এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: বর্ষা বিদায় নিয়েছে দক্ষিণবঙ্গ থেকে। স্বাভাবিকভাবেই শীতের অপেক্ষায় কলকাতা-সহ শহরতলি। পুজোর সময় নিম্নচাপের ভ্রুকুটি থাকলেও বাংলাদেশের দিকে অভিমুখ থাকায় এ যাত্রায় রক্ষা পায় দক্ষিণবঙ্গের জেলাগুলি। কিন্তু ঠান্ডার ঠিক আগেই ফের কালো মেঘের সঞ্চার হয়েছে দক্ষিণবঙ্গের বেশ কয়েকটি জেলায়।শনিবার সকাল থেকেই আলো ঝলমলে আবহাওয়া। মাঝে মাঝে মেঘের দেখা মিললেও তা কিছুক্ষণের জন্যই। আবহাওয়া দফতর থেকে জানানো হয়েছে দুপুরের পর থেকেই মুর্শিদাবাদ ও দক্ষিণ ২৪ পরগনার বেশ কয়েকটি এলাকায় বজ্রবিদ্যুত্‍-সহ ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। কলকাতা ও শহরতলিতে এদিন আংশিক মেঘলা থাকলেও কোথাও বৃষ্টি পড়ার খবর মেলেনি। পূর্বাভাসও ছিল না। কিন্তু দুপুরের পর থেকেই মুর্শিদাবাদ ও দক্ষিণ ২৪ পরগনার এলাকার উপর ঘন কালো মেঘের সঞ্চার হয়েছে। যার জেরে বজ্রবিদ্যুত‍-সহ ভারী বৃষ্টি হতে পারে বিভিন্ন এলাকায়। দক্ষিণবঙ্গে কমতে পারে তাপমাত্রাও।অন্যদিকে মৌসম ভবন থেকে জানানো হয়েছে শনিবার দক্ষিণ ও উত্তর-পূর্বের বেশ কয়েকটি রাজ্যে মাঝারি বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। অসম, ত্রিপুরা, মেঘালয়, মিজোরাম, মণিপুর, নাগাল্যান্ড, পুদুচেরি, তামিলনাড়ু ও কেরালায় মাঝারি বৃষ্টি হতে পারে। কর্ণাটক, আন্দামানেও বিক্ষিপ্ত বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে।প্রসঙ্গত, পুজোর পর থেকেই বাতাস শুকনো, রাতের দিকে কমছে তাপমাত্রাও। নিম্নচাপের ভোগান্তি না হলেও বাংলায় হাজির উত্তরের শুকনো বাতাস। আবহাওয়া দফতরের পূর্বাভাস মত বঙ্গোপসাগরে তৈরি হয়েছে নতুন নিম্নচাপ। যার জেরেই আকাশ মেঘলা। দু-এক পশলা বৃষ্টি পড়তে পারে দক্ষিণবঙ্গে। পরোক্ষ প্রভাবে দখিনা বাতাসের আনাগোনা বাড়বে। ফলে আকাশ মেঘলা হবে। নভেম্বরের শুরুতে বিক্ষিপ্ত বৃষ্টির সম্ভাবনাও থাকবে। ফলে সে সময় রাতের তাপমাত্রা বেড়ে ২৩-২৪ ডিগ্রিতে পৌঁছে যেতে পারে।নিয়ম অনুযায়ী, ১২ অক্টোবর নাগাদ কলকাতা থেকে বর্ষা বিদায় নেওয়ার কথা। তার পর ঘূর্ণিঝড় মরসুম। তার ফাঁকে ফাঁকে উত্তরের শুকনো বাতাসের আনাগোনা শুরু হয়ে যায় বাংলায়। যেমন, ২০১১ সালে অক্টোবরেই পারদ নেমে গিয়েছিল ১৮.৯ ডিগ্রিতে। ২০১৮ সালে ২০ ডিগ্রিতে। এ বার দিনকয়েক আগে পর্যন্তও রাতের তাপমাত্রা ২৫-২৬ ডিগ্রির আশপাশে ঘোরাফেরা করছিল। যার অন্যতম কারণ সাগরে পর পর নিম্নচাপ। এবং তার ধাক্কায় অক্টোবরের শেষ সপ্তাহেও বর্ষার থেকে যাওয়া। তবে পুজোর নিম্নচাপ বাংলাদেশে সরে যাওয়ার পরই হাওয়াবদল। একটি পশ্চিমি ঝঞ্ঝার হাত ধরে কাশ্মীর, সিকিমে মরসুমের প্রথম তুষারপাতও হয়েছে। সবমিলিয়ে হাজির হেমন্ত।

Source link

Comments

comments