ফেটে যায়। ময়েশ্চারাইজার লাগিয়েও কোনও ফল হয় না। অনেকের ত্বক ফেটে রক্ত বেরোয়। অনেকের চামড়া ফুটো ফুটো হয়ে যায়। চিকিৎসকদের মতে এরকম কোনও সমস্যা হলে ধরে নিতে হবে ত্বকের অভ্যন্তরে কোনও সমস্যা হচ্ছে। আমাদের দেশে শীতকালে আবহাওয়া এমনিই শুষ্ক থাকে। অল্প আর্দ্রতা, ঠান্ডা বাতাস, সূর্যের আলোই এর প্রধান কারণ। বংশগত বা জিনগত কারণে ৪০ পেরোলেই ঘর্মগ্রন্থির সংখ্যা কমে যায়। ফলে ত্বকের তেলের পরিমাণ হ্রাস পায়। যার জন্য ত্বক এমনিই শুকনো হয়ে যায়। অনেকসময় ভিটামিন এ আর বি এর অভাবেও ত্বক শুকনো হয়ে যায়। থাইরয়েড, ডায়াবিটিস এসব সমস্যা থাকলেও ত্বক শুকনো হয়। এবারক দেখে নিন কীভাবে করবেন এই সমস্যার সমাধান। বাজার চলতি ফেসওয়াশের বদলে কাঁচা দুধ ব্যবহার করুনফেসওয়াশের মধ্যে নানা রকম কেমিক্যাল থাকে। যা ত্বকের প্রাকৃতিক ভারসাম্য নষ্ট করে দেয়। বিশেষত শীত কালে। আর তাই প্রতিদিন কাঁচা দুধের সঙ্গে লেবুর রস, বেসন, মধু, চালগুড়ি মিশিয়ে নিয়ে মুখে আর হাতে পায়ে লাগান। ১০ মিনিট রেখে ভালো করে ঘষে ইষদুষ্ণ গরম জলে ধুয়ে নিন। এরপর সাবান মাখুন। সাবান মেখে ভালো করে ধুয়ে তেল মাখুন। এক্ষেত্রে অলিভ অয়েলই সবচেয়ে ভালো। তেল মেখে ভালো করে স্নান করুন। স্নান করে শুকনো করে গা মুছে ময়েশ্চারাইজার লাগান। অলিভ অয়েল মাখুনঅলিভ অয়েল এক চামচ, ৫ চামচ নুন, ১ চামচ লেবুর রস মিশিয়ে একটি স্ক্রাব তৈরি করুন। এবার এই স্ক্রাব মুখে শরীরে ভালো করে লাগিয়ে নিন। ১০ মিনিট রেখে ধুয়ে নিন। এতে মরা কোষ যেমন উঠে যাবে তেমনই শুষ্ক ভাব দূর হবে। ভেতর থেকে তেলের ক্ষরণ বজায় থাকবে। নারকেল তেল আর অ্যালোভেরা জেলনারকেল তেলের সঙ্গে অ্যালোভেরা জেল মিশিয়ে নিন। ভালো করে সাবান দিয়ে গা পরিষ্কার করে ওই জেল লাগান। কিছুক্ষণ রেখে ধুয়ে ফেলুন। এরপর অবশ্যই ময়েশ্চারাইজার লাগান। শীতকালে নিয়ম করে প্রতিদিন সাবান মাখবেন। নইলে ত্বক রুক্ষ্ম হয়ে যাবে। জলে ক্লোরিন থাকলেজলে ক্লোরিন থাকলে ত্বক অতিরিক্ত শুকনো হয়ে যায়। আর তাই শীতকালেও সাঁতার কাটলে বা অতিরিক্ত গরম জলে স্নান করলে ঠান্ডা লাগতে বাধ্য। তাই এর ফলে ত্বক শুকনো হয়ে যায়। এছাড়াও চা, কফি বেশি খেলে, বেশিক্ষণ এসির মধ্যে থাকলে ত্বক শুকনো হয়ে যায়। পুরনো চর্মরোগ থাকলেঅনেকেরই সোরিয়াসিস, একজিমা, ইকথায়সিস ইত্যাদি সমস্যা থাকে। এই সব সমস্যা শীতে আরও বেড়েযা। আর তাই এই সময়টা একটু সচেতন থাকতে হয়। চিকিৎসকের পরামর্শ মতো স্যালিসাইলিক অ্যাসিড অয়েনমেন্ট ব্যবহার করতে হবে। এছাড়াও ভিটামিন এ, সি বেশি করে খেতে হবে।

Source link

কোমল ও উজ্জ্বল ত্বকের জন্য শীতকালে ভুলেও এই জিনিসগুলি ব্যবহার করবেন না | Avoid These Ingredients For Dry Skin In Winter In Bengali


এক্সফোলিয়েট কম করুন শীতের মরসুমে ত্বক বারবার এক্সফোলিয়েট করলে ত্বক শুষ্ক হয়ে ওঠে। তাই শীতে এক্সফোলিয়েট করা থেকে বিরত থাকুন। সপ্তাহে একবার বা খুব বেশি হলে দু’বার এক্সফোলিয়েট করতে পারেন। ঠান্ডা বা গরম জলে মুখ ধোওয়া মুখ ধোওয়ার সময়ে খুব ঠান্ডা বা খুব গরম জল একদমই ব্যবহার করবেন না। সর্বদা ঈষদুষ্ণ জলে মুখ ধোবেন। এতে ত্বকের স্বাভাবিক তৈলাক্ত ভাব এবং আর্দ্রতা কমবে না। লেবু মুখের ত্বক উজ্জ্বল করতে লেবু ব্যবহার করা হয়। লেবুতে অ্যাসিড রয়েছে, যা ঠান্ডায় ত্বককে শুষ্ক করে তোলে। ঠাণ্ডায় লেবু ব্যবহারের ফলে ত্বকে জ্বালা হতে পারে। তাই শীতকালে ত্বকে লেবু ব্যবহার না করাই ভাল। শীতে শুষ্ক ত্বকের যত্ন নিন ঘরোয়া উপায়ে, দেখুন কী করবেন চালের গুঁড়ো ফর্সা হওয়ার জন্য, অনেক মহিলাই চালের গুঁড়োর ফেস প্যাক ব্যবহার করে থাকেন। চালের ফেস প্যাক অ্যান্টি-এজিংয়ের জন্য কাজ করে। তবে চালের গুঁড়োতে স্টার্চ থাকে, যা ত্বককে শুষ্ক করে তোলে। তাই শীতেকালে চালের গুঁড়ো ব্যবহার করা উচিত নয়। বারবার মুখ ধোওয়া শীতে ঘন ঘন মুখ ধোওয়া হলে ত্বক শুষ্ক হয়ে ওঠে। তাই এই সময় ঘন ঘন মুখ ধোওয়া এড়িয়ে চলুন, কারণ এতে মুখের ন্যাচরাল অয়েল কম হয়ে যায়। রাতে ঘুমোতে যাওয়ার আগে মেকআপ অপসারণ করতে জল নয়, বরং ভেজা ওয়াইপ ব্যবহার করুন।

Source link

Hot Or Cold Water Bath In Winter: শীতকালে স্নানের সঙ্গে আড়ি নয়! জানুন কীভাবে কনকনে ঠান্ডাতেও থাকবেন ফ্রেশ – tips to take shower the right way in winters!

নভেম্বরের শেষ থেকেই এবার জাঁকিয়ে শীত পড়েছে। জেলার সব বাড়িতেই লেপ-কম্বল নেমেছে আলমারি থেকে। দুপুর গড়াতেই নামতে শুরু করেছে তাপমাত্রা। প্রচুর মানুষ আছেন যাঁরা শীত পড়লেই স্নান করা বন্ধ করে দেন। বাথরুমে ঢুকতে হবে শুনলেই যেন গায়ে জ্বর আসে। স্নান না করেই সপ্তাহে দিন তিনেক অনায়াসে কাটিয়ে দেওয়ার ক্ষমতা রাখেন তাঁরা। গায়ের দুর্গন্ধ ঢাকতে প্রচুর পরিমাণে পারফিউম স্প্রে করলেও যত সমস্যা কিন্তু তেল-সাবানে। আবার উল্টোটাও অনেকে করেন। সারা বছরের মতো শীতেও গায়ে ঠান্ডা জল ঢেলে স্নান করেন। তবে শীতে গরম জলে স্নান করার অভ্যেস থাকে সিংহভাগের। বিশেষত যাঁদের শরীরে কোনও ব্যথা থাকে। তাঁদের প্রতিদিন হালকা গরম জলে স্নান করাই ভালো। কিন্তু প্রতিদিন গরম জলে স্নান করলে শরীর গরম হয়ে যায়। এছাড়াও চুল, ত্বকের ক্ষতি হয়। তবে শীতেও প্রতিদিন সাবান মেখে স্নান করতেই হবে। প্রয়োজন মত তেল বা ময়েশ্চারাইজার লাগাতে হবে। পছন্দমতো ঠান্ডা বা গরমজল বেছে নিন। কিন্তু প্রতিদিন আবার গরম জলে স্নান করা চলবে না। দেখে নিন কীভাবে শীতেও থাকবেন ফ্রেশ। প্রতিদিন স্নান করতে হবেশীত মানেই স্নানকে ভয় নয়। স্নান নিয়মিত না করলে শীতে ঠান্ডা লাগা, ত্বকের সমস্যা এসব থাকবেই। তাই সুস্থ থাকতেই পরিষ্কার থাকতে হবে। এছাড়াও শীতে একটু বেশিই খাওয়া দাওয়া হয়। খাওয়া-দাওয়ার সঙ্গে নিয়মিত স্নান না করলেই পেট গরম হবে। আর শীতকালে আমাদের শরীরে বেশি জামাকাপড় থাকে। ফলে শরীরও গরম থাকে। আর তাই স্নান না করে গরম জামা পরে ঘুমোলে হৃদরোগের সম্ভাবনাও থেকে যায়। জলের তাপমাত্রাখুব ঠান্ডাও নয় আবার খুব গরমও নয়। যে তাপমাত্রায় গায়ে জল ঢাললে আরাম হবে সেই রকম জল নিন। যদি প্রতিদিন ঠান্ডা জলেই স্নান করার অভ্যেস থাকে তাহলে তাই করুন। একদম গরম জল গায়ে ঢালবেন না। হট ওয়াটার আর ওয়ার্ম ওয়াটারের মধ্যে কিন্তু ফারাক রয়েছে। প্রতিদিন গায়ে গরম জল ঢাললে ত্বক শুষ্ক হয়ে যায়। ত্বকের জল ধরে রাখার ক্ষমতা নষ্ট হয়ে যায়। বডি ওয়াশসাবান আমাদের শরীরকে বেশি শুষ্ক করে দেয়, কিন্তু বডি ওয়াশ শরীরকে পরিষ্কার করার পাশাপাশি আর্দ্রতাও বজায় রাখে। তবে লোভাতে বডিওয়াশ নিয়ে গা-হাত-পা পরিষ্কার করুন। অ্যালকোহল যুক্ত কোনও বডি ওয়াশ ব্যবহার করবেন না। শীতের উপযোগী প্রচুর বডিওয়াশ পাওয়া যায়য়। সেগুলোই দেখে কিনুন। তবে বডি ওয়াশ লাগানোর আগে কিন্তু স্ক্রাবিং করে নিতে ভুলবেন না। টাওয়াল দিয়ে গা মুছতে হবেভেজা গায়েই বাথরুম থেকে বেরিয়ে আসবেন না। নরম টাওয়াল দিয়ে ভালো করে গা মুছতে হবে। ফ্যানের হাওয়ায় গা শুকনো যেমন ক্ষতিকারক, তেমনই ত্বকের জন্যও খারাপ। কারণ স্নান করলে গা ঠান্ডা থাকে। বাইরের তাপমাত্রার সঙ্গে তা খাপ খায় না। তাই শুকনো করে মুছে তবেই ঘরে আসুন। তেল মাখুনআগেকার দিনে শীতকাল মানেই উঠোনে বসে সরষের তেল অথবা নারকেল তেল মাখার রেওয়াজ ছিল। ভালো করে রোদে বসে তেল মেখে তবেই সবাই স্নান করতেন। কিন্তু এখন তা কেউই করেন না। আর এভাবে বসে তেল মাখার সুযোগ নেই। তাই লাস্ট দুমগ জল ঢালা যখন বাকি থাকবে তখন দু ফোঁটা তেল মিশিয়ে নিন। অথবা যদি সাবান মাখার পর তেল মাখেন তখন দু মিনিট ম্যাসেজ করে জল দিয়ে ধুয়ে নিন। ময়েশ্চারাইজার লাগানশুকনো করে গা মুছে তবেই ময়েশ্চারাইজার লাগান। পিঠে, হাতে, পায়ে ভালো করে লাগাবেন। কোনও ভাবেই যাতে খসখসে ভাব না থাকে সেদিকে খেয়াল রাখবেন। ময়েশ্চারাইজার মেখে ভালো করে শীতের জামা পরে নিন। এতে ত্বক পরিষ্কার থাকবে আর ভালোও থাকবে। সেই সঙ্গে বজায় থাকবে আর্দ্রতা।

Source link

Can You Get A Sunburn In Winter – শীতকালেও হতে পারে সানবার্ন! জানুন কারণ…

হাইলাইটসশীতে টুপি, ছাতা, সানগ্লাস ছাড়া বেরোলেই মুশকিল। শীতের রোদ ভালো লাগছে ভেবে সানগ্লাস নেবেন না, এরকমটা করবেন না। কারণ এই ঋতুতে ত্বকের একটু বেশিই যত্ন নিতে হয়এই সময় জীবনযাপন ডেস্ক: শীতের রোদে পিঠ দিয়ে বসার মজাটাই আলাদা। এছাড়াও যাঁদের ভিটামিন ডি এর সমস্যা রয়েছে তাঁদের কিছুটা সময় রোদে থাকতে বলা হয়। আর শীতে যদি গায়ে রোদ লাগে তাহলে ঠান্ডা ভাবও খানিক কম লাগে। কিন্তু শীতের রোদের ঝাঁঝও মোটেই কম নয়। আর সেই রোদ কিন্তু পুড়িয়ে দিতে পারে আমাদের ত্বক। আর শীতের সানবার্ন শরীরের জন্য খুবই ক্ষতিকারক। কারণ এই সময় অনেক রকম ক্রিম, লোশন ব্যবহার করা হয়। এরপর যদি ট্যান পড়ে সেই পোড়াভাব তোলা বেশ কঠিন হয়ে যায়। শীতকালে কীভাবে সানবার্ন হয়শীতে টুপি, ছাতা, সানগ্লাস ছাড়া বেরোলেই মুশকিল। শীতের রোদ ভালো লাগছে ভেবে সানগ্লাস নেবেন না, এরকমটা করবেন না। কারণ এই ঋতুতে ত্বকের একটু বেশিই যত্ন নিতে হয়। রোজ সাবান মেখে স্নান, ক্রিম মাখা এসব তো করবেনই। সেই সঙ্গে বাড়ির বাইরে বেরোলে লোশনের সঙ্গে সানস্ক্রিন লোশন মিশিয়ে লাগাতে ভুলবেন না। যাঁদের ত্বক শুকনো প্রকৃতির, তাঁদের আরও সাবধানে থাকতে হবে। শুষ্ক ত্বক সূর্য রশ্মিতে আরও বেশি পুড়ে যায় । ত্বকের খুবই ক্ষতি হয়, এমনকী ত্বকের ক্যানসার পর্যন্ত হতে পারে বলে জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা ।আরও পড়ুন: রঙিন চুলে নতুন স্টাইলিং? প্রাকৃতিক উপায়ে রং করে ফেলুন বাড়িতেইশীতে সবাই বেড়াতে যান। সময় পেলে একবেলার জন্যই অনেকে যান। আর তাই বেড়াতে গেলে সবরকম সতর্কতা নেবেন। সমুদ্রের ধারে গেলে এমনিই চামড়াতে একটা ট্যান ধরে। আর তাই শীতে সমুদ্রের জলে স্নান না করাই ভালো। পাহাড়ে গেলেও মুখে সানস্ক্রিন লোশন লাগাতে ভুলবেন না। পোড়া ভাব থেকে কীভাবে ত্বককে রক্ষা করবেনসঠিক সানস্ক্রিন ব্যবহার করুন। ত্বক অনুযায়ী জেল বা লোশন। ক্রিম এড়িয়ে যান। ক্লিনজিং-টোনিং এইসব ভালো করে করতে হবে। মুখ যেন সবসময় পরিষ্কার থাকে, সেই খেয়াল রাখুন। আর ত্বক যেন শুষ্ক না থাকে। তাই ত্বকে ময়শ্চারাইজার লাগান । ময়শ্চারাইজার লাগিয়ে সান্সক্রিম লাগাতে পারেন । সানবার্ন থেকে অবশ্যই আপনার ত্বককে রক্ষা করবে । ত্বকে আর্দ্রতা বজায় রাখতে হবে ।ময়েশ্চারইজার ও সানস্ক্রিন মিশিয়ে মাখুনটুপি আর স্নানগ্লাস অবশ্যই সবসময় সঙ্গে রাখবেন। এই সময় ডিজিটালের লাইফস্টাইল সংক্রান্ত সব আপডেট এখন টেলিগ্রামে। সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন এখানে।

Source link