হাইলাইটসওবেসিটি (Obesity), থাইরয়েড, ডায়াবিটিস কিংবা কোলেস্টেরলের চোখ রাঙানি— এই সব কিছুর সঙ্গে লড়তে গেলে কেবল শরীরচর্চাই একমাত্র সমাধান নয়শরীরের প্রয়োজন অনুযায়ী জল খাওয়া আর সেই সঙ্গে খাবারদাবারে নজর দেওয়াও সমান গুরুত্বপূর্ণ। ডায়েট (Diet Tips) মেনে বা খুব নিয়ম অনুযায়ী খাওয়াদাওয়া করার সুযোগ ঘটে না অনেকেরই।এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: ওবেসিটি (Obesity), থাইরয়েড, ডায়াবিটিস কিংবা কোলেস্টেরলের চোখ রাঙানি— এই সব কিছুর সঙ্গে লড়তে গেলে কেবল শরীরচর্চাই একমাত্র সমাধান নয়। শরীরের প্রয়োজন অনুযায়ী জল খাওয়া আর সেই সঙ্গে খাবারদাবারে নজর দেওয়াও সমান গুরুত্বপূর্ণ। ডায়েট (Diet Tips) মেনে বা খুব নিয়ম অনুযায়ী খাওয়াদাওয়া করার সুযোগ ঘটে না অনেকেরই। তবু একটু সচেতন হলে ওজন বাড়াতে পারে এমন সব খাবার পাত থেকে সহজেই বাদ দেওয়া যায়। বরং তার জায়গায় নিয়ে আসুন স্বাস্থ্যকর কিছু খাবারদাবার। বিভিন্ন সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে সকালের জলখাবার এ ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় ভূমিকা নেয়। ওজন কমাতে (weight loss) চাইলে প্রাতঃরাশকে (breakfast diet) সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেওয়া উচিত। মধ্যাহ্নভোজ বা রাতের খাবার এর তুলনায় প্রাতঃরাশ (breakfast diet) অনেকটাই বেশি গুরুত্বপূর্ণ।আরও পড়ুন: করোনাকালে বাড়ি থেকে কাজ? লিভার সুস্থ রাখুন এই ৫ টিপসেতাই প্রতিদিনের ব্রেকফাস্ট (breakfast diet) থেকে ডিনার পর্যন্ত নানা ধাপে এই সব খাবার পাতে যোগ করলেই সুফল পাবেন অনেকটা। সঙ্গে একটু হাঁটাহাঁটি ও পর্যাপ্ত জলেই কমবে ওজন। দূরে থাকবে অনিয়ন্ত্রিত জীবনযাপনের ফলে হওয়া নানা অসুখবিসুখ। ওজন কমালে শুধুমাত্র আপনি সুস্থ থাকবেন তাই নয়, বেশ কয়েকটা রোগের হাত থেকেও আপনার মুক্তিলাভ সম্ভব। নিয়মিত রক্তচাপ, রক্তে শর্করার মাত্রা পরীক্ষা করানো আমাদের পক্ষে সম্ভব হয় না। কিন্তু ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারলে এগুলো এমনিতেই অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে থাকে। এ ছাড়াও ওজন কমালে শরীর বেশ ঝরঝরে লাগে। এনার্জি লেভেলও ফিরে আসে। দেখে নিন সেগুলো কী কী- ১. প্রোটিনে পূর্ণ হোক ব্রেকফাস্ট (breakfast) প্রোটিনের নানা উপকারিতার কথা নিশ্চয়ই ইতিমধ্যে শুনেই ফেলেছেন। বিএমসি-তে প্রকাশিত সাম্প্রতিক এক সমীক্ষায় প্রোটিনসমৃদ্ধ প্রাতঃরাশের (breakfast diet) গুরুত্বের কথা বলা হয়েছে। জানা গিয়েছে প্রোটিনে পূর্ণ প্রাতঃরাশ কিশোর কিশোরীদের মধ্যে অতিরিক্ত খিদে পাওয়ার প্রবণতাকে নিয়ন্ত্রণে রাখে। এবং তাদের ওজন বেড়ে যাওয়ার হাত থেকে রক্ষা করে। ওইজাতীয় খাবার ব্রেন এবং কেন্দ্রীয় স্নায়ুতন্ত্রকে সুস্থ রাখে।২. কালো চা বা কফিদিনের শুরুতেই এক কাপ কালো চা বা কফি আসলে আপনার ওজন ঝরানো সহায়ক এটা কি জানতেন? আমেরিকান জার্নাল অব ক্লিনিক্যাল নিউট্রিশমের মতে, ক্যাফিন মেটাবলিজম বাড়ায়। এবং অক্সিডেশনও বৃদ্ধি করে তাই প্রাতরাশ কিন্তু ক্যাফিন রাখতেই হবে।৩. চিনিযুক্ত পানীয় বা প্যাকেটজাত ফল বর্জনসকালের পানীয়ে চিনি দেবেন না। তা সে দুধের তৈরি কোন রকম শেক হোক বা কোনও ফলের রস। চিনি ছাড়া ফল বা ফলের রস শরীরের জন্য অনেক বেশি উপকারী।আরও পড়ুন: নিয়মিত একটু এলাচ খেলেই পাবেন উপকার! জেনে নিন গুণাগুণ…৪. শস্যদানা বাদ দিনঅনেকেই হয়তো জানেন না যে, শস্যদানার মধ্যে বেশ অনেকটা চিনির মতোই কার্বোহাইড্রেট থাকে তাই প্রাতঃরাশে শস্যদানা রাখলে ওজন কমার বদলে আরও বেড়ে যেতে পারে। ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশনের প্রকাশিত একটি রিপোর্টে দেখা গিয়েছে শিশুদের ক্ষেত্রে কার্টুনের পাশাপাশি সকালে শস্য খাওয়ার অভ্যাস আরও বেশি করে তাদের অতিরিক্ত ওজন বৃদ্ধির কারণ হয়ে দাঁড়াচ্ছে।তবে ওজন ঝরাতে গেলে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো ব্রেকফাস্ট যেন মিস না হয়। সকাল সকাল নিয়ম মেনে খাবার খান আর সুস্থ থাকুন দিনভর।এই সময় ডিজিটালের লাইফস্টাইল সংক্রান্ত সব আপডেট এখন টেলিগ্রামে। সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন এখানে।

Source link

Comments

comments